দোহার-নবাবগঞ্জে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি চলছে
jugantor
দোহার-নবাবগঞ্জে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি চলছে

  আজহারুল হক, নবাবগঞ্জ  

০৭ অক্টোবর ২০২১, ০০:১২:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

আগামী ১১ অক্টোবর সোমবার মহাষষ্ঠী, অপেক্ষার প্রহর শেষ। এবার ঘোড়ায় চড়ে অসুর বিনাশিনী দেবী দুর্গা মর্ত্যলোকে পদার্পণ করছেন। দশভুজা দেবী দুর্গার এ আগমনে দোহার নবাবগঞ্জে আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে বরণ করতে সমস্ত প্রস্তুতি সম্পূর্ণ হয়েছে।

দোহারে ৩টি ও নবাবগঞ্জে ১৫টি নতুন পূজামণ্ডপ যোগ হয়েছে। ফলে এ বছর নবাবগঞ্জে ১৮০টি ও দোহার উপজেলায় ৪০টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।

খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, শুধু হিন্দু সনাতন ধর্মের অনুসারীরাই নয়, পূজার আমেজ পেতে শুরু করেছেন সব মত ও পথের মানুষ। এছাড়া দোহার ও নবাবগঞ্জের বস্ত্র বিতানগুলোতে নারী, শিশু ও পুরুষদের দেখা যায় নতুন কাপড় ক্রয় করতে। এর মধ্যে জয়পাড়া, বাগমারা ও নবাবগঞ্জের নতুন জেলা পরিষদের মার্কেটে পূজা উপলক্ষে ক্রেতাদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ইতোমধ্যে অনেকেই আবার পরিবার-পরিজনদের জন্য পূজার কেনাকাটার কাজ শেষ করেছেন।

নবাবগঞ্জ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অনুপম দত্ত নিপু ও সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ চন্দ দুর্গাপূজার প্রস্তুতির বিষয়ে বলেন, নবাবগঞ্জে ১৮০টি পূজামণ্ডপে দেবী দুর্গার প্রতিমা গড়ার সব কাজ সমাপ্ত হয়েছে। কল্যাণী মা দেবী দুর্গার আশীর্বাদে মহামারি করোনাভাইরাসের সব বিপর্যয় কেটে গিয়ে জগত আপন সুরে জেগে উঠবে মায়ের মহিমায়। মানুষের মাঝে নেমে আসবে শান্তি। বিনাশ হবে সব অপশক্তি- এমনটাই প্রত্যাশা আমাদের।

নবাবগঞ্জ থানার ওসি মো. সিরাজুল ইসলাম শেখ বলেন, প্রতিটি পূজামণ্ডপে পূজারিরা যাতে নির্বিঘ্নে পূজার কাজ সমাপ্ত করতে পারে সে বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিশ্চিত করতে সব প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। পূজামণ্ডপে সিসি ক্যামেরা থাকবে এবং পুলিশসহ অন্যান্য বাহিনীর সদস্যরা তাদের টহল অব্যাহত রাখবে।

নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এইচএম সালাউদ্দীন মনজু বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুর্গাপূজা উপলক্ষে ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সরকারিভাবে প্রতিটি পূজামণ্ডপে ৫০০ কেজি করে চাল দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

দোহার-নবাবগঞ্জে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি চলছে

 আজহারুল হক, নবাবগঞ্জ 
০৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:১২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আগামী ১১ অক্টোবর সোমবার মহাষষ্ঠী, অপেক্ষার প্রহর শেষ। এবার ঘোড়ায় চড়ে অসুর বিনাশিনী দেবী দুর্গা মর্ত্যলোকে পদার্পণ করছেন। দশভুজা দেবী দুর্গার এ আগমনে দোহার নবাবগঞ্জে আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে বরণ করতে সমস্ত  প্রস্তুতি সম্পূর্ণ হয়েছে।

দোহারে ৩টি ও নবাবগঞ্জে ১৫টি নতুন পূজামণ্ডপ যোগ হয়েছে। ফলে এ বছর নবাবগঞ্জে ১৮০টি ও দোহার উপজেলায় ৪০টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।

খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, শুধু হিন্দু সনাতন ধর্মের অনুসারীরাই নয়, পূজার আমেজ পেতে শুরু করেছেন সব মত ও পথের মানুষ। এছাড়া দোহার ও নবাবগঞ্জের  বস্ত্র বিতানগুলোতে নারী, শিশু ও পুরুষদের দেখা যায় নতুন কাপড় ক্রয় করতে। এর মধ্যে জয়পাড়া, বাগমারা ও নবাবগঞ্জের নতুন জেলা পরিষদের মার্কেটে পূজা উপলক্ষে ক্রেতাদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ইতোমধ্যে অনেকেই আবার পরিবার-পরিজনদের জন্য পূজার কেনাকাটার কাজ শেষ করেছেন।

নবাবগঞ্জ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অনুপম দত্ত নিপু ও সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ চন্দ দুর্গাপূজার প্রস্তুতির বিষয়ে বলেন, নবাবগঞ্জে ১৮০টি পূজামণ্ডপে দেবী দুর্গার প্রতিমা গড়ার সব কাজ সমাপ্ত হয়েছে। কল্যাণী মা দেবী দুর্গার আশীর্বাদে মহামারি করোনাভাইরাসের সব বিপর্যয় কেটে গিয়ে জগত আপন সুরে জেগে উঠবে মায়ের মহিমায়। মানুষের মাঝে নেমে আসবে শান্তি। বিনাশ হবে সব অপশক্তি- এমনটাই প্রত্যাশা আমাদের।

নবাবগঞ্জ থানার ওসি মো. সিরাজুল ইসলাম শেখ বলেন, প্রতিটি পূজামণ্ডপে পূজারিরা যাতে নির্বিঘ্নে পূজার কাজ সমাপ্ত করতে পারে সে বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিশ্চিত করতে সব প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। পূজামণ্ডপে সিসি ক্যামেরা থাকবে এবং পুলিশসহ অন্যান্য বাহিনীর সদস্যরা তাদের টহল অব্যাহত রাখবে। 

নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এইচএম সালাউদ্দীন মনজু বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুর্গাপূজা উপলক্ষে ব্যাপক নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সরকারিভাবে প্রতিটি পূজামণ্ডপে ৫০০ কেজি করে চাল দেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন