রিকশা চুরির ঘটনায় বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন
jugantor
রিকশা চুরির ঘটনায় বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন

  যুগান্তর প্রতিবেদন, মানিকগঞ্জ  

০৯ অক্টোবর ২০২১, ২৩:১৯:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

রিকশা চুরির ঘটনায় বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন

রিকশা চুরির অভিযোগে আলমগীর হোসেন (৩০) নামে এক যুবককে বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে।

শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার চান্দহর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আলমগীর হোসেন জেলার সাটুরিয়া উপজেলার চরপাড়া গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে।
প্রায় ৫ বছর আগে সদর উপজেলার গড়পাদা চান্দহর গ্রামের ময়ুর আলীর রিকশা ভাড়া নিয়ে চালাতেন আলমগীর হোসেন। হঠাৎ একদিন রিকশাসহ উধাও হন তিনি। দীর্ঘদিনেও তার হদিস
মেলেনি।

শনিবার আলমগীরকে দেখতে পান রিকশার মালিক ময়ুর আলীর দু‘ছেলে। আলমগীর টের পাওয়ার আগেই মালিকের ছেলেরা তাকে ধরে রাস্তার পাশে বিদ্যুতের খুঁটির সাথে বেঁধে ফেলেন। এসময় জড়ো হন আশপাশের লোকজনও।

আলমগীর হোসেনকে চর থাপ্পড়সহ কয়েক দফায় মারপিট করা হয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।

মানিকগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকবর আলী খান জানান, আলমগীর একজন পেশাদার রিকশা চোর। তার বিরুদ্ধে সাটুরিয়া ও ধামরাই থানায় মামলা রয়েছে। তাই তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন করার ঘটনায় চান্দহর গ্রামের ময়ুর আলীর ছেলে আলী মুদ্দিন ও দানেজ মিয়াকে আটক করে থানায় আনে পুলিশ।

এঘটনায় দুইজনকে আটক করা হলেও স্থানীয় চেয়ারম্যানের মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। আলমগীর হোসেনের বিরুদ্ধে নেওয়া হচ্ছে আইনগত ব্যবস্থা।

রিকশা চুরির ঘটনায় বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন

 যুগান্তর প্রতিবেদন, মানিকগঞ্জ 
০৯ অক্টোবর ২০২১, ১১:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রিকশা চুরির ঘটনায় বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন
ছবি: সংগৃহীত

রিকশা চুরির অভিযোগে আলমগীর হোসেন (৩০) নামে এক যুবককে বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে। 

শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার চান্দহর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

আলমগীর হোসেন জেলার সাটুরিয়া উপজেলার চরপাড়া গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে। 
প্রায় ৫ বছর আগে সদর উপজেলার গড়পাদা চান্দহর গ্রামের ময়ুর আলীর রিকশা ভাড়া নিয়ে চালাতেন আলমগীর হোসেন। হঠাৎ একদিন রিকশাসহ উধাও হন তিনি। দীর্ঘদিনেও তার হদিস 
মেলেনি।
 
 শনিবার আলমগীরকে দেখতে পান রিকশার মালিক ময়ুর আলীর দু‘ছেলে। আলমগীর টের পাওয়ার আগেই মালিকের ছেলেরা তাকে ধরে রাস্তার পাশে বিদ্যুতের খুঁটির সাথে বেঁধে ফেলেন। এসময় জড়ো হন আশপাশের লোকজনও। 

আলমগীর হোসেনকে চর থাপ্পড়সহ কয়েক দফায় মারপিট করা হয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।

মানিকগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকবর আলী খান জানান, আলমগীর একজন পেশাদার রিকশা চোর। তার বিরুদ্ধে সাটুরিয়া ও ধামরাই থানায় মামলা রয়েছে। তাই তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন করার ঘটনায় চান্দহর গ্রামের ময়ুর আলীর ছেলে আলী মুদ্দিন ও দানেজ মিয়াকে আটক করে থানায় আনে পুলিশ।

 এঘটনায় দুইজনকে  আটক করা হলেও স্থানীয় চেয়ারম্যানের মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। আলমগীর হোসেনের বিরুদ্ধে নেওয়া হচ্ছে আইনগত ব্যবস্থা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন