ভৈরবে বিকল হলো নতুন কেনা ইঞ্জিন, ৫ ঘণ্টা পর ট্রেন গেল ঢাকায়
jugantor
ভৈরবে বিকল হলো নতুন কেনা ইঞ্জিন, ৫ ঘণ্টা পর ট্রেন গেল ঢাকায়

  ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি  

১০ অক্টোবর ২০২১, ১৫:১৪:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

ইঞ্জিন বিকল

চট্টগ্রাম-ঢাকাগামী চিটাগাং মেইলের ইঞ্জিনটি বিকল হয়ে যায় ভৈরবে। পরে ৫ ঘণ্টা বিলম্বের পর আখাউড়া থেকে আরেকটি ইঞ্জিন ভৈরবে এসে ট্রেনটি ঢাকা নিয়ে যায়। বিকল হওয়া ইঞ্জিনটি দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ক্রয়কৃত হুন্দাই রোটেম কোম্পানির বলে জানা গেছে।

গত বছর আগস্ট মাসে বাংলাদেশ রেলওয়ে কোরিয়া থেকে ১০টি ইঞ্জিন আমদানি করে। তখনই এসব ইঞ্জিন নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হয়। বিভিন্ন পত্রিকায় এ খবর প্রকাশ হয়েছিল। সেই ১০ ইঞ্জিনের মধ্য বিকল হওয়া ৩০০৬ নম্বরের ইঞ্জিন এটি।

শনিবার রাতে বিকল ইঞ্জিনটি অন্য ইঞ্জিন দিয়ে আখাউড়াতে মেরামতের জন্য নেওয়া হয় বলে রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে।

ভৈরব রেলস্টেশনের মাস্টার মো. নুরুন্নবী যুগান্তরকে বলেন, শনিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ভৈরবের জিল্লুর রহমান রেল সেতু পার হওয়ার আগে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয় ইঞ্জিনে। তার পর সাড়ে ৫ ঘণ্টা ট্রেনটি ভৈরব রেলস্টেশনে আটকা থাকে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, কোরিয়ার হুন্দাই রোটেম কোম্পানি থেকে ৩২৩ কোটি টাকায় কেনা ১০টি মিটারগেজ ইঞ্জিন গত বছরের আগস্টে দেশে আনা হয়। তখনই জানা গেছে ঠিকাদার চুক্তি অনুযায়ী যন্ত্রাংশ ইঞ্জিনে দেয়নি। তখনকার প্রকল্প পরিচালক এ কারণে ইঞ্জিনগুলো গ্রহণে আপত্তি জানান। পরে রেলপথ মন্ত্রণালয় কয়েকটি কমিটি করে তাদের মতামত নিয়ে ইঞ্জিনগুলো গ্রহণ করে।

রেলওয়ের বিভাগীয় ট্রাফিক অফিসার খায়রুল কবির যুগান্তরকে জানান, তারা শুধু ট্রেনের চলাচল দেখভাল করেন। ইঞ্জিন ও বগির সমস্যাগুলো মেকানিক্যাল বিভাগ দেখবে।

প্রধান যন্ত্র প্রকৌশলী বোরহান উদ্দিন বলেন, ভৈরবে চিটাগাং মেইলের ইঞ্জিন বিকল হয়েছে, তবে কী কারণে তা দেখতে হবে। ইঞ্জিনটি শনিবার রাতেই আখাউড়া নেওয়া হয়েছে।

রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) সরদার সাহাদাত আলী জানান, গত বুধবার রাতে চট্টগ্রাম থেকে যাত্রা করে চট্রগ্রাম মেইল। পথে প্রথমে ক্যান্টেন্টমেন্ট রেলস্টেশনে ইঞ্জিনটি ক্রটি দেখা দেয়। পরে তেজগাঁও স্টেশনে ট্রেনটি থেমে যায়। একইভাবে শনিবার ভৈরবে ইঞ্জিন বিকল হয়। নতুন ইঞ্জিন কেনায় কোনো দুর্নীতি হয়েছে কিনা তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইঞ্জিন কেনার দায়িত্ব আমার বিভাগের নয়।

ভৈরবে বিকল হলো নতুন কেনা ইঞ্জিন, ৫ ঘণ্টা পর ট্রেন গেল ঢাকায়

 ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি 
১০ অক্টোবর ২০২১, ০৩:১৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইঞ্জিন বিকল
ফাইল ছবি

চট্টগ্রাম-ঢাকাগামী চিটাগাং মেইলের ইঞ্জিনটি বিকল হয়ে যায় ভৈরবে। পরে ৫ ঘণ্টা বিলম্বের পর আখাউড়া থেকে আরেকটি ইঞ্জিন ভৈরবে এসে ট্রেনটি ঢাকা নিয়ে যায়। বিকল হওয়া ইঞ্জিনটি দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ক্রয়কৃত হুন্দাই রোটেম কোম্পানির বলে জানা গেছে। 

গত বছর আগস্ট মাসে বাংলাদেশ রেলওয়ে কোরিয়া থেকে ১০টি ইঞ্জিন আমদানি করে। তখনই এসব ইঞ্জিন নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হয়। বিভিন্ন পত্রিকায় এ খবর প্রকাশ হয়েছিল। সেই ১০ ইঞ্জিনের মধ্য বিকল হওয়া ৩০০৬ নম্বরের ইঞ্জিন এটি। 

শনিবার রাতে বিকল ইঞ্জিনটি অন্য ইঞ্জিন দিয়ে আখাউড়াতে মেরামতের জন্য নেওয়া হয় বলে রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে।

ভৈরব রেলস্টেশনের মাস্টার মো. নুরুন্নবী যুগান্তরকে বলেন, শনিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ভৈরবের জিল্লুর রহমান রেল সেতু পার হওয়ার আগে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেয় ইঞ্জিনে। তার পর সাড়ে ৫ ঘণ্টা ট্রেনটি ভৈরব রেলস্টেশনে আটকা থাকে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, কোরিয়ার হুন্দাই রোটেম কোম্পানি থেকে ৩২৩ কোটি টাকায় কেনা ১০টি মিটারগেজ ইঞ্জিন গত বছরের আগস্টে দেশে আনা হয়। তখনই জানা গেছে ঠিকাদার চুক্তি অনুযায়ী যন্ত্রাংশ ইঞ্জিনে দেয়নি। তখনকার প্রকল্প পরিচালক এ কারণে ইঞ্জিনগুলো গ্রহণে আপত্তি জানান। পরে রেলপথ মন্ত্রণালয় কয়েকটি কমিটি করে তাদের মতামত নিয়ে ইঞ্জিনগুলো গ্রহণ করে।

রেলওয়ের বিভাগীয় ট্রাফিক অফিসার খায়রুল কবির যুগান্তরকে জানান, তারা শুধু ট্রেনের চলাচল দেখভাল করেন। ইঞ্জিন ও বগির সমস্যাগুলো মেকানিক্যাল বিভাগ দেখবে। 

প্রধান যন্ত্র প্রকৌশলী বোরহান উদ্দিন বলেন, ভৈরবে চিটাগাং মেইলের ইঞ্জিন বিকল হয়েছে, তবে কী কারণে তা দেখতে হবে। ইঞ্জিনটি শনিবার রাতেই আখাউড়া নেওয়া হয়েছে।

রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) সরদার সাহাদাত আলী জানান, গত বুধবার রাতে চট্টগ্রাম থেকে যাত্রা করে চট্রগ্রাম মেইল। পথে প্রথমে ক্যান্টেন্টমেন্ট রেলস্টেশনে ইঞ্জিনটি ক্রটি দেখা দেয়। পরে তেজগাঁও স্টেশনে ট্রেনটি থেমে যায়। একইভাবে শনিবার ভৈরবে ইঞ্জিন বিকল হয়। নতুন ইঞ্জিন কেনায় কোনো দুর্নীতি হয়েছে কিনা তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইঞ্জিন কেনার দায়িত্ব আমার বিভাগের নয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন