কান্না থামছে না গঞ্জের আলীর
jugantor
কান্না থামছে না গঞ্জের আলীর

  কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি   

১৩ অক্টোবর ২০২১, ২০:৩২:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

কৃষক

কৃষক গঞ্জের আলী-সিনু দম্পতির গোয়ালের গরুগুলো ছিল একমাত্র সম্বল। বছর শেষে ১-২টা গরু বিক্রি করে সংসার চলে তাদের। মাঠে চাষযোগ্য জমি না থাকায় সন্তানের মতো করে গরু লালন-পালন করেন তারা।

কিন্তু মঙ্গলবার গভীর রাতে গোয়ালের ৯টি গরুর মধ্যে ৭টি গরু চুরি হয়ে গেছে। চোর দুটি বাছুর রেখে গেছে। শেষ অবলম্বন হারিয়ে কৃষক গঞ্জের আলীর কান্না থামছে না।

গঞ্জের আলীর বাড়ি ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ পৌর এলাকার ফয়লা গ্রামে। তিনি জানান, প্রতিদিনের মতো রাতে গরুগুলোকে খেতে দিয়ে নিজেরা ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন। ভোর ৪টার দিকে বের হয়ে দেখেন গরুশূন্য গোয়াল পড়ে আছে। এরপর দেখেন বাড়ির মূলফটকের হুক কাটা, দরজা আলগা করা। তখন বুঝতে পারেন গরুগুলো চুরি হয়ে গেছে।

এই কৃষক আরও বলেন, সড়কের পাশে বাড়ি হওয়ায় চোরেরা পিকআপে তুলে নিয়ে গেছে গরুগুলো। গাড়ির চাকার দাগ দেখে বোঝা যাচ্ছে।

তিনি আরও জানান, ভোরের দিকে এক রিকশাওয়ালা রিকশা নিয়ে পাশের নরেন্দ্রপুর গ্রামে যাচ্ছিল। এ সময় চোরেরা তাকে ধরে গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে রাখে যেন সে হৈ-চৈ করতে না পারে। সকালে ওই রিকশাচালকের কাছে তিনি শুনেছেন, চোরেরা মুখোশ পরিধান করে বড়-বড় ধারালো দা ও দেশীয় অস্ত্রপাতি নিয়ে পিকআপে তুলে গরুগুলো নিয়ে যায়।

প্রতিবেশী জিল্লুর রহমান বলেন, চোরেরা প্রাচীর ডিঙিয়ে বাড়ির ভেতর প্রবেশ করে গেটের হুক কেটেছে। গঞ্জের আলী অত্যন্ত গরিব কৃষক। এখন তার সবকিছু শেষ হয়ে গেছে।

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মোতালেব হোসেন বলেন, গরু চুরির ঘটনাটি সত্য। ভুক্তভোগী পরিবারের সিনু খাতুন বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। বিষয়টি দুঃখজনক। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে।

কান্না থামছে না গঞ্জের আলীর

 কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি  
১৩ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
কৃষক
গোয়ালের সামনে কান্নারত গঞ্জের আলী। ছবি: যুগান্তর

কৃষক গঞ্জের আলী-সিনু দম্পতির গোয়ালের গরুগুলো ছিল একমাত্র সম্বল। বছর শেষে ১-২টা গরু বিক্রি করে সংসার চলে তাদের। মাঠে চাষযোগ্য জমি না থাকায় সন্তানের মতো করে গরু লালন-পালন করেন তারা।

কিন্তু মঙ্গলবার গভীর রাতে গোয়ালের ৯টি গরুর মধ্যে ৭টি গরু চুরি হয়ে গেছে। চোর দুটি বাছুর রেখে গেছে। শেষ অবলম্বন হারিয়ে কৃষক গঞ্জের আলীর কান্না থামছে না। 

গঞ্জের আলীর বাড়ি ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ পৌর এলাকার ফয়লা গ্রামে। তিনি জানান, প্রতিদিনের মতো রাতে গরুগুলোকে খেতে দিয়ে নিজেরা ঘরে ঘুমিয়ে পড়েন। ভোর ৪টার দিকে বের হয়ে দেখেন গরুশূন্য গোয়াল পড়ে আছে। এরপর দেখেন বাড়ির মূলফটকের হুক কাটা, দরজা আলগা করা। তখন বুঝতে পারেন গরুগুলো চুরি হয়ে গেছে। 

এই কৃষক আরও বলেন, সড়কের পাশে বাড়ি হওয়ায় চোরেরা পিকআপে তুলে নিয়ে গেছে গরুগুলো। গাড়ির চাকার দাগ দেখে বোঝা যাচ্ছে।

তিনি আরও জানান, ভোরের দিকে এক রিকশাওয়ালা রিকশা নিয়ে পাশের নরেন্দ্রপুর গ্রামে যাচ্ছিল। এ সময় চোরেরা তাকে ধরে গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে রাখে যেন সে হৈ-চৈ করতে না পারে। সকালে ওই রিকশাচালকের কাছে তিনি শুনেছেন, চোরেরা মুখোশ পরিধান করে বড়-বড় ধারালো দা ও দেশীয় অস্ত্রপাতি নিয়ে পিকআপে তুলে গরুগুলো নিয়ে যায়।

প্রতিবেশী জিল্লুর রহমান বলেন, চোরেরা প্রাচীর ডিঙিয়ে বাড়ির ভেতর প্রবেশ করে গেটের হুক কেটেছে। গঞ্জের আলী অত্যন্ত গরিব কৃষক। এখন তার সবকিছু শেষ হয়ে গেছে। 

কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মোতালেব হোসেন বলেন, গরু চুরির ঘটনাটি সত্য। ভুক্তভোগী পরিবারের সিনু খাতুন বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। বিষয়টি দুঃখজনক। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন