হাত-মুখ বেঁধে শিশুকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ধর্ষক
jugantor
হাত-মুখ বেঁধে শিশুকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ধর্ষক

  সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি  

১৫ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৩৬:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

নাটোরের সিংড়ায় হাত-মুখ বেঁধে এক শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত আব্দুল ওহাব (৫০) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আব্দুল ওহাব উপজেলার রাতাল কুমগ্রামের আব্দুর রশিদ প্রামাণিকের ছেলে।

শুক্রবার সকালে একটি মুরগির খামারে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ধর্ষণের শিকার শিশুটি স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। বর্তমানে সে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ওই শিশুটি মুরগির খামারে যায়। এ সময় ওই খামারের পাহারাদার আব্দুল ওহাব শিশুটিকে কাছে ডেকে নেয়। শিশুটির হাত-মুখ বেঁধে তাকে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে শিশুটির চিৎকারে এলাকার লোকজন ছুটে গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে। ধর্ষক আব্দুল ওহাবকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে এলাকাবাসী। আব্দুল ওহাব তাৎক্ষণিক উপস্থিত পুলিশ ও সাংবাদিকদের কাছে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে।

সিংড়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) মো. রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় অভিযুক্ত আব্দুল ওহাবকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আর ভিকটিম শিশুটিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

হাত-মুখ বেঁধে শিশুকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ধর্ষক

 সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি 
১৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নাটোরের সিংড়ায় হাত-মুখ বেঁধে এক শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত আব্দুল ওহাব (৫০) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত আব্দুল ওহাব উপজেলার রাতাল কুমগ্রামের আব্দুর রশিদ প্রামাণিকের ছেলে।

শুক্রবার সকালে একটি মুরগির খামারে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ধর্ষণের শিকার শিশুটি স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। বর্তমানে সে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। 

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ওই শিশুটি মুরগির খামারে যায়। এ সময় ওই খামারের পাহারাদার আব্দুল ওহাব শিশুটিকে কাছে ডেকে নেয়। শিশুটির হাত-মুখ বেঁধে তাকে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে শিশুটির চিৎকারে এলাকার লোকজন ছুটে গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে।  ধর্ষক আব্দুল ওহাবকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে এলাকাবাসী। আব্দুল ওহাব তাৎক্ষণিক উপস্থিত পুলিশ ও সাংবাদিকদের কাছে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে।

সিংড়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) মো. রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় অভিযুক্ত আব্দুল ওহাবকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আর ভিকটিম শিশুটিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন