বাবার জন্য মনোনয়নপত্র ছিনতাই, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা গ্রেফতার
jugantor
বাবার জন্য মনোনয়নপত্র ছিনতাই, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা গ্রেফতার

  যুগান্তর প্রতিবেদন, মানিকগঞ্জ  ও সিংগাইর প্রতিনিধি  

১৫ অক্টোবর ২০২১, ২২:৪২:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

স্বেচ্ছাসেবক লীগের জেলা কমিটির সদস্য ফয়েজুল ইসলাম খানকে

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়নপত্র ছিনতাইয়ের অভিযোগে মানিকগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পরিচালক ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের জেলা কমিটির সদস্য ফয়েজুল ইসলাম খানকে (৪৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার বিকালে সিংগাইর উপজেলার বলধারায় এ ঘটনা ঘটে।

গ্রেফতার ফয়েজুল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বলধারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মাজেদ খানের ছেলে।

সিংগাইর থানা পুলিশ জানায়, সিংগাইর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান আসন্ন বলধারা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন কিনেছেন। শুক্রবার বিকালে তিনি তার মনোনয়নপত্র উপজেলা নির্বাচন অফিসে জমা দেওয়ার সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মাজেদ খানের পুত্র ফয়েজুল হক খান, তার ভাগ্নে মোস্তাফিজুর রহমান মিঠু (৩০) ও চাচাতো ভাই মো. জিয়াউর রহমানসহ (৪০) অজ্ঞাত ৪-৫ জন এলোপাতাড়ি কিলঘুসি মেরে মনোনয়নপত্র ও সঙ্গে থাকা জাতীয় পরিচয়পত্র ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ করার পর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

ওবায়দুর রহমান গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও একই ইউনিয়ন থেকে নৌকা প্রতীকের বিপক্ষে স্বতন্ত্র নির্বাচন করেছিলেন। এবারো নির্বাচন করার ইচ্ছা নিয়ে তিনি মনোনয়নপত্র কিনেছেন।

সূত্র জানায়, পিতার বিপরীতে মনোনয়নপত্র কেনায় গ্রেফতারকৃত ফয়েজুল ইসলাম ফয়েজ ক্ষুব্ধ হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতির মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নিয়ে যান।

আরেকটি সূত্র জানায়, সকালের দিকে গ্রেফতারকৃত ফয়েজুল ইসলামের বাধার কারণে ওই ইউনিয়নে আরেক প্রার্থী মো. রুহুল আমীন সেলিমও মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারেননি।

ঘটনার বিষয়ে বক্তব্য জানতে গ্রেফতার ফয়েজুলের বাবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মাজেদ খানকে একাধিকবার কলা করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে সিংগাইর থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুর রহমান বলেন, ওবায়দুর রহমান স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিতেই পারেন। প্রার্থিতা প্রত্যাহারেরও সময় আছে। সে আমাদের দলেরই লোক। এ ব্যাপারে আমরা বসেই সিদ্ধান্ত নিতে পারতাম। কিন্তু তাকে মারধর করে মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নেওয়াটা মোটেও ঠিক হয়নি।

তবে এ ব্যাপারে সিংগাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মানিকগঞ্জ-২ আসনের এমপি মমতাজ বেগমের বক্তব্য জানতে তার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কলা করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম মোল্লা বলেন, মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বাবার জন্য মনোনয়নপত্র ছিনতাই, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা গ্রেফতার

 যুগান্তর প্রতিবেদন, মানিকগঞ্জ  ও সিংগাইর প্রতিনিধি 
১৫ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
স্বেচ্ছাসেবক লীগের জেলা কমিটির সদস্য ফয়েজুল ইসলাম খানকে
গ্রেফতার স্বেচ্ছাসেবক লীগের জেলা কমিটির সদস্য ফয়েজুল ইসলাম খান

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়নপত্র ছিনতাইয়ের অভিযোগে মানিকগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পরিচালক ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের জেলা কমিটির সদস্য ফয়েজুল ইসলাম খানকে (৪৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

শুক্রবার বিকালে সিংগাইর উপজেলার বলধারায় এ ঘটনা ঘটে। 

গ্রেফতার ফয়েজুল উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বলধারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মাজেদ খানের ছেলে।

সিংগাইর থানা পুলিশ জানায়, সিংগাইর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান আসন্ন বলধারা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন কিনেছেন। শুক্রবার বিকালে তিনি তার মনোনয়নপত্র উপজেলা নির্বাচন অফিসে জমা দেওয়ার সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মাজেদ খানের পুত্র ফয়েজুল হক খান, তার ভাগ্নে মোস্তাফিজুর রহমান মিঠু (৩০) ও চাচাতো ভাই মো. জিয়াউর রহমানসহ (৪০) অজ্ঞাত ৪-৫ জন এলোপাতাড়ি কিলঘুসি মেরে মনোনয়নপত্র ও সঙ্গে থাকা জাতীয় পরিচয়পত্র ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ করার পর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

ওবায়দুর রহমান গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও একই ইউনিয়ন থেকে নৌকা প্রতীকের বিপক্ষে স্বতন্ত্র নির্বাচন করেছিলেন। এবারো নির্বাচন করার ইচ্ছা নিয়ে তিনি মনোনয়নপত্র কিনেছেন। 
 
সূত্র জানায়, পিতার বিপরীতে মনোনয়নপত্র কেনায় গ্রেফতারকৃত ফয়েজুল ইসলাম ফয়েজ ক্ষুব্ধ হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতির মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নিয়ে যান। 

আরেকটি সূত্র জানায়, সকালের দিকে গ্রেফতারকৃত ফয়েজুল ইসলামের বাধার কারণে ওই ইউনিয়নে আরেক প্রার্থী মো. রুহুল আমীন সেলিমও মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারেননি।

ঘটনার বিষয়ে বক্তব্য জানতে গ্রেফতার ফয়েজুলের বাবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মাজেদ খানকে একাধিকবার কলা করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। 

এ বিষয়ে সিংগাইর থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুর রহমান বলেন, ওবায়দুর রহমান স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিতেই পারেন। প্রার্থিতা প্রত্যাহারেরও সময় আছে। সে আমাদের দলেরই লোক। এ ব্যাপারে আমরা বসেই সিদ্ধান্ত নিতে পারতাম। কিন্তু তাকে মারধর করে মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নেওয়াটা মোটেও ঠিক হয়নি। 
   
তবে এ ব্যাপারে সিংগাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মানিকগঞ্জ-২ আসনের এমপি মমতাজ বেগমের বক্তব্য জানতে তার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কলা করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম মোল্লা বলেন, মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন