যুবককে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যার অভিযোগ
jugantor
যুবককে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যার অভিযোগ

  ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি  

১৫ অক্টোবর ২০২১, ২২:৪৪:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

হত্যা

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর এলাকায় বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে এক যুবককে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহত যুবক রিমন মিয়া (২২) কুলিয়ারচর থানার উত্তর সালুয়া গ্রামের ইলিয়াস মিয়ার ছেলে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় ভৈরব রেলওয়ে পুলিশ শহরের রেলস্টেশন রোডসংলগ্ন একটি জঙ্গল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে।

নিহতের পারিবার সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকালে রিমনকে তার দুই বন্ধু বাবুল ও ফাইজু ভৈরবে আসার কথা বলে বাড়ি থেকে ডেকে আনে। শুক্রবার সকাল পর্যন্ত রিমন বাসায় না ফিরলে দুই বন্ধুর কাছে তার খবর জিজ্ঞাসা করা হয়। তারা জানায়, ভৈরবে আসার পর সে কোথাও চলে যায়।

তারপর রিমনের খোঁজে তার বাবা বিকালে দুই বন্ধু বাবুল ও ফাইজুকে নিয়ে ভৈরব আসলে শহরের রেলস্টেশন সংলগ্ন জঙ্গলে তার লাশ দেখতে পান। রেলওয়ে পুলিশকে ঘটনা অবহিত করলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। এ সময় কৌশলে বাবুল ও ফাইজু পালিয়ে যায়।

নিহতের চাচা শহীদ মিয়া বলেন, তাকে দুই বন্ধু বাসা থেকে ডেকে আনল জীবিত। পরে পেলাম লাশ। আমাদের ধারণা তারা দুজনই আমার ভাতিজাকে হত্যা করেছে।

ভৈরব রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি) মো. ফেরদৌস আহমেদ বিশ্বাস বলেন, সন্ধ্যায় শহরের রেলস্টেশন রোডের একটি জঙ্গলে তার লাশ পাওয়া গেছে। তাকে কে বা কারা কখন হত্যা করেছে তা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুবককে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যার অভিযোগ

 ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি 
১৫ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হত্যা
প্রতীকী ছবি

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর এলাকায় বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে এক যুবককে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহত যুবক রিমন মিয়া (২২) কুলিয়ারচর থানার উত্তর সালুয়া গ্রামের ইলিয়াস মিয়ার ছেলে। 

শুক্রবার সন্ধ্যায় ভৈরব রেলওয়ে পুলিশ শহরের রেলস্টেশন রোডসংলগ্ন একটি জঙ্গল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে।

নিহতের পারিবার সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকালে রিমনকে তার দুই বন্ধু বাবুল ও ফাইজু ভৈরবে আসার কথা বলে বাড়ি থেকে ডেকে আনে। শুক্রবার সকাল পর্যন্ত রিমন বাসায় না ফিরলে দুই বন্ধুর কাছে তার খবর জিজ্ঞাসা করা হয়। তারা জানায়, ভৈরবে আসার পর সে কোথাও চলে যায়। 

তারপর রিমনের খোঁজে তার বাবা বিকালে দুই বন্ধু বাবুল ও ফাইজুকে নিয়ে ভৈরব আসলে শহরের রেলস্টেশন সংলগ্ন জঙ্গলে তার লাশ দেখতে পান। রেলওয়ে পুলিশকে ঘটনা অবহিত করলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। এ সময় কৌশলে বাবুল ও ফাইজু পালিয়ে যায়।

নিহতের চাচা শহীদ মিয়া বলেন, তাকে দুই বন্ধু বাসা থেকে ডেকে আনল জীবিত। পরে পেলাম লাশ। আমাদের ধারণা তারা দুজনই আমার ভাতিজাকে হত্যা করেছে। 

ভৈরব রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি) মো. ফেরদৌস আহমেদ বিশ্বাস বলেন, সন্ধ্যায় শহরের রেলস্টেশন রোডের একটি জঙ্গলে তার লাশ পাওয়া গেছে। তাকে কে বা কারা কখন হত্যা করেছে তা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন