নববধূর সঙ্গে দেখা করার পর ট্রেনে ঝাঁপ দিলেন প্রবাসী
jugantor
নববধূর সঙ্গে দেখা করার পর ট্রেনে ঝাঁপ দিলেন প্রবাসী

  বাসাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

১৭ অক্টোবর ২০২১, ১১:২১:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

শরিফুল ইসলাম

টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলায় ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন শরিফুল ইসলাম (২৮) নামে এক সিঙ্গাপুর প্রবাসী।

শনিবার বিকালে উপজেলার সোনালিয়া রেলক্রসিং এলাকায় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ ট্রেনের নিচে তিনি কাটা পড়েন। তবে ঠিক কি কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন সে বিষয়ে কোনো তথ্য জানা যায়নি।

নিহত শরিফুল ইসলাম সখীপুর উপজেলার দেওবাড়ি চাকলাপাড়া এলাকার আলাল উদ্দিনের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, গত আড়াই মাস আগে শরিফুলের সঙ্গে বাসাইল উপজেলার নাইকানী বাড়ি (মতির ভাটা) এলাকার আইয়ুব খানের মেয়ের (১৮) বিয়ে হয়।

বিয়ের আগে শরিফুল দীর্ঘদিন ধরে সিঙ্গাপুর প্রবাসী ছিলেন। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় নববধূর সঙ্গে দেখা করতে তার বাবার বাড়ি বেড়াতে যান শরিফুল ইসলাম। শনিবার সকালে বিশেষ কাজের কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান তিনি।

রেলওয়ে পুলিশের ঘারিন্দা ফাঁড়ির এএসআই নাঈমুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে আমার ঘটনাস্থলে যাই। এ সময় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তিনি পার্শ্ববর্তী মসজিদে নামাজ আদায় করে দীর্ঘ সময় রেললাইনে বসে ছিলেন। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি দেখতে পেয়ে তিনি ট্রেনটির নিচে ঝাঁপ দেন। এ সময় ঘটনাস্থলে তিনি মারা যান। আইনি প্রক্রিয়া শেষে লাশটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

নববধূর সঙ্গে দেখা করার পর ট্রেনে ঝাঁপ দিলেন প্রবাসী

 বাসাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
১৭ অক্টোবর ২০২১, ১১:২১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শরিফুল ইসলাম
শরিফুল ইসলাম। ছবি: যুগান্তর

টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলায় ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন শরিফুল ইসলাম (২৮) নামে এক সিঙ্গাপুর প্রবাসী। 

শনিবার বিকালে উপজেলার সোনালিয়া রেলক্রসিং এলাকায় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ ট্রেনের নিচে তিনি কাটা পড়েন। তবে ঠিক কি কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন সে বিষয়ে কোনো তথ্য জানা যায়নি। 

নিহত শরিফুল ইসলাম সখীপুর উপজেলার দেওবাড়ি চাকলাপাড়া এলাকার আলাল উদ্দিনের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, গত আড়াই মাস আগে শরিফুলের সঙ্গে বাসাইল উপজেলার নাইকানী বাড়ি (মতির ভাটা) এলাকার আইয়ুব খানের মেয়ের (১৮) বিয়ে হয়। 

বিয়ের আগে শরিফুল দীর্ঘদিন ধরে সিঙ্গাপুর প্রবাসী ছিলেন। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় নববধূর সঙ্গে দেখা করতে তার বাবার বাড়ি বেড়াতে যান শরিফুল ইসলাম। শনিবার সকালে বিশেষ কাজের কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান তিনি।

রেলওয়ে পুলিশের ঘারিন্দা ফাঁড়ির এএসআই নাঈমুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে আমার ঘটনাস্থলে যাই। এ সময় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, তিনি পার্শ্ববর্তী মসজিদে নামাজ আদায় করে দীর্ঘ সময় রেললাইনে বসে ছিলেন। ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা ‘বনলতা এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি দেখতে পেয়ে তিনি ট্রেনটির নিচে ঝাঁপ দেন। এ সময় ঘটনাস্থলে তিনি মারা যান। আইনি প্রক্রিয়া শেষে লাশটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর