ববিতে গুচ্ছ পদ্ধতির ‘ক’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত
jugantor
ববিতে গুচ্ছ পদ্ধতির ‘ক’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

  বরিশাল ব্যুরো  

১৭ অক্টোবর ২০২১, ১৫:৪৫:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

গুচ্ছ পদ্ধতিতে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক ( সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত 'ক' ইউনিট বিজ্ঞান অনুষদের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে 'ক' ইউনিটে ৩ হাজার ৪৫৮ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেন।

এবারই প্রথমবারের মতো গুচ্ছ পদ্ধতিতে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা একযোগে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ বছর প্রত্যেক আসনের বিপরীতে ১০ পরীক্ষার্থী রয়েছেন।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. ছাদেকুল আরেফিন বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো একটি গুচ্ছে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। একটি পরীক্ষার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি সুযোগ পাবে। এতে শিক্ষার্থীদের আর্থিক মানসিক কষ্ট লাঘব হবে। আমরা সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে ভর্তি পরীক্ষার সব কার্যক্রম সম্পন্ন করেছি।

সব বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আগামীতে দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় একটি গুচ্ছে পরীক্ষা নিলে শিক্ষার্থীদের কষ্ট লাঘব আরও ত্বরান্বিত হবে।

এদিকে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেওয়ায় শিক্ষার্থী-অবিভাবকরা উচ্ছ্বাস, আশঙ্কা উভয়ই প্রকাশ করেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী বলেন, গুচ্ছ পদ্ধতি আমাদের কষ্ট লাঘব হয়েছে। একটি ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ রয়েছে। কিন্তু কোনো কারণে যদি পরীক্ষা খারাপ হয়ে যায় তা হলে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির স্বপ্ন একবারে ধূলিসাৎ হয়ে যাবে।

গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেওয়ায় আঞ্চলিকতার প্রভাব বাড়বে বলে মনে করছেন বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা। কোস্টাল স্টাডিজ অ্যান্ড ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষার্থী ইলিয়াস মাহমুদ বলেন, গুচ্ছ পদ্ধতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির ক্ষেত্রে আঞ্চলিকতার প্রভাব বাড়বে।

ববিতে গুচ্ছ পদ্ধতির ‘ক’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত

 বরিশাল ব্যুরো 
১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গুচ্ছ পদ্ধতিতে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক ( সম্মান)  প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

রোববার দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত  'ক' ইউনিট বিজ্ঞান অনুষদের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে 'ক' ইউনিটে ৩ হাজার ৪৫৮ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেন। 

এবারই প্রথমবারের মতো  গুচ্ছ পদ্ধতিতে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা একযোগে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ বছর প্রত্যেক আসনের বিপরীতে ১০ পরীক্ষার্থী রয়েছেন। 

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. ছাদেকুল আরেফিন বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো একটি গুচ্ছে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। একটি পরীক্ষার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি সুযোগ পাবে। এতে শিক্ষার্থীদের আর্থিক মানসিক কষ্ট লাঘব হবে। আমরা সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে ভর্তি পরীক্ষার সব কার্যক্রম সম্পন্ন করেছি। 

সব বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি  বলেন, আগামীতে দেশের সব পাবলিক  বিশ্ববিদ্যালয় একটি  গুচ্ছে পরীক্ষা নিলে শিক্ষার্থীদের কষ্ট লাঘব আরও ত্বরান্বিত হবে। 

এদিকে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেওয়ায় শিক্ষার্থী-অবিভাবকরা  উচ্ছ্বাস, আশঙ্কা উভয়ই প্রকাশ করেছে। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী বলেন, গুচ্ছ পদ্ধতি আমাদের কষ্ট লাঘব হয়েছে। একটি ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ রয়েছে। কিন্তু কোনো কারণে যদি পরীক্ষা খারাপ হয়ে যায় তা হলে ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির স্বপ্ন একবারে ধূলিসাৎ হয়ে যাবে। 

গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেওয়ায় আঞ্চলিকতার প্রভাব বাড়বে বলে মনে করছেন বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা। কোস্টাল স্টাডিজ অ্যান্ড ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষার্থী ইলিয়াস মাহমুদ বলেন, গুচ্ছ পদ্ধতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির ক্ষেত্রে আঞ্চলিকতার প্রভাব বাড়বে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন