ফেসবুকে উসকানি দিয়ে পদ হারালেন ছাত্রলীগ নেতা
jugantor
ফেসবুকে উসকানি দিয়ে পদ হারালেন ছাত্রলীগ নেতা

  শরীয়তপুর প্রতিনিধি  

১৭ অক্টোবর ২০২১, ২১:৫৫:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার ঘটনায় ফেসবুকে উসকানিমূলক পোস্ট দেওয়ায় শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা শহিদুল ইসলাম ঢালীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষর করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

শহিদুল ইসলাম ঢালী শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শহিদুল ইসলাম ঢালী তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে সাম্প্রদায়িক উসকানিমূলক কথাবার্তা ও দলীয় শৃঙ্খলাপরিপন্থি কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগ থেকে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান সিকদার সাংবাদিদের বলেন, সম্প্রতি কুমিল্লার ঘটনায় বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এমন অবস্থায় ছাত্রলীগের মতো একটি সংগঠনের একজন নেতার এমন ধরনের ফেসবুক আইডি থেকে পোস্টের ঘটনা আরও উসকে দেয়। ওই পোস্টে তিনি ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের আন্দোলনে নামার আহ্বান জানিয়েছেন। বিষয়টি শরীয়তপুর ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগ নেতাদের নজরে আসে।

তিনি বলেন, ছাত্রলীগ একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনার সংগঠন। সেখানে সাম্প্রদায়িক ভাবধারার কারও অবস্থান নেই। শহিদুল ইসলাম ঢালী ছাত্রলীগকে ব্যবহার করে সবাইকে সংগঠিত করার চেষ্টা করেছেন; যার ফলে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি হতে পারে। এমন ভাবধারার নেতার ছাত্রলীগে থাকার সুযোগ নেই। তাই সংগঠনের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মো. মহসীন মাদবর বলেন, বিষয়টি সংগঠনের নজরে আসার সঙ্গে সঙ্গে পদক্ষেপ নিয়েছে সদর উপজেলা ছাত্রলীগ। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে এমন কাজ ছাত্রলীগ করে না; যারা এটি মানে না, তাদের দলে থাকার কোনো সুযোগ নেই।

শরীয়তপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ছাত্রলীগ একটি প্রগতিশীল সংগঠন। এমন সংগঠনে থেকে সাম্প্রদায়িক উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়া বা সেটা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া অপরাধ। আবেগ দিয়ে তো আর সংগঠন করা যায় না।

তিনি বলেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাস করে বলেই সে (শহিদুল) ছাত্রলীগে ছিল বলে আমি বিশ্বাস করি। তাহলে তার মধ্যে সাম্প্রদায়িক ভাবধারা কেন থাকবে? সারা দেশে যখন আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ধর্মীয় সম্প্রীতি বজায় রাখার জন্য কাজ করছেন, তখন এক নেতার এমন কর্মকাণ্ড আমাদের বিব্রত করে। সংগঠন সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলেই আমি মনে করি।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা ছাত্রলীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম ঢালী সাংবাদিকদের বলেন, ছাত্রলীগের সংগঠন থেকে আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে, আমি জেনেছি এবং এটা সত্য। কোরআন অবমাননা নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছি। এটা যদি আমার অপরাধ হয়ে থাকে আর সেই অপরাধে দল থেকে বহিষ্কার করা হয় তাতে আমার কোনো দুঃখ নেই।

ফেসবুকে উসকানি দিয়ে পদ হারালেন ছাত্রলীগ নেতা

 শরীয়তপুর প্রতিনিধি 
১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৫৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার ঘটনায় ফেসবুকে উসকানিমূলক পোস্ট দেওয়ায় শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা শহিদুল ইসলাম ঢালীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষর করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

শহিদুল ইসলাম ঢালী শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শহিদুল ইসলাম ঢালী তার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি থেকে সাম্প্রদায়িক উসকানিমূলক কথাবার্তা ও দলীয় শৃঙ্খলাপরিপন্থি কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগে শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগ থেকে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান সিকদার সাংবাদিদের বলেন, সম্প্রতি কুমিল্লার ঘটনায় বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এমন অবস্থায় ছাত্রলীগের মতো একটি সংগঠনের একজন নেতার এমন ধরনের ফেসবুক আইডি থেকে পোস্টের ঘটনা আরও উসকে দেয়। ওই পোস্টে তিনি ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের আন্দোলনে নামার আহ্বান জানিয়েছেন। বিষয়টি শরীয়তপুর ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগ নেতাদের নজরে আসে।

তিনি বলেন, ছাত্রলীগ একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনার সংগঠন। সেখানে সাম্প্রদায়িক ভাবধারার কারও অবস্থান নেই। শহিদুল ইসলাম ঢালী ছাত্রলীগকে ব্যবহার করে সবাইকে সংগঠিত করার চেষ্টা করেছেন; যার ফলে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি হতে পারে। এমন ভাবধারার নেতার ছাত্রলীগে থাকার সুযোগ নেই। তাই সংগঠনের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মো. মহসীন মাদবর বলেন, বিষয়টি সংগঠনের নজরে আসার সঙ্গে সঙ্গে পদক্ষেপ নিয়েছে সদর উপজেলা ছাত্রলীগ। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে এমন কাজ ছাত্রলীগ করে না; যারা এটি মানে না, তাদের দলে থাকার কোনো সুযোগ নেই।

শরীয়তপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ছাত্রলীগ একটি প্রগতিশীল সংগঠন। এমন সংগঠনে থেকে সাম্প্রদায়িক উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়া বা সেটা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া অপরাধ। আবেগ দিয়ে তো আর সংগঠন করা যায় না।

তিনি বলেন, অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাস করে বলেই সে (শহিদুল) ছাত্রলীগে ছিল বলে আমি বিশ্বাস করি। তাহলে তার মধ্যে সাম্প্রদায়িক ভাবধারা কেন থাকবে? সারা দেশে যখন আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ধর্মীয় সম্প্রীতি বজায় রাখার জন্য কাজ করছেন, তখন এক নেতার এমন কর্মকাণ্ড আমাদের বিব্রত করে। সংগঠন সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলেই আমি মনে করি।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা ছাত্রলীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম ঢালী সাংবাদিকদের বলেন, ছাত্রলীগের সংগঠন থেকে আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে, আমি জেনেছি এবং এটা সত্য। কোরআন অবমাননা নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছি। এটা যদি আমার অপরাধ হয়ে থাকে আর সেই অপরাধে দল থেকে বহিষ্কার করা হয় তাতে আমার কোনো দুঃখ নেই।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন