গরুর সঙ্গে সিএনজির ধাক্কা, সংঘর্ষে নিহত ১
jugantor
গরুর সঙ্গে সিএনজির ধাক্কা, সংঘর্ষে নিহত ১

  সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি  

১৮ অক্টোবর ২০২১, ০১:০০:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

গরুর সঙ্গে সিএনজি অটোরিকশার ধাক্কা লাগাকে কেন্দ্র করে সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলার জয়কলস গ্রামে দুইপক্ষের সংঘর্ষে লালু মিয়া (৪৫) নামের একজন নিহত হয়েছেন। রোববার বিকালে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় লালু মিয়ার পক্ষের অন্তত ৪ জন আহত হয়েছেন।

নিহত লালু মিয়া উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের জয়কলস গ্রামের ওয়ারিশ আলীর ছেলে।

আহতরা হলেন- সংঘর্ষে নিহত লালু মিয়ার ছেলে শাহিনূর মিয়া (২২), রইছ মিয়ার ছেলে ছালেক আহমদ (২৮), হেলাল মিয়া (৪০) ও তার বাবা আমির আলি (৬০)। আহতদের মধ্যে আমির আলীর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিকাল ৩টায় সিএনজিচালিত অটোরিকশাযোগে যাত্রী নিয়ে যাচ্ছিলেন হেলাল মিয়া। এ সময় অপর গাড়িকে সাইড দিতে গিয়ে ফজলু মিয়ার (১৮) গরুর সঙ্গে হেলাল মিয়ার গাড়ি ধাক্কা খায়। এ ঘটনায় হেলাল মিয়া ও ফজলু মিয়ার মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হলে একপর্যায়ে হেলাল মিয়াকে ফজলু মিয়া মারধর করেন। এ ঘটনার জেরে রোববার বিকালে উভয়পক্ষ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হন।

এতে হেলাল ও লালু মিয়াসহ উভয়পক্ষে অন্তত ১০ জন আহত হন। গুরুতর আহত অবস্থায় লালু মিয়াকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। অপরাপর আহতরাও সিলেট ওসমানীতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ওসি কাজী মোক্তাদির হোসেন বলেন, দুইপক্ষের সংঘর্ষে চিকিৎসাধীন অবস্থায় লালু মিয়া মারা গেছেন। এ ঘটনায় উভয়পক্ষের ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

গরুর সঙ্গে সিএনজির ধাক্কা, সংঘর্ষে নিহত ১

 সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি 
১৮ অক্টোবর ২০২১, ০১:০০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গরুর সঙ্গে সিএনজি অটোরিকশার ধাক্কা লাগাকে কেন্দ্র করে সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ উপজেলার জয়কলস গ্রামে দুইপক্ষের সংঘর্ষে লালু মিয়া (৪৫) নামের একজন নিহত হয়েছেন। রোববার বিকালে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় লালু মিয়ার পক্ষের অন্তত ৪ জন আহত হয়েছেন।

নিহত লালু মিয়া উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের জয়কলস গ্রামের ওয়ারিশ আলীর ছেলে।  

আহতরা হলেন- সংঘর্ষে নিহত লালু মিয়ার ছেলে শাহিনূর মিয়া (২২), রইছ মিয়ার ছেলে ছালেক আহমদ (২৮), হেলাল মিয়া (৪০) ও তার বাবা আমির আলি (৬০)। আহতদের মধ্যে আমির আলীর অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। 

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিকাল ৩টায় সিএনজিচালিত অটোরিকশাযোগে যাত্রী নিয়ে যাচ্ছিলেন হেলাল মিয়া। এ সময় অপর গাড়িকে সাইড দিতে গিয়ে ফজলু মিয়ার (১৮) গরুর সঙ্গে হেলাল মিয়ার গাড়ি ধাক্কা খায়। এ ঘটনায় হেলাল মিয়া ও ফজলু মিয়ার মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হলে একপর্যায়ে হেলাল মিয়াকে ফজলু মিয়া মারধর করেন। এ ঘটনার জেরে রোববার বিকালে উভয়পক্ষ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হন।

এতে হেলাল ও লালু মিয়াসহ উভয়পক্ষে অন্তত ১০ জন আহত হন। গুরুতর আহত অবস্থায় লালু মিয়াকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। অপরাপর আহতরাও সিলেট ওসমানীতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ওসি কাজী মোক্তাদির হোসেন বলেন, দুইপক্ষের সংঘর্ষে চিকিৎসাধীন অবস্থায় লালু মিয়া মারা গেছেন। এ ঘটনায় উভয়পক্ষের ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন