৭৩ বস্তা নকল সারসহ ছেলে আটক, পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে বাবার বিষপান
jugantor
৭৩ বস্তা নকল সারসহ ছেলে আটক, পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে বাবার বিষপান

  চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি  

১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৪:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

৭৩ বস্তা নকল সারসহ ছেলে আটক, পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে বাবার বিষপান

চুয়াডাঙ্গায় নকল সার বিক্রির দায়ে নয়ন ইসলাম নামে এক কীটনাশক ব্যবসায়ীকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ সময় ওই দোকান থেকে বিএডিসির লোগো যুক্ত ৭৩ বস্তা নকল সার জব্দ করা হয়। বাতিল করা হয়েছে নয়ন ট্রেডার্সের লাইসেন্স। এ ঘটনায় আটক থেকে রক্ষা পেতে ব্যবসায়ী নয়নের বাবা বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন।

রোববার ঘটনাটি ঘটেছে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার দত্তাইল গ্রামে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

নিহত রবিউল ইসলাম একই এলাকার বাসিন্দা ও তার আটক ছেলের নাম নয়ন ইসলাম।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ ক্যাম্প পুলিশ ও এলাকাসূত্রে জানা গেছে, দত্তাইল গ্রামের নয়ন ট্রেডার্সে দীর্ঘদিন ধরে নকল সার বিক্রি করা হয়। বিষয়টি নিয়ে এলাকার চাষিদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

রোববার সকালে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ ফোন দেন এক ভুক্তভোগী কৃষক। পরে বিষয়টি দেখার জন্য সরোজগঞ্জ ক্যাম্প পুলিশকে জানানো হয়। ক্যাম্পের এএসআই তাইফুজ্জামান দ্রুত নয়ন ট্রেডার্সে খোঁজখবর নেন।

এএসআই তাইফুজ্জামান বলেন, আমি তাৎক্ষণিকভাবে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে কুতুবপুর ইউনিয়নের দত্তাইল গ্রামে যাই। গ্রামের নয়ন ইসলামের দোকানে অভিযান চালাই। এ সময় তার দোকান এবং পার্শ্ববর্তী বাড়ি থেকে বিএডিসির লোগোযুক্ত ৭৩ বস্তা নকল সার জব্দ করি।

স্থানীয়রা জানান, বাবা-ছেলে দুজনই একসঙ্গে সার ও কীটনাশকের ব্যবসা করতেন। কিন্তু পুলিশ নকল সারসহ ছেলে নয়ন ইসলামকে আটক করলে ব্যবসায়ী বাবা রবিউল ইসলাম দিশাহারা হয়ে পড়েন। নিজেকে আটক থেকে রক্ষা করতে তিনি বিষপান করেন। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পুলিশ রবিউল ইসলামকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।
জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর চুয়াডাঙ্গার সহকারী পরিচালক সজল আহম্মেদ বলেন, সোমবার বিকালে নয়ন ট্রেডার্সে অভিযান চালিয়ে ৭৩ বস্তা নকল সার জব্দ করে জনসম্মুখে ধ্বংস করা হয়। এ সময় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯-এর ৪১ ধারায় ব্যবসায়ী নয়ন ইসলামকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এ সময় তার কীটনাশক দোকানের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। এসব নকল সার কোথা থেকে সরবরাহ হয়েছে সে ব্যাপারেও খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বিএডিসির লোগোযুক্ত ৭৩ বস্তা টিএসপি সার ধ্বংস করা হয়। বিএডিসির লোগোযুক্ত বস্তাও ছিল নকল। নয়ন ইসলামের নামে এর আগেও নিম্নমানের সার বিক্রির অভিযোগ ছিল। নয়নের দোকানের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে।

এদিকে নয়ন ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী নয়ন ইসলামের বাবা রবিউল ইসলামের বিষপানের বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল থেকে সোমবার সন্ধ্যার দিকে তাকে নেওয়া হয় কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে যাওয়ার পথে রাত ৮টার দিকে তিনি মারা যান বলে গ্রামসূত্রে জানা যায়। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

৭৩ বস্তা নকল সারসহ ছেলে আটক, পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে বাবার বিষপান

 চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি 
১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
৭৩ বস্তা নকল সারসহ ছেলে আটক, পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে বাবার বিষপান
ছবি: যুগান্তর

চুয়াডাঙ্গায় নকল সার বিক্রির দায়ে নয়ন ইসলাম নামে এক কীটনাশক ব্যবসায়ীকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ সময় ওই দোকান থেকে বিএডিসির লোগো যুক্ত ৭৩ বস্তা নকল সার জব্দ করা হয়। বাতিল করা হয়েছে নয়ন ট্রেডার্সের লাইসেন্স। এ ঘটনায় আটক থেকে রক্ষা পেতে ব্যবসায়ী নয়নের বাবা বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন।

রোববার ঘটনাটি ঘটেছে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার দত্তাইল গ্রামে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

নিহত রবিউল ইসলাম একই এলাকার বাসিন্দা ও তার আটক ছেলের নাম নয়ন ইসলাম।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ ক্যাম্প পুলিশ ও এলাকাসূত্রে জানা গেছে, দত্তাইল গ্রামের নয়ন ট্রেডার্সে দীর্ঘদিন ধরে নকল সার বিক্রি করা হয়। বিষয়টি নিয়ে এলাকার চাষিদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

রোববার সকালে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ ফোন দেন এক ভুক্তভোগী কৃষক। পরে বিষয়টি দেখার জন্য সরোজগঞ্জ ক্যাম্প পুলিশকে জানানো হয়। ক্যাম্পের এএসআই তাইফুজ্জামান দ্রুত নয়ন ট্রেডার্সে খোঁজখবর নেন।

এএসআই তাইফুজ্জামান বলেন, আমি তাৎক্ষণিকভাবে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে কুতুবপুর ইউনিয়নের দত্তাইল গ্রামে যাই। গ্রামের নয়ন ইসলামের দোকানে অভিযান চালাই। এ সময় তার দোকান এবং পার্শ্ববর্তী বাড়ি থেকে বিএডিসির লোগোযুক্ত ৭৩ বস্তা নকল সার জব্দ করি।

স্থানীয়রা জানান, বাবা-ছেলে দুজনই একসঙ্গে সার ও কীটনাশকের ব্যবসা করতেন। কিন্তু পুলিশ নকল সারসহ ছেলে নয়ন ইসলামকে আটক করলে ব্যবসায়ী বাবা রবিউল ইসলাম দিশাহারা হয়ে পড়েন। নিজেকে আটক থেকে রক্ষা করতে তিনি বিষপান করেন। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পুলিশ রবিউল ইসলামকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।     
জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর চুয়াডাঙ্গার সহকারী পরিচালক সজল আহম্মেদ বলেন, সোমবার বিকালে নয়ন ট্রেডার্সে অভিযান চালিয়ে ৭৩ বস্তা নকল সার জব্দ করে জনসম্মুখে ধ্বংস করা হয়। এ সময় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯-এর ৪১ ধারায় ব্যবসায়ী নয়ন ইসলামকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এ সময় তার কীটনাশক দোকানের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। এসব নকল সার কোথা থেকে সরবরাহ হয়েছে সে ব্যাপারেও খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বিএডিসির লোগোযুক্ত ৭৩ বস্তা টিএসপি সার ধ্বংস করা হয়। বিএডিসির লোগোযুক্ত বস্তাও ছিল নকল। নয়ন ইসলামের নামে এর আগেও নিম্নমানের সার বিক্রির অভিযোগ ছিল। নয়নের দোকানের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে।

এদিকে নয়ন ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী নয়ন ইসলামের বাবা রবিউল ইসলামের বিষপানের বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল থেকে সোমবার সন্ধ্যার দিকে তাকে নেওয়া হয় কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে যাওয়ার পথে রাত ৮টার দিকে তিনি মারা যান বলে গ্রামসূত্রে জানা যায়। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন