প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ, প্রেমিক আটক
jugantor
প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ, প্রেমিক আটক

  পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি  

২৩ অক্টোবর ২০২১, ২২:৪৮:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

খুলনার পাইকগাছায় প্রেমের ফাঁদে ফেলে সপ্তম শ্রেণিপড়ুয়া প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে প্রেমিককে পুলিশ আটক করেছে। এ ঘটনায় থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, সপ্তম শ্রেণিপড়ুয়া ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়ে তালা থানার শিবপুর গ্রামের আব্দুল ওহাব শেখের ছেলে সৈকত শেখ (১৯)। সৈকত তালা মুক্তিযোদ্ধা কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র।

উপ-পুলিশ পরিদর্শক মো. আইয়ুব হোসেন জানান, শুক্রবার দিবাগত রাতে মেয়ের পিতামাতা বাড়িতে না থাকার সুযোগে রাত সাড়ে ১২টার দিকে সৈকত তাদের বাড়িতে আসে। মেয়েটিকে বারবার কুপ্রস্তাব দেয়। তাতে সে রাজি না হওয়ায় বিয়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করে। তাতেও রাজি না হওয়ায় অবশেষে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

এ সময় সে চিৎকারে দিলে পাশ থেকে তার চাচা ও প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে ছেলেটিকে আটকে রেখে পুলিশে খবর দেন। পুলিশ এসে তাকে আটক করে। এ ঘটনায় শিশুটির চাচা বাদী হয়ে পাইকগাছা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন।

ওসি জিয়াউর রহমান জিয়া বলেন, মেয়েটির পিতা একজন ক্যান্সার রোগী। সে যশোর দড়াটানার একটি ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন থাকার সুযোগে ছেলেটি তার বাড়িতে এসে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ, প্রেমিক আটক

 পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি 
২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

খুলনার পাইকগাছায় প্রেমের ফাঁদে ফেলে সপ্তম শ্রেণিপড়ুয়া প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে প্রেমিককে পুলিশ আটক করেছে। এ ঘটনায় থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে। 

মামলার বিবরণে জানা যায়, সপ্তম শ্রেণিপড়ুয়া ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়ে তালা থানার শিবপুর গ্রামের আব্দুল ওহাব শেখের  ছেলে সৈকত শেখ (১৯)। সৈকত তালা মুক্তিযোদ্ধা কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র।

উপ-পুলিশ পরিদর্শক মো. আইয়ুব হোসেন জানান, শুক্রবার দিবাগত রাতে মেয়ের পিতামাতা বাড়িতে না থাকার সুযোগে রাত সাড়ে ১২টার দিকে সৈকত তাদের বাড়িতে আসে। মেয়েটিকে বারবার কুপ্রস্তাব দেয়। তাতে সে রাজি না হওয়ায় বিয়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করে। তাতেও রাজি না হওয়ায় অবশেষে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। 

এ সময় সে চিৎকারে দিলে পাশ থেকে তার চাচা ও প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে ছেলেটিকে আটকে রেখে পুলিশে খবর দেন। পুলিশ এসে তাকে আটক করে। এ ঘটনায় শিশুটির চাচা বাদী হয়ে পাইকগাছা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছেন। 

ওসি জিয়াউর রহমান জিয়া বলেন, মেয়েটির পিতা একজন ক্যান্সার রোগী। সে যশোর দড়াটানার একটি ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন থাকার সুযোগে ছেলেটি তার বাড়িতে এসে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন