কাফনের কাপড় পাঠিয়ে হত্যার হুমকি
jugantor
কাফনের কাপড় পাঠিয়ে হত্যার হুমকি

  নালিতাবাড়ী (শেরপুর) প্রতিনিধি  

২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৩০:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে কাফনের কাপড় পাঠিয়ে হত্যার দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। রোববার রাতে নয়াবিল ইউনিয়নের খলিসাকুড়া গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে হুমকিদাতাকে আটক করেছে পুলিশ।

আটক কৃত যুবকের নাম সুমন আহমেদ (৩২)। সে নয়াবিল ইউনিয়ন পরিষদের ৭ নং ওয়ার্ডের মেম্বার সুরুজ্জামানের ছেলে।

পুলিশ জানায়, নয়াবিল ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল উদ্যোক্তা মুকুল হোসেনের বসত ঘরের দরজার সামনে শনিবার রাতে হাতে লেখা হত্যার চিরকুটসহ কাফনের কাপড়, গোলাপজল, আগরবাতি ও একটি জবাই করা মুরগি পাওয়া যায়। সঙ্গে সঙ্গেই বিষয়টি জানিয়ে থানায় সে সাধারণ ডায়েরি করলে পুলিশ অভিযানে নামে।

প্রথমে পুলিশ যে দোকান থেকে কাফনের কাপড়টি বিক্রি হয়, সে দোকান খুঁজে বের করে। পরে সেই দোকানের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে অভিযুক্তকে শনাক্ত করে এবং রোববার রাতে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

আটক কৃত সুমন, পুলিশের কাছে অকপটে সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, উদ্যোক্তা মুকুল তার বাবার সব কাজে অসহযোগিতা করে। এই ক্ষোভ থেকেই সে এমন কাণ্ড ঘটিয়েছে।

ভুক্তভোগী মুকুল বলেন, এরকম ঠুনকো কোনো ঘটনায় এভাবে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার কথা নয়। এর পেছনে আরও বড় কোনো ঘটনা আছে। তিনি তার জীবনের নিরাপত্তার দাবি জানিয়ে ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চান।

নালিতাবাড়ী থানার ওসি বছির আহমেদ বাদল জানান, অভিযোগ পেয়েই আমরা মাঠে নামি এবং অভিযুক্তকে শনাক্ত করে আটক করি। প্রকৃত রহস্য বের করার জন্য আমরা কাজ করছি।

কাফনের কাপড় পাঠিয়ে হত্যার হুমকি

 নালিতাবাড়ী (শেরপুর) প্রতিনিধি 
২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে কাফনের কাপড় পাঠিয়ে হত্যার দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।  রোববার রাতে নয়াবিল ইউনিয়নের খলিসাকুড়া গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে হুমকিদাতাকে আটক করেছে পুলিশ।

আটক কৃত যুবকের নাম সুমন আহমেদ (৩২)। সে নয়াবিল ইউনিয়ন পরিষদের ৭ নং ওয়ার্ডের মেম্বার সুরুজ্জামানের ছেলে।

পুলিশ জানায়, নয়াবিল ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল উদ্যোক্তা মুকুল হোসেনের বসত ঘরের দরজার সামনে শনিবার রাতে হাতে লেখা হত্যার চিরকুটসহ কাফনের কাপড়, গোলাপজল, আগরবাতি ও একটি জবাই করা মুরগি পাওয়া যায়। সঙ্গে সঙ্গেই বিষয়টি জানিয়ে থানায় সে সাধারণ ডায়েরি করলে পুলিশ অভিযানে নামে।

প্রথমে পুলিশ যে দোকান থেকে কাফনের কাপড়টি বিক্রি হয়, সে দোকান খুঁজে বের করে। পরে সেই দোকানের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে অভিযুক্তকে শনাক্ত করে এবং রোববার রাতে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

আটক কৃত সুমন, পুলিশের কাছে অকপটে সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, উদ্যোক্তা মুকুল তার বাবার সব কাজে অসহযোগিতা করে। এই ক্ষোভ থেকেই সে এমন কাণ্ড ঘটিয়েছে।

ভুক্তভোগী মুকুল বলেন, এরকম ঠুনকো কোনো ঘটনায় এভাবে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার কথা নয়। এর পেছনে আরও বড় কোনো ঘটনা আছে। তিনি তার জীবনের নিরাপত্তার দাবি জানিয়ে ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চান।

নালিতাবাড়ী থানার ওসি বছির আহমেদ বাদল জানান, অভিযোগ পেয়েই আমরা মাঠে নামি এবং অভিযুক্তকে শনাক্ত করে আটক করি। প্রকৃত রহস্য বের করার জন্য আমরা কাজ করছি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন