জামিন পেলেন ছাত্রদের চুল কেটে দেওয়া সেই শিক্ষক
jugantor
জামিন পেলেন ছাত্রদের চুল কেটে দেওয়া সেই শিক্ষক

  রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি  

২৫ অক্টোবর ২০২১, ২২:৩৭:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে দশম শ্রেণির ৬ ছাত্রের চুল কেটে দেওয়া সেই মাদরাসা শিক্ষক মঞ্জুরুল কবির ১৪ দিন পর জামিন পেলেন। সোমবার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ মো. রহিবুল ইসলাম ওই শিক্ষকের জামিন মঞ্জুর করেন।

শিক্ষক মঞ্জুরুল রায়পুর উপজেলার হামছাদী কাজিরদিঘীর পাড় আলিম মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক ও বামনী ইউনিয়ন জামায়াতের আমির।

মঞ্জরুলের আইনজীবী কামাল উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মামলার বাদী শাহেদা বেগম আদালতে উপস্থিত ছিলেন। বাদীর আপত্তি না থাকায় আদালতের বিচারক শিক্ষকের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেছেন।

আদালত সূত্র জানায়, গত ১০ অক্টোবর শিক্ষক মঞ্জুরুলকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রায়পুর আদালতে উপস্থিত করে জামিন আবেদন করা হলে তা নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ১৪ দিন পর সোমবার ফের আবেদন করা হলে এতে বাদীর আপত্তি না থাকায় আদালত শিক্ষকের জামিন মঞ্জুর করেন।

জানা যায়, বামনী ইউপির হামছাদী কাজিরদিঘীর পাড় আলিম মাদরাসার দশম শ্রেণির (দাখিল) ছয় ছাত্রকে শ্রেণিকক্ষের সামনের বারান্দায় দাঁড় করিয়ে একটি কাঁচি দিয়ে এলোমেলোভাবে মাথার সামনের অংশের চুল কেটে দেন শিক্ষক মঞ্জুরুল আলম। এ নিয়ে গত ৮ অক্টোবর যুগান্তর অনলাইন ও প্রিন্ট ভার্সনে সংবাদ প্রচারিত হয়। পরে ওই রাতেই শিক্ষক মঞ্জুরুলকে কাজিরদিঘীর পাড় এলাকার নিজ বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ।

সেই রাতেই মাদ্রাসার ক্ষতিগ্রস্ত ছাত্র মো. শাহাদাত হোসেনের মা শাহেদা বেগম বাদী হয়ে শিশু দমন আইনে শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে ৯ অক্টোবর বিকালে লক্ষ্মীপুর আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

জামিন পেলেন ছাত্রদের চুল কেটে দেওয়া সেই শিক্ষক

 রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি 
২৫ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে দশম শ্রেণির ৬ ছাত্রের চুল কেটে দেওয়া সেই মাদরাসা শিক্ষক মঞ্জুরুল কবির ১৪ দিন পর জামিন পেলেন। সোমবার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ মো. রহিবুল ইসলাম ওই শিক্ষকের জামিন মঞ্জুর করেন। 

শিক্ষক মঞ্জুরুল রায়পুর উপজেলার হামছাদী কাজিরদিঘীর পাড় আলিম মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক ও বামনী ইউনিয়ন জামায়াতের আমির।

মঞ্জরুলের আইনজীবী কামাল উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মামলার বাদী শাহেদা বেগম আদালতে উপস্থিত ছিলেন। বাদীর আপত্তি না থাকায় আদালতের বিচারক শিক্ষকের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেছেন।

আদালত সূত্র জানায়, গত ১০ অক্টোবর শিক্ষক মঞ্জুরুলকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রায়পুর আদালতে উপস্থিত করে জামিন আবেদন করা হলে তা নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ১৪ দিন পর সোমবার ফের আবেদন করা হলে এতে বাদীর আপত্তি না থাকায় আদালত শিক্ষকের জামিন মঞ্জুর করেন।

জানা যায়, বামনী ইউপির হামছাদী কাজিরদিঘীর পাড় আলিম মাদরাসার দশম শ্রেণির (দাখিল) ছয় ছাত্রকে শ্রেণিকক্ষের সামনের বারান্দায় দাঁড় করিয়ে একটি কাঁচি দিয়ে এলোমেলোভাবে মাথার সামনের অংশের চুল কেটে দেন শিক্ষক মঞ্জুরুল আলম। এ নিয়ে গত ৮ অক্টোবর যুগান্তর অনলাইন ও প্রিন্ট ভার্সনে সংবাদ প্রচারিত হয়। পরে ওই রাতেই শিক্ষক মঞ্জুরুলকে কাজিরদিঘীর পাড় এলাকার নিজ বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ।

সেই রাতেই মাদ্রাসার ক্ষতিগ্রস্ত ছাত্র মো. শাহাদাত হোসেনের মা শাহেদা বেগম বাদী হয়ে শিশু দমন আইনে শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে ৯ অক্টোবর বিকালে লক্ষ্মীপুর আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন