পুলিশে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, আটক ৩
jugantor
পুলিশে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, আটক ৩

  ময়মনসিংহ ব্যুরো  

২৬ অক্টোবর ২০২১, ২০:৫৮:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহে পুলিশের ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

এরা হলো- জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার মো. ছামিউল আলম (৬৬), ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার মো. জালাল উদ্দিন (৭৫) ও ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার মো. মারুফ মিয়া (১৯)।

মঙ্গলবার দুপুরে ডিবি কার্যালয়ে প্রেস বিফ্রিংয়ে এ কথা জানান জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম।

তিনি জানান, ছামিউল আলম নিজেকে সরকারের অতিরিক্ত সচিব বলে পরিচয় দিয়ে গত ২৫ অক্টোবর পুলিশ সুপারকে তার পছন্দের ৩ জন প্রার্থীকে পুলিশ ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে চাকরি দেওয়ার জন্য বলে। ছামিউলের কথোপকথন ও বেআইনিভাবে টিআরসি নিয়োগের জন্য অনুরোধের বিষয়টি পুলিশ সুপারের সন্দেহ হয়। পরে পুলিশ সুপারের নির্দেশে ছামিউলকে ডিবি পুলিশ আটক করে।

ছামিউল এক সময় পুলিশ বিভাগে অনিয়মিত খুচরা মোটর পার্টস সরবরাহকারী ঠিকাদার হিসেবে কাজ করতেন।

এদিকে কনস্টেবল পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হওয়ার পর অনলাইনে আবেদনকারীদের চাকরি পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে প্রতারক জালাল উদ্দিন একই গ্রামের ৫ জন প্রার্থী সংগ্রহ করে। এ সময় প্রত্যেক প্রার্থীর কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা করে বুকিং মানি নেয়। খবর পেয়ে ডিবি পুলিশ ফুলপুরের রূপসী ইউনিয়নের কুড়িপাড়া গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে প্রতারক জালাল উদ্দিনকে আটক করে।

প্রতারক চক্রের অন্যজন মারুফ মিয়া কনস্টেবল পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হওয়ার পর অনলাইনে আবেদন করলে সে স্ক্রিনিংয়ে বাতিল হয়। সে চাকরি প্রার্থী হিসেবে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কম্পিউটারের সাহায্যে ভুয়া প্রবেশপত্র তৈরি করে। গত ২৫ অক্টোবর বিকালে পুলিশ লাইনসে নিয়োগ বোর্ডের সামনে ভুয়া প্রবেশপত্র নিয়ে হাজির হলে নিয়োগকারী বোর্ড মারুফ মিয়ায় প্রবেশপত্রটি ভুয়া বলে নিশ্চিত হয়।

পরে সাময়িক জিজ্ঞাসাবাদে মারুফ মিয়া মুক্তাগাছার একটি কম্পিউটারের দোকানে ভুয়া প্রবেশপত্রটি তৈরির ঘটনার কথা স্বীকার করে। অভিযানকালে ভুয়া প্রবেশপত্র তৈরির কাজে ব্যবহৃত কম্পিউটারটি জব্দ করা হয়। ভুয়া প্রবেশপত্র তৈরি কাজে সহায়তাকারীদের আটক করার জন্য অভিযান অব্যাহত আছে বলেও জানান ডিবির ওসি।

এদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

পুলিশে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, আটক ৩

 ময়মনসিংহ ব্যুরো 
২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৫৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহে পুলিশের ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

এরা হলো- জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার মো. ছামিউল আলম (৬৬), ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার মো. জালাল উদ্দিন (৭৫) ও ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার মো. মারুফ মিয়া (১৯)।

মঙ্গলবার দুপুরে ডিবি কার্যালয়ে প্রেস বিফ্রিংয়ে এ কথা জানান জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম।

তিনি জানান, ছামিউল আলম নিজেকে সরকারের অতিরিক্ত সচিব বলে পরিচয় দিয়ে গত ২৫ অক্টোবর পুলিশ সুপারকে তার পছন্দের ৩ জন প্রার্থীকে পুলিশ ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল (টিআরসি) পদে চাকরি দেওয়ার জন্য বলে। ছামিউলের কথোপকথন ও বেআইনিভাবে টিআরসি নিয়োগের জন্য অনুরোধের বিষয়টি পুলিশ সুপারের সন্দেহ হয়। পরে পুলিশ সুপারের নির্দেশে ছামিউলকে ডিবি পুলিশ আটক করে।

ছামিউল এক সময় পুলিশ বিভাগে অনিয়মিত খুচরা মোটর পার্টস সরবরাহকারী ঠিকাদার হিসেবে কাজ করতেন।

এদিকে কনস্টেবল পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হওয়ার পর অনলাইনে আবেদনকারীদের চাকরি পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে প্রতারক জালাল উদ্দিন একই গ্রামের ৫ জন প্রার্থী সংগ্রহ করে। এ সময় প্রত্যেক প্রার্থীর কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা করে বুকিং মানি নেয়। খবর পেয়ে ডিবি পুলিশ ফুলপুরের রূপসী ইউনিয়নের কুড়িপাড়া গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে প্রতারক জালাল উদ্দিনকে আটক করে।

প্রতারক চক্রের অন্যজন মারুফ মিয়া কনস্টেবল পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হওয়ার পর অনলাইনে আবেদন করলে সে স্ক্রিনিংয়ে বাতিল হয়। সে চাকরি প্রার্থী হিসেবে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কম্পিউটারের সাহায্যে ভুয়া প্রবেশপত্র তৈরি করে। গত ২৫ অক্টোবর বিকালে পুলিশ লাইনসে নিয়োগ বোর্ডের সামনে ভুয়া প্রবেশপত্র নিয়ে হাজির হলে নিয়োগকারী বোর্ড মারুফ মিয়ায় প্রবেশপত্রটি ভুয়া বলে নিশ্চিত হয়।

পরে সাময়িক জিজ্ঞাসাবাদে মারুফ মিয়া মুক্তাগাছার একটি কম্পিউটারের দোকানে ভুয়া প্রবেশপত্রটি তৈরির ঘটনার কথা স্বীকার করে। অভিযানকালে ভুয়া প্রবেশপত্র তৈরির কাজে ব্যবহৃত কম্পিউটারটি জব্দ করা হয়। ভুয়া প্রবেশপত্র তৈরি কাজে সহায়তাকারীদের আটক করার জন্য অভিযান অব্যাহত আছে বলেও জানান ডিবির ওসি।

এদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন