আ.লীগের প্রার্থী পরিবর্তন না করলে গণপদত্যাগ
jugantor
আ.লীগের প্রার্থী পরিবর্তন না করলে গণপদত্যাগ

  লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি  

২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৩০:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহনাজ আক্তারকে পরিবর্তনের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) দুপুরে ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের ব্যানারে এ আয়োজন করা হয়। ২ নভেম্বরের মধ্যে প্রার্থী পরিবর্তন করে আওয়ামী লীগের কোনো নেতাকর্মীকে প্রার্থী না দেওয়া হলে গণপদত্যাগ করার ঘোষণা দেওয়া হয়।

এ সময় বক্তব্য রাখেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আমির হোসেন খান, ইছাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ খান, সহ-সভাপতি অলি উল্যাহ, সাধারণ সম্পাদক এসআই ফারুক। এর মধ্যে আমির হোসেন, নুর মোহাম্মদ ও ফারুক দলীয় মনোনয়ন প্রার্থী ছিলেন।

লিখিত বক্তব্যে এসআই ফারুক বলেন, আওয়ামী লীগ করে অনেক কিছু হারিয়েছি, জেল খেটেছি। গার্মেন্টসে কাজ করলে এখন জিএম হতাম। কিন্তু রাজনীতি আমাদের শূন্য করে দিয়েছে। পরিবারের কাছেও এখন লজ্জা পেতে হয়। চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন সুপারিশের জন্য আমার কোনো স্বাক্ষর নেওয়া হয়নি। প্রার্থী পরিবর্তন না করলে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা গণপদত্যাগ করবেন।

নুর মোহাম্মদ খান বলেন, মনোনয়ন সুপারিশের জন্য ৩ জনের নামের তালিকায় আমি স্বাক্ষর দিয়েছি। তখন শাহনাজের নাম ছিল না। কখনো তিনি আওয়ামী লীগ করেননি। তাকে প্রার্থী ঘোষণা করে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন করা হয়েছে।

আমির হোসেন খান বলেন, রাজনৈতিক মামলায় আমি কারাগারে ছিলাম। তখন আমার বাবা মারা যান। আমি বাবাকে কবর দিতেও আসতে পারিনি। এখন দল থেকে অবমূল্যায়ন আমরা মেনে নিতে পারি না।

প্রসঙ্গত, ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শহিদ উল্যাহর মৃত্যুর পর উপনির্বাচনে তার স্ত্রী শাহনাজ আক্তারকে দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়। আওয়ামী লীগের কোনো পদ নেই তার। ২৫ অক্টোবর নৌকার প্রার্থী হিসেবে শাহনাজ আক্তারের নাম ঘোষণা করে মনোনয়ন বোর্ড। আগামী ২৮ নভেম্বর এ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

আ.লীগের প্রার্থী পরিবর্তন না করলে গণপদত্যাগ

 লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি 
২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহনাজ আক্তারকে পরিবর্তনের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে।

বুধবার (২৭ অক্টোবর) দুপুরে ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের ব্যানারে এ আয়োজন করা হয়। ২ নভেম্বরের মধ্যে প্রার্থী পরিবর্তন করে আওয়ামী লীগের কোনো নেতাকর্মীকে প্রার্থী না দেওয়া হলে গণপদত্যাগ করার ঘোষণা দেওয়া হয়। 

এ সময় বক্তব্য রাখেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আমির হোসেন খান, ইছাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ খান, সহ-সভাপতি অলি উল্যাহ, সাধারণ সম্পাদক এসআই ফারুক। এর মধ্যে আমির হোসেন, নুর মোহাম্মদ ও ফারুক দলীয় মনোনয়ন প্রার্থী ছিলেন। 

লিখিত বক্তব্যে এসআই ফারুক বলেন, আওয়ামী লীগ করে অনেক কিছু হারিয়েছি, জেল খেটেছি। গার্মেন্টসে কাজ করলে এখন জিএম হতাম। কিন্তু রাজনীতি আমাদের শূন্য করে দিয়েছে। পরিবারের কাছেও এখন লজ্জা পেতে হয়। চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন সুপারিশের জন্য আমার কোনো স্বাক্ষর নেওয়া হয়নি। প্রার্থী পরিবর্তন না করলে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা গণপদত্যাগ করবেন। 

নুর মোহাম্মদ খান বলেন, মনোনয়ন সুপারিশের জন্য ৩ জনের নামের তালিকায় আমি স্বাক্ষর দিয়েছি। তখন শাহনাজের নাম ছিল না। কখনো তিনি আওয়ামী লীগ করেননি। তাকে প্রার্থী ঘোষণা করে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন করা হয়েছে।

আমির হোসেন খান বলেন, রাজনৈতিক মামলায় আমি কারাগারে ছিলাম। তখন আমার বাবা মারা যান। আমি বাবাকে কবর দিতেও আসতে পারিনি। এখন দল থেকে অবমূল্যায়ন আমরা মেনে নিতে পারি না।

প্রসঙ্গত, ইছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শহিদ উল্যাহর মৃত্যুর পর উপনির্বাচনে তার স্ত্রী শাহনাজ আক্তারকে দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়। আওয়ামী লীগের কোনো পদ নেই তার। ২৫ অক্টোবর নৌকার প্রার্থী হিসেবে শাহনাজ আক্তারের নাম ঘোষণা করে মনোনয়ন বোর্ড। আগামী ২৮ নভেম্বর এ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন