ভোলায় ২ প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক
jugantor
ভোলায় ২ প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

  দৌলতখান (ভোলা) প্রতিনিধি  

২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৫:০৬:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলার দৌলতখানের চরখলিফায় দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয়পক্ষের অর্ধশতাধিক আহত হয়েছেন।

বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

চরখলিফা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী রাহাদ তালুকদার বলেন, সন্ধ্যার পর সমশের উদ্দিন হাওলাদারের বাড়িতে বৈঠক চলছিল। সেখানে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক গোলাম মোর্শেদ কিরন তালুকদারসহ স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ইয়ার হোসেনের নেতৃত্বে শতাধিক যুবক মোটরসাইকেল নিয়ে এসে আমার লোকজনের ওপর হামলা চালায়। এতে ১০-১২ জন আহত হয়। এছাড়া মাইনুদ্দিন নামের একজনের ওষুধের দোকানে ভাঙচুর চালায় তারা।

অপর প্রার্থী ইয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, আমি পাশের এক বাড়িতে বৈঠকের প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। এ সময় তার সমর্থকরা মোটরসাইকেল চালিয়ে সভাস্থলে আসছিলেন। পথে আমার রাহাদ তালুকদারের লোকজন আমার সমর্থকদের ওপর হামলা চালিয়ে ৩০-৪০ জনকে আহত করে। এ সময় হামলাকারীরা ১০টি মোটরসাইকেল, ৮টি মোবাইল ফোন ও আমার চাচাত ভাই মাইনুদ্দিনের ওষুধের দোকান ভাঙচুর করে।

এ ব্যাপারে দৌলতখান থানার ওসি বজলার রহমান বলেন, এ ঘটনায় কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভোলায় ২ প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

 দৌলতখান (ভোলা) প্রতিনিধি 
২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৫:০৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলার দৌলতখানের চরখলিফায় দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে উভয়পক্ষের অর্ধশতাধিক আহত হয়েছেন। 

বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

চরখলিফা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী রাহাদ তালুকদার বলেন, সন্ধ্যার পর সমশের উদ্দিন হাওলাদারের বাড়িতে বৈঠক চলছিল। সেখানে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক গোলাম মোর্শেদ কিরন তালুকদারসহ স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ইয়ার হোসেনের নেতৃত্বে শতাধিক যুবক মোটরসাইকেল নিয়ে এসে আমার লোকজনের ওপর হামলা চালায়। এতে ১০-১২ জন আহত হয়। এছাড়া মাইনুদ্দিন নামের একজনের ওষুধের দোকানে ভাঙচুর চালায় তারা। 

অপর প্রার্থী ইয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, আমি পাশের এক বাড়িতে বৈঠকের প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম। এ সময় তার সমর্থকরা মোটরসাইকেল চালিয়ে সভাস্থলে আসছিলেন। পথে আমার রাহাদ তালুকদারের লোকজন আমার সমর্থকদের ওপর হামলা চালিয়ে ৩০-৪০ জনকে আহত করে। এ সময় হামলাকারীরা ১০টি মোটরসাইকেল, ৮টি মোবাইল ফোন ও আমার চাচাত ভাই মাইনুদ্দিনের ওষুধের দোকান ভাঙচুর করে। 

এ ব্যাপারে দৌলতখান থানার ওসি বজলার রহমান বলেন, এ ঘটনায় কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন