মা হলেন ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী তরুণী
jugantor
মা হলেন ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী তরুণী

  রামগতি (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি  

২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৫:০৩:১৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণ

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে ধর্ষণের শিকার বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী তরুণী একটি ফুটফুটে ছেলে সন্তানের মা হয়েছেন।

গত শুক্রবার সকালে উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের নিজ বাড়িতে তিনি একটি ছেলেসন্তান জন্ম দেন।

তবে সন্তানের বাবা হতে রাজি না অভিযুক্ত ওমান প্রবাসী মামুন। তিনি ধর্ষণের ঘটনাটি অস্বীকার করেছেন।

গত ২৪ আগস্ট রাতে ধর্ষণের ঘটনায় তরুণীর মা বাদী হয়ে কমলনগর থানায় মামলা করেছেন।

জানা যায়, ধর্ষণের শিকার ওই তরুণী একই ইউনিয়নের বাসিন্দা। তিনি গৃহপরিচারিকার কাজ করতেন।

গত আগস্ট মাসে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বার সময় বিষয়টি জানাজানি হয়। তখন এটি দামাচাপা দিতে তরুণীর অবৈধ গর্ভপাত করানোর চেষ্টা করা হয়। এ ঘটনার ন্যায়বিচার ও প্রকৃত অপরাধীর শাস্তি দাবি করে আসছে ভুক্তভোগীর পরিবার।

গত ২৪ আগস্ট রাতে ধর্ষণের ঘটনায় তরুণীর মা বাদী হয়ে কমলনগর থানায় মামলা করেছেন। মামলার আসামি চরফলকন ইউনিয়নের মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো. মামুন হোসেন। অভিযুক্ত মামুন বর্তমানে ওমান রয়েছেন। তিনি দেশে রঙমিস্ত্রির কাজ করতেন।

অভিযুক্ত মামুন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সে ধর্ষণ করেনি। তার বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ এনে মামলা করা হয়েছে। তিনি দেশে এসে আইনগত সহায়তা নেবেন।

এদিকে ধষর্ণের ঘটনায় অন্য কেউ জড়িত আছে কিনা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

জানা গেছে, গত ফেব্রুয়ারি মাসে উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নে একটি বাসায় ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ক্ষতিগ্রস্ত তরুণী ওই বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করতেন।

ওই তরুণীর অভিযোগ, ওই বাসায় রঙের কাজ করতে আসে মামুন। সে তাকে ঘরে একা পেয়ে ধর্ষণ করে। এতে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়।

বাড়ির মালিক বলেন, প্রায় দুই বছর ধরে মেয়েটি আমার বাড়িতে কাজ করে। তার শারীরিক অসুস্থতা দেখে হাসপাতালে নিলে জানতে পারি মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা। এখন শুনছি তার সন্তান হয়েছে।

ভুক্তভোগী তরুণীর নানি ও মামা বলেন, এ ঘটনায় যাতে কেউ ষড়যন্ত্র করতে না পারে সে ব্যাপারে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। আমরা ন্যায়বিচার ও প্রকৃত অপরাধীর শাস্তি চাই।

কমলনগর থানার ওসি মোহাম্মদ মোসলেহ উদ্দিন জানান, ভুক্তভোগীর বক্তব্যের আলোকে একজনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। এখন ভুক্তভোগী তরুণী যদি অন্য কাউকে দোষারোপ করে এ বিষয়ে আদালতের নির্দেশ পেলে আমরা মামলায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারব।

মা হলেন ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী তরুণী

 রামগতি (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি 
২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৩:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ধর্ষণ
ফাইল ছবি

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে ধর্ষণের শিকার বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী তরুণী একটি ফুটফুটে ছেলে সন্তানের মা হয়েছেন। 

গত শুক্রবার সকালে উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের নিজ বাড়িতে তিনি একটি ছেলেসন্তান জন্ম দেন। 

তবে সন্তানের বাবা হতে রাজি না অভিযুক্ত ওমান প্রবাসী মামুন। তিনি ধর্ষণের ঘটনাটি অস্বীকার করেছেন।

গত ২৪ আগস্ট রাতে ধর্ষণের ঘটনায় তরুণীর মা বাদী হয়ে কমলনগর থানায় মামলা করেছেন। 

জানা যায়, ধর্ষণের শিকার ওই তরুণী একই ইউনিয়নের বাসিন্দা। তিনি গৃহপরিচারিকার কাজ করতেন।

গত আগস্ট মাসে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বার সময় বিষয়টি জানাজানি হয়। তখন এটি দামাচাপা দিতে তরুণীর অবৈধ গর্ভপাত করানোর চেষ্টা করা হয়। এ ঘটনার ন্যায়বিচার ও প্রকৃত অপরাধীর শাস্তি দাবি করে আসছে ভুক্তভোগীর পরিবার।

গত ২৪ আগস্ট রাতে ধর্ষণের ঘটনায় তরুণীর মা বাদী হয়ে কমলনগর থানায় মামলা করেছেন। মামলার আসামি চরফলকন ইউনিয়নের মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো. মামুন হোসেন। অভিযুক্ত মামুন বর্তমানে ওমান রয়েছেন। তিনি দেশে রঙমিস্ত্রির কাজ করতেন। 

অভিযুক্ত মামুন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সে ধর্ষণ করেনি। তার বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ এনে মামলা করা হয়েছে। তিনি দেশে এসে আইনগত সহায়তা নেবেন।

এদিকে ধষর্ণের ঘটনায় অন্য কেউ জড়িত আছে কিনা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

জানা গেছে, গত ফেব্রুয়ারি মাসে উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নে একটি বাসায় ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ক্ষতিগ্রস্ত তরুণী ওই বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করতেন। 

ওই তরুণীর অভিযোগ, ওই বাসায় রঙের কাজ করতে আসে মামুন। সে তাকে ঘরে একা পেয়ে ধর্ষণ করে। এতে সে অন্তঃসত্ত্বা হয়।

বাড়ির মালিক বলেন, প্রায় দুই বছর ধরে মেয়েটি আমার বাড়িতে কাজ করে। তার শারীরিক অসুস্থতা দেখে হাসপাতালে নিলে জানতে পারি মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা। এখন শুনছি তার সন্তান হয়েছে।

ভুক্তভোগী তরুণীর নানি ও মামা বলেন, এ ঘটনায় যাতে কেউ ষড়যন্ত্র করতে না পারে সে ব্যাপারে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। আমরা ন্যায়বিচার ও প্রকৃত অপরাধীর শাস্তি চাই।

কমলনগর থানার ওসি  মোহাম্মদ মোসলেহ উদ্দিন জানান, ভুক্তভোগীর বক্তব্যের আলোকে একজনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। এখন ভুক্তভোগী তরুণী যদি অন্য কাউকে দোষারোপ করে এ বিষয়ে আদালতের নির্দেশ পেলে আমরা মামলায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন