ইউপি নির্বাচন: রূপগঞ্জে ৩শ’ জনকে আসামি করে মামলা
jugantor
ইউপি নির্বাচন: রূপগঞ্জে ৩শ’ জনকে আসামি করে মামলা

  রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৯ অক্টোবর ২০২১, ২১:৩৭:১৩  |  অনলাইন সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে বস্তি থেকে ভাড়াটে সন্ত্রাসী এনে হামলা গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় মামলা করেছে। রূপগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক কাজল মজুমদার বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার অজ্ঞাতনামা ২০০-৩০০ জনকে আসামি করে মামলাটি করেন। এ মামলায় এক পুলিশ কনস্টেবল আহতসহ একটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করেছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, বাদী কায়েতপাড়া ইউনিয়নের নাওড়া এলাকায় দুই মেম্বার প্রার্থী মোশারফ ও জসিমউদ্দিনের কর্মী সমর্থকদের সংঘর্ষের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে যান। ওই সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণসহ ঘটনাস্থল থেকে একটি ককটেল ও আহত পুলিশ সদস্যকে উদ্ধার করেন।

মেম্বার প্রার্থী জসিমউদ্দিন জানান, রূপগঞ্জের মোশা বাহিনীর প্রধান মোশারফ এবং তিনি নিজে ইউপি নির্বাচনে কায়েতপাড়ার ১নং ওয়ার্ড থেকে প্রার্থী হয়েছেন। প্রতীক বরাদ্দের পর বুধবার রাতে তার লোকজন আনন্দ মিছিল করার সময় মোশারফসহ তার বাহিনীর লোকেরা জসিমসহ তার কর্মী সমর্থকদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় ককটেল বিস্ফোরণ ও গুলি করে মোশা বাহিনী।

কায়েতপাড়ায় এবার নৌকার প্রার্থী জাহেদ আলী এ হামলায় মোশারফকে প্রত্যক্ষভাবে মদদ দেওয়াসহ চনপাড়া বস্তি থেকে ৪-৫শ’ সন্ত্রাসী এনে নাওড়া গ্রামে আক্রমণ করায় এবং তার বাড়িসহ ২০-২৫টি বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মোশা বাহিনীর হামলায় ইটের আঘাতে পুলিশের কনস্টেবল জমশেদ আলী আহত হন। পুলিম ঘটনাস্থল থেকে একটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করে।

পুলিশের সরকারি কাজে বাধা, হামলা ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় বৃহস্পতিবার এ মামলা করা হয়।

স্থানীয় এমপিপুত্রের একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো সময় আবারো সংঘর্ষ হতে পারে।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ বলেন, নির্বাচনে কিছু বিশৃঙ্খলা হচ্ছে। তবে আমরা এখানে সতর্ক অবস্থানে টহল দিচ্ছি। নিয়োজিত রয়েছে র্যা ব ও গোয়েন্দা পুলিশের একাধিক দল। আমরা সর্বাত্মকভাবে বিশৃঙ্খলা এড়ানোর চেষ্টা করছি।

ইউপি নির্বাচন: রূপগঞ্জে ৩শ’ জনকে আসামি করে মামলা

 রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৯ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে বস্তি থেকে ভাড়াটে সন্ত্রাসী এনে হামলা গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় মামলা করেছে। রূপগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক কাজল মজুমদার বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার অজ্ঞাতনামা ২০০-৩০০ জনকে আসামি করে মামলাটি করেন। এ মামলায় এক পুলিশ কনস্টেবল আহতসহ একটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করেছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। 

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, বাদী কায়েতপাড়া ইউনিয়নের নাওড়া এলাকায় দুই মেম্বার প্রার্থী মোশারফ ও জসিমউদ্দিনের কর্মী সমর্থকদের সংঘর্ষের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে যান। ওই সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণসহ ঘটনাস্থল থেকে একটি ককটেল ও আহত পুলিশ সদস্যকে উদ্ধার করেন।

মেম্বার প্রার্থী জসিমউদ্দিন জানান, রূপগঞ্জের মোশা বাহিনীর প্রধান মোশারফ এবং তিনি নিজে ইউপি নির্বাচনে কায়েতপাড়ার ১নং ওয়ার্ড থেকে প্রার্থী হয়েছেন। প্রতীক বরাদ্দের পর বুধবার রাতে তার লোকজন আনন্দ মিছিল করার সময় মোশারফসহ তার বাহিনীর লোকেরা জসিমসহ তার কর্মী সমর্থকদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় ককটেল বিস্ফোরণ ও গুলি করে মোশা বাহিনী।

কায়েতপাড়ায় এবার নৌকার প্রার্থী জাহেদ আলী এ হামলায় মোশারফকে প্রত্যক্ষভাবে মদদ দেওয়াসহ চনপাড়া বস্তি থেকে ৪-৫শ’ সন্ত্রাসী এনে নাওড়া গ্রামে আক্রমণ করায় এবং তার বাড়িসহ ২০-২৫টি বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মোশা বাহিনীর হামলায় ইটের আঘাতে পুলিশের কনস্টেবল জমশেদ আলী আহত হন। পুলিম ঘটনাস্থল থেকে একটি অবিস্ফোরিত ককটেল উদ্ধার করে। 

পুলিশের সরকারি কাজে বাধা, হামলা ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় বৃহস্পতিবার এ মামলা করা হয়। 

স্থানীয় এমপিপুত্রের একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো সময় আবারো সংঘর্ষ হতে পারে।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ বলেন, নির্বাচনে কিছু বিশৃঙ্খলা হচ্ছে। তবে আমরা এখানে সতর্ক অবস্থানে টহল দিচ্ছি। নিয়োজিত রয়েছে র্যা ব ও গোয়েন্দা পুলিশের একাধিক দল। আমরা সর্বাত্মকভাবে বিশৃঙ্খলা এড়ানোর চেষ্টা করছি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন