আ.লীগের বর্ধিত সভায় আসা মাইক্রোবাসে অস্ত্র, চালক আটক
jugantor
আ.লীগের বর্ধিত সভায় আসা মাইক্রোবাসে অস্ত্র, চালক আটক

  পাবনা প্রতিনিধি  

৩০ অক্টোবর ২০২১, ০০:২৯:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

পাবনার সুজানগর উপজেলার রানীনগর ভাটিকয়া বাজারে একটি মাইক্রোবাস থেকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে রয়েছে একজন মুক্তিযোদ্ধার নামে লাইসেন্স করা একটি শটগান এবং একটি অবৈধ ওয়ান শুটারগান।

শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলার আমিনপুর থানা পুলিশ ওই দুটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করে। এ সময় মাইক্রোবাসের চালক মো. হাবিবুল্লাহকে (৪০) পুলিশ আটক করে।

আটক হাবিবুল্লাহ পাবনা সদর উপজেলার চরতারাপুর ইউনিয়নের কাঁচিপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুস সালাম সেখের ছেলে।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার ছিল সুজানগর উপজেলার রানীনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা। সুজানগর পৌর সদর থেকে বেশ কয়েকটি গাড়ি নিয়ে নেতাকর্মীরা ওই বর্ধিত সভায় যান।

মাইক্রোবাসের চালকের উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ আরও জানায়, বর্ধিত সভায় নিয়ে যাওয়া একটি মাইক্রোবাসে কয়েকজন কর্মী সমর্থক নিয়ে যান সুজানগর পৌরসভার কাউন্সিলর জায়েদুল হক জনি (৩৫)। জনি মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন তোফার ছেলে।

গোপন সূত্রে আমিনপুর থানা পুলিশের কাছে খবর আসে যে, জনির তত্ত্বাবধানে একটি মাইক্রোবাসে অস্ত্র রাখা হয়েছে। খবরের ভিত্তিতে পুলিশ ভাটিকয়া বাজারে সন্ধ্যায় ওই মাইক্রোবাসে অভিযান চালিয়ে আগ্নেয়াস্ত্র দুটি উদ্ধার করে। কিন্তু জনিকে পুলিশ ধরতে পারেনি। এ সময় মাইক্রোবাসের চালক হাবিবুল্লাহকে আটক ও মাইক্রোবাসটি জব্দ করে পুলিশ।

আমিনপুর থানার ওসি মো. রওশন আলী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, উদ্ধার করা একটি শটগান লাইসেন্স করা এবং সেটির মালিক জনির পিতা মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন তোফা। অন্যটি ওয়ান শুটারগান এবং সেটি অবৈধ।

ওসি আরও বলেন, মালিক ছাড়া অন্য কেউ তার লাইসেন্স করা অস্ত্র এভাবে নিয়ে যেতে পারে না।

তিনি বলেন, ওই গাড়িতে আরও কে কে ছিল তা তদন্ত করা হচ্ছে এবং এ বিষয়ে একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে।

আ.লীগের বর্ধিত সভায় আসা মাইক্রোবাসে অস্ত্র, চালক আটক

 পাবনা প্রতিনিধি 
৩০ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পাবনার সুজানগর উপজেলার রানীনগর ভাটিকয়া বাজারে একটি মাইক্রোবাস থেকে দুটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে রয়েছে একজন মুক্তিযোদ্ধার নামে লাইসেন্স করা একটি শটগান এবং একটি অবৈধ ওয়ান শুটারগান।

শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলার আমিনপুর থানা পুলিশ ওই দুটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করে। এ সময় মাইক্রোবাসের চালক মো. হাবিবুল্লাহকে (৪০) পুলিশ আটক করে।

আটক হাবিবুল্লাহ পাবনা সদর উপজেলার চরতারাপুর ইউনিয়নের কাঁচিপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুস সালাম সেখের ছেলে।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার ছিল সুজানগর উপজেলার রানীনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা। সুজানগর পৌর সদর থেকে বেশ কয়েকটি গাড়ি নিয়ে নেতাকর্মীরা ওই বর্ধিত সভায় যান।

মাইক্রোবাসের চালকের উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ আরও জানায়, বর্ধিত সভায় নিয়ে যাওয়া একটি মাইক্রোবাসে কয়েকজন কর্মী সমর্থক নিয়ে যান সুজানগর পৌরসভার কাউন্সিলর জায়েদুল হক জনি (৩৫)। জনি মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন তোফার ছেলে।

গোপন সূত্রে আমিনপুর থানা পুলিশের কাছে খবর আসে যে, জনির তত্ত্বাবধানে একটি মাইক্রোবাসে অস্ত্র রাখা হয়েছে। খবরের ভিত্তিতে পুলিশ ভাটিকয়া বাজারে সন্ধ্যায় ওই মাইক্রোবাসে অভিযান চালিয়ে আগ্নেয়াস্ত্র দুটি উদ্ধার করে। কিন্তু জনিকে পুলিশ ধরতে পারেনি। এ সময় মাইক্রোবাসের চালক হাবিবুল্লাহকে আটক ও মাইক্রোবাসটি জব্দ করে পুলিশ।

আমিনপুর থানার ওসি মো. রওশন আলী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, উদ্ধার করা একটি শটগান লাইসেন্স করা এবং সেটির মালিক জনির পিতা মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জল হোসেন তোফা। অন্যটি ওয়ান শুটারগান এবং সেটি অবৈধ।

ওসি আরও বলেন, মালিক ছাড়া অন্য কেউ তার লাইসেন্স করা অস্ত্র এভাবে নিয়ে যেতে পারে না।

তিনি বলেন, ওই গাড়িতে আরও কে কে ছিল তা তদন্ত করা হচ্ছে এবং এ বিষয়ে একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন