বিয়ের কথা বলে বাঁশঝাড়ে নিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ
jugantor
বিয়ের কথা বলে বাঁশঝাড়ে নিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ

  মনপুরা (ভোলা) প্রতিনিধি  

০২ নভেম্বর ২০২১, ১৮:১০:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলার মনপুরায় বিয়ের কথা বলে বাঁশঝাড়ে নিয়ে তরুণীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগে মো. ফিরোজ (২৮) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সকালে ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভোলা জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মনপুরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইদ আহমেদ।

এর আগে সোমবার দুপুর ২টায় ওই তরুণী নিজে বাদী হয়ে মনপুরা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন। পরে ওই দিন বিকাল ৪টায় তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় পুলিশ হাজীরহাট ইউনিয়নের চরযতিন গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে ওই যুবককে আটক করে।

রোববার রাত ৮টায় হাজীরহাট ইউনিয়নের চরযতিন গ্রামে ওই তরুণীর বাড়ির পাশে বাঁশঝাড়ের ঝোপে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

আটক ফিরোজ উপজেলার হাজীরহাট ইউনিয়নের চরযতিন গ্রামের বাসিন্দা মো. ইউনুচের ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বিয়ের কথা বলে রোববার রাত ৮টায় ওই তরুণীকে বাড়ির পাশের বাঁশঝাড়ে নিয়ে মুখ চেপে ধর্ষণ করে মো. ফিরোজ। এ ঘটনায় ওই তরুণী সোমবার সকালে থানায় মামলা করেন। পরে ওই দিন বিকালে পুলিশ ওই যুবককে হাজীরহাট ইউনিয়নের চরযতিন গ্রামের নিজ বাড়িতে থেকে গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার সকালে ধর্ষণের শিকার ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভোলা হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এদিকে সোমবার আটক যুবককে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শ্রীকান্ত।

এ ব্যাপারে মনপুরা থানার ওসি সাইদ আহমেদ জানান, ধর্ষণের অভিযোগে আটক যুবকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। মঙ্গলবার ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভোলা জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বিয়ের কথা বলে বাঁশঝাড়ে নিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ

 মনপুরা (ভোলা) প্রতিনিধি 
০২ নভেম্বর ২০২১, ০৬:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলার মনপুরায় বিয়ের কথা বলে বাঁশঝাড়ে নিয়ে তরুণীকে জোরপূর্বক ধর্ষণের অভিযোগে মো. ফিরোজ (২৮) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। 

মঙ্গলবার সকালে ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভোলা জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মনপুরা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইদ আহমেদ।

এর আগে সোমবার দুপুর ২টায় ওই তরুণী নিজে বাদী হয়ে মনপুরা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন। পরে ওই দিন বিকাল ৪টায় তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় পুলিশ হাজীরহাট ইউনিয়নের চরযতিন গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে ওই যুবককে আটক করে।

রোববার রাত ৮টায় হাজীরহাট ইউনিয়নের চরযতিন গ্রামে ওই তরুণীর বাড়ির পাশে বাঁশঝাড়ের ঝোপে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

আটক ফিরোজ উপজেলার হাজীরহাট ইউনিয়নের চরযতিন গ্রামের বাসিন্দা মো. ইউনুচের ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বিয়ের কথা বলে রোববার রাত ৮টায় ওই তরুণীকে বাড়ির পাশের বাঁশঝাড়ে নিয়ে মুখ চেপে ধর্ষণ করে মো. ফিরোজ। এ ঘটনায় ওই তরুণী সোমবার সকালে থানায় মামলা করেন। পরে ওই দিন বিকালে পুলিশ ওই যুবককে হাজীরহাট ইউনিয়নের চরযতিন গ্রামের নিজ বাড়িতে থেকে গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার সকালে ধর্ষণের শিকার ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভোলা হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এদিকে সোমবার আটক যুবককে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শ্রীকান্ত।

এ ব্যাপারে মনপুরা থানার ওসি সাইদ আহমেদ জানান, ধর্ষণের অভিযোগে আটক যুবকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। মঙ্গলবার ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভোলা জেলা হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন