সিজার ছাড়াই একসঙ্গে পাঁচ সন্তানের জন্ম দিলেন সাদিয়া
jugantor
সিজার ছাড়াই একসঙ্গে পাঁচ সন্তানের জন্ম দিলেন সাদিয়া

  কুমারখালী (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি  

০২ নভেম্বর ২০২১, ১৯:৪৭:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় একসঙ্গে পাঁচ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন সাদিয়া নামের এক গৃহবধূ। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে পাঁচটি শিশু ভূমিষ্ঠ হয়েছে।

গর্ভধারণের ৬ মাসের মাথায় শিশুগুলো জন্ম নেওয়ার কারণে তাদের ওজন হয়েছে অনেক কম। ৫ শিশুর মধ্যে চারটি মেয়ে ও একটি ছেলেসন্তান।

প্রথমবার সন্তান ধারণের ৬ মাসের মাথায় জীবন্ত পাঁচ শিশু জন্ম দেওয়া গৃহবধূ সাদিয়া (২৪) পান্টি ইউনিয়নের পান্টি গ্রামের কলেজপাড়া এলাকার সোহেল রানার স্ত্রী।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত ১০টার দিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে প্রসূতিকে ভর্তি করা হয়। পরদিন সকাল ১০টায় প্রসূতি মায়ের ব্যথা অনুভবের ১৫ মিনিট পরই তিনি নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে পাঁচ সন্তানের জন্ম দেন। তবে মা সুস্থ থাকলেও শিশুরা রয়েছে ঝুঁকিতে।
হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, ৬ মাসের মাথায় প্রসূতি মা বাচ্চা প্রসব করেছেন। একসঙ্গে পাঁচ সন্তান প্রসবে প্রসূতি মায়ের জীবনের অনেক ঝুঁকি ছিল। শিশুদের দেখতে হাসপাতালে রোগী ও রোগীর স্বজনরা ভিড় করছেন।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক শাহীন আক্তার সুমন বলেন, বাচ্চাদের শারীরিকভাবে সুস্থ করে তোলার জন্য চিকিৎসা চলছে। তবে বাচ্চাদের ওজন কম হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজের শিশু বিভাগে অথবা শিশু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বাচ্চাগুলোর ওজন ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম। তবে এ মুহূর্তে মা সুস্থ থাকলেও বাচ্চারা ঝুঁকিতে রয়েছে।

সিজার ছাড়াই একসঙ্গে পাঁচ সন্তানের জন্ম দিলেন সাদিয়া

 কুমারখালী (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি 
০২ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলায় একসঙ্গে পাঁচ সন্তানের জন্ম  দিয়েছেন সাদিয়া নামের এক গৃহবধূ। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে পাঁচটি শিশু ভূমিষ্ঠ হয়েছে।

গর্ভধারণের ৬ মাসের মাথায় শিশুগুলো জন্ম নেওয়ার কারণে তাদের ওজন হয়েছে অনেক কম। ৫ শিশুর মধ্যে চারটি মেয়ে ও একটি ছেলেসন্তান।

প্রথমবার সন্তান ধারণের ৬ মাসের মাথায় জীবন্ত পাঁচ শিশু জন্ম দেওয়া গৃহবধূ সাদিয়া (২৪) পান্টি ইউনিয়নের পান্টি গ্রামের কলেজপাড়া এলাকার সোহেল রানার স্ত্রী।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত ১০টার দিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে প্রসূতিকে ভর্তি করা হয়। পরদিন সকাল ১০টায় প্রসূতি মায়ের ব্যথা অনুভবের ১৫ মিনিট পরই তিনি নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে পাঁচ সন্তানের জন্ম দেন। তবে মা সুস্থ  থাকলেও শিশুরা রয়েছে ঝুঁকিতে।
হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, ৬ মাসের মাথায় প্রসূতি মা বাচ্চা প্রসব করেছেন। একসঙ্গে পাঁচ সন্তান প্রসবে প্রসূতি মায়ের জীবনের অনেক ঝুঁকি ছিল। শিশুদের দেখতে হাসপাতালে রোগী ও রোগীর স্বজনরা ভিড় করছেন।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক শাহীন আক্তার সুমন বলেন, বাচ্চাদের শারীরিকভাবে সুস্থ করে তোলার জন্য চিকিৎসা চলছে। তবে বাচ্চাদের ওজন কম হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজের শিশু বিভাগে অথবা শিশু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বাচ্চাগুলোর ওজন ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম। তবে এ মুহূর্তে মা সুস্থ থাকলেও বাচ্চারা ঝুঁকিতে রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন