নেত্রকোনায় ২ শ্রমিক নেতাকে কুপিয়ে জখম  
jugantor
নেত্রকোনায় ২ শ্রমিক নেতাকে কুপিয়ে জখম  

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

০৪ নভেম্বর ২০২১, ০৩:৩৮:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

পূর্ব শত্রুতার জেরে নেত্রকোনার মদনে দুই শ্রমিক নেতাকে কুপিয়ে জখম করেছেন প্রতিপক্ষের লোকজন।

বুধবার সন্ধ্যার পর পৌরসভার মদন-কেন্দুয়া সড়কের সিএনজিস্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- হাবিবুর রহমান ও তার ভাতিজা মোকাররম মিয়া। দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। উন্নত চিকিৎসার জন্য বুধবার রাত ৯টার দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে সোহেল মিয়া (৩৫) ও মোহাম্মদ আলী (২৭) নামের দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। সোহেল ও মোহাম্মদ আলী চানগাঁও গ্রামের মৃত জানু মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

স্থানীয়দের বরাতে পুলিশ জানিয়েছে, মদন উপজেলা শাখার অটো-সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি হাবিবুর রহমানের সঙ্গে উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি লিটন বাঙ্গালীর দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। দুপক্ষের মধ্যে হত্যা মামলাসহ প্রায় এক ডজনের বেশি মামলা চলমান রয়েছে।

৪/৫ দিন আগে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে লিটন বাঙ্গালীর ছেলে সোহাগের সঙ্গে হাবিবুর রহমানের ভাতিজা মোকাররমের তর্ক হয়। এর জের ধরে বুধবার সন্ধ্যার পর লিটন বাঙ্গালীর লোকজন হাবিবুর ও তার ভাতিজার ওপর অতর্কিত হামলা করে।

মদন থানার ওসি মুহাম্মদ ফেরদৌস আলম বলেন, আহত হাবিবুর ও মোকাররমের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে।

নেত্রকোনায় ২ শ্রমিক নেতাকে কুপিয়ে জখম  

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
০৪ নভেম্বর ২০২১, ০৩:৩৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পূর্ব শত্রুতার জেরে নেত্রকোনার মদনে দুই শ্রমিক নেতাকে কুপিয়ে জখম করেছেন প্রতিপক্ষের লোকজন। 

বুধবার সন্ধ্যার পর পৌরসভার মদন-কেন্দুয়া সড়কের সিএনজিস্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- হাবিবুর রহমান ও তার ভাতিজা মোকাররম মিয়া। দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। উন্নত চিকিৎসার জন্য বুধবার রাত ৯টার দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

এদিকে হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে সোহেল মিয়া (৩৫) ও মোহাম্মদ আলী (২৭) নামের দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। সোহেল ও মোহাম্মদ আলী চানগাঁও গ্রামের মৃত জানু মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। 

স্থানীয়দের বরাতে পুলিশ জানিয়েছে, মদন উপজেলা শাখার অটো-সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি হাবিবুর রহমানের সঙ্গে উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি লিটন বাঙ্গালীর দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। দুপক্ষের মধ্যে হত্যা মামলাসহ প্রায় এক ডজনের বেশি মামলা চলমান রয়েছে। 

৪/৫ দিন আগে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে লিটন বাঙ্গালীর ছেলে সোহাগের সঙ্গে হাবিবুর রহমানের ভাতিজা মোকাররমের তর্ক হয়। এর জের ধরে বুধবার সন্ধ্যার পর লিটন বাঙ্গালীর লোকজন হাবিবুর ও তার ভাতিজার ওপর অতর্কিত হামলা করে। 

মদন থানার ওসি মুহাম্মদ ফেরদৌস আলম বলেন, আহত হাবিবুর ও মোকাররমের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন