কোটা সংস্কার

চট্টগ্রামে আন্দোলনকারীদের অবস্থান কর্মসূচি

প্রকাশ : ১৩ মে ২০১৮, ১৪:১১ | অনলাইন সংস্করণ

  চট্টগ্রাম

সরকারি চাকরিতে কোটাপ্রথার বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তের প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে চট্টগ্রাম নগরের ষোলোশহর রেলস্টেশনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন আন্দোলনকারীরা। 

রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ কর্মসূচি শুরু হয়।

এ সময় ষোলোশহর রেলস্টেশনে অবস্থান নেয়া আন্দোলনকারীদের হাতে বিভিন্ন স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড দেখা গেছে।  

‘গেজেট প্রজ্ঞাপনে কত দেরি পাঞ্জেরি’, ‘আর নয় কালক্ষেপণ, জারি কর প্রজ্ঞাপন’, ‘আর কোনো দাবি নাই, কোটা বাতিলের গেজেট চাই’, ‘আর নয় ছলচাতুরী, প্রজ্ঞাপন চাই তাড়াতাড়ি’ ইত্যাদি স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন তারা। 

ষোলোশহর রেলস্টেশনে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আন্দোলনের মধ্যেও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়গামী সব শাটল ট্রেনের চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক জসিম উদ্দিনের বাঁশখালীর গ্রামের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদ জানান।

সংগঠনের চট্টগ্রাম বিভাগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. আরমান উদ্দিন বলেন, ‘আমরা তিন মাস ধরে আন্দোলন করে আসছি। প্রধানমন্ত্রী সংসদে কোটা বাতিলের যে ঘোষণা দিয়েছেন, তার বাস্তবায়ন চাই। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর এক মাস পার হলেও এখনও প্রজ্ঞাপন জারির কোনো লক্ষণ দেখতে পাচ্ছি না। দ্রুত প্রজ্ঞাপন জারির দাবিতে সারা দেশের মতো আজ চট্টগ্রামেও আন্দোলন শুরু করেছি।’


উল্লেখ্য, গত ৮ এপ্রিল থেকে চার দিন ধরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের প্রায় সব পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন করেন।

পর দিন সচিবালয়ে দেড় ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠক করেন আন্দোলনকারীরা।

বৈঠক শেষে মন্ত্রী বলেন, আন্দোলনকারীদের সঙ্গে তাদের অত্যন্ত সুন্দর আলোচনা হয়েছে। আমরা তাদের বলেছি- আগামী ৭ মের মধ্যে সরকার বিদ্যমান কোটার বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে। সেই পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত থাকবে।

এ সময় সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনও ৭ মে পর্যন্ত তাদের কর্মসূচি স্থগিতের ঘোষণা দেন।

এ ঘোষণার পর ৯ এপ্রিল রাতে আন্দোলন স্থগিত হয়ে যায়। তবে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীর এক বক্তব্য কেন্দ্র করে ১০ এপ্রিল থেকে ফের আন্দোলনে নামেন শিক্ষার্থীরা। তারা কোটা সংস্কারের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে সিদ্ধান্ত আসার দাবি জানান।

পরে ১১ এপ্রিল জাতীয় সংসদের অধিবেশনে কোটাপদ্ধতি বাতিল ঘোষণা করে সব চাকরিতে শতভাগ মেধার ভিত্তিতে নিয়োগের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পর দিন শিক্ষার্থীরা আন্দোলন স্থগিত ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে আনন্দ মিছিল বের করেন।

এর দুই সপ্তাহ পর গত ২৬ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলন করে কোটা বাতিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণা প্রজ্ঞাপন আকারে প্রকাশের দাবি জানান আন্দোলনকারী। না হলে ফের আন্দোলনে নামার ঘোষণা দেন তারা।

পর দিন ২৭ এপ্রিল আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানকের সঙ্গে বৈঠকে বসেন কোটা সংস্কার আন্দোলনের ১৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল।

গত ২ মে সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে কোটা বাতিলের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোনো ধরনের ক্ষোভ থেকে সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। ছাত্ররা কোটাব্যবস্থা বাতিল চেয়েছে, বাতিল করে দেয়া হয়েছে।

এর পর গত ৭ মে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম জানিয়েছিলেন, সরকারি চাকরিতে কোটাপদ্ধতি বাতিল বা সংস্কারের বিষয়ে কোনো অগ্রগতি নেই।

তার এ বক্তব্যের পর গত ৯ মে এক সংবাদ সম্মেলনে এসে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতারা।

এ সময় তারা ঘোষণা দেন ১০ মের মধ্যে কোটা সংস্কারে প্রজ্ঞাপন জারি করা না হলে আজ রোববার থেকে সারা দেশে সব কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে কঠোর আন্দোলন শুরু হবে।

সর্বশেষ গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আন্দোলনের কর্মসূচির ঘোষণা দেয় সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।