উখিয়ায় পাহাড়ে অস্ত্র তৈরির কারখানা, আটক ৩
jugantor
উখিয়ায় পাহাড়ে অস্ত্র তৈরির কারখানা, আটক ৩

  কক্সবাজার প্রতিনিধি  

০৮ নভেম্বর ২০২১, ১০:৪৮:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

আটক

কক্সবাজারের উখিয়ায় কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাহাড়ি এলাকায় অস্ত্র তৈরির কারখানার সন্ধান পেয়েছে র্যাব। এ সময় অভিযান চালিয়ে ১০টি অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ সরঞ্জামসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

আটকরা হলেন— কুতুপালং ক্যাম্প সি-১ জি ব্লকের মৃত আজিজুর রহমানের ছেলে বাইতুল্লাহ (১৯), তার ভাই হাবিব উল্লাহ (৩২) ও একই ক্যাম্পের জি ব্লকের জাহিদ হোসেনের ছেলে মোহাম্মদ হাছুন (২৪)।

সোমবার ভোরে কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবিরের এক্স-৪ ক্যাম্পের গহিন পাহাড়ে এ অভিযান চালিয়ে ওই অস্ত্র তৈরির কারখানা থেকে তাদের আটক করে র্যাব-১৫।

র্যাব-১৫ অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল খায়েরুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে একটি চক্র ওই কারখানায় অস্ত্র তৈরি করে আসছিল। এখান থেকে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের কাছে অস্ত্র সরবরাহ করা হয়।

এমন তথ্যের ভিত্তিতে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়িয়ে কারখানাটি শনাক্ত করা হয়। তার পর ভোরে ৪ ঘণ্টার বেশি সময় গুলিবিনিময়ের পর কারখানাটি নিয়ন্ত্রণে নেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে পাঁচটি পিস্তল, পাঁচটি বন্দুক ও বিপুল পরিমাণ অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, ক্যাম্পগুলোতে সন্ত্রাসীদের তৎপরতা ঠেকাতে কাজ করছেন র্যাবের সদস্যরা। আটকদের পরবর্তী আইনিব্যবস্থা শেষে উখিয়া থানায় হস্তান্তর করার প্রক্রিয়া চলছে।

উখিয়ায় পাহাড়ে অস্ত্র তৈরির কারখানা, আটক ৩

 কক্সবাজার প্রতিনিধি 
০৮ নভেম্বর ২০২১, ১০:৪৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আটক
ছবি: যুগান্তর

কক্সবাজারের উখিয়ায় কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাহাড়ি এলাকায় অস্ত্র তৈরির কারখানার সন্ধান পেয়েছে র্যাব। এ সময় অভিযান চালিয়ে ১০টি অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ সরঞ্জামসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

আটকরা হলেন— কুতুপালং ক্যাম্প সি-১ জি ব্লকের মৃত আজিজুর রহমানের ছেলে বাইতুল্লাহ (১৯), তার ভাই হাবিব উল্লাহ (৩২) ও একই ক্যাম্পের জি ব্লকের জাহিদ হোসেনের ছেলে মোহাম্মদ হাছুন (২৪)।

সোমবার ভোরে কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবিরের এক্স-৪ ক্যাম্পের গহিন পাহাড়ে এ অভিযান চালিয়ে ওই অস্ত্র তৈরির কারখানা থেকে তাদের আটক করে র্যাব-১৫।

র্যাব-১৫ অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল খায়েরুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে একটি চক্র ওই কারখানায় অস্ত্র তৈরি করে আসছিল। এখান থেকে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের কাছে অস্ত্র সরবরাহ করা হয়।

এমন তথ্যের ভিত্তিতে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়িয়ে কারখানাটি শনাক্ত করা হয়। তার পর ভোরে ৪ ঘণ্টার বেশি সময় গুলিবিনিময়ের পর কারখানাটি নিয়ন্ত্রণে নেওয়া হয়। পরে সেখান থেকে পাঁচটি পিস্তল, পাঁচটি বন্দুক ও বিপুল পরিমাণ অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, ক্যাম্পগুলোতে সন্ত্রাসীদের তৎপরতা ঠেকাতে কাজ করছেন র্যাবের সদস্যরা। আটকদের পরবর্তী আইনিব্যবস্থা শেষে উখিয়া থানায় হস্তান্তর করার প্রক্রিয়া চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন