চকলেটের প্রলোভনে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ
jugantor
চকলেটের প্রলোভনে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

  লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি  

০৮ নভেম্বর ২০২১, ২৩:৩৭:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে ৪র্থ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে সোমবার রাত ৯টায় ভুক্তভোগীর মা জাহাঙ্গীর আলমকে বিবাদী করে লোহাগাড়ায় থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর আলম উপজেলার চুনতি ইউনিয়নের দক্ষিণ পানত্রিশ এলাকার শফিকুর রহমানের ছেলে ও এক সন্তানের জনক।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার বিকালে প্রতিদিনের ন্যায় ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী জাহাঙ্গীর আলমের বাড়িতে খেলতে যায়। অভিযুক্তের বোনের সঙ্গে খেলার একপর্যায়ে জাহাঙ্গীর আলম ভুক্তভোগীকে চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে তার শয়নকক্ষে ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। বিবাদীর হুমকির ভয়ে ভুক্তভোগী বিষয়টি কাউকে জানায়নি।

শুক্রবার ওই ছাত্রী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তার মাকে ধর্ষণের বিষয়টি জানায়। তিনি মেয়েকে নিয়ে হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা নিতে চাইলে অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর আলম ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা বাধা দেয়।

একপর্যায়ে স্থানীয়দের সহায়তায় রোববার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেয়েকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। ওই ছাত্রীর অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক চমেক হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে প্রেরণ করেন।

স্থানীয়রা জানায়, জাহাঙ্গীর আলম একসময় সৌদি আরব ছিলেন। দেশে আসার পর কখনো সিএনজি চালিত অটোরিকশা, কখনো মোটরসাইকেল ভাড়ায় চালান। টেকনাফ থেকে বিয়ে করেছেন। সেই সুবাদে টেকনাফ থেকে বিভিন্ন সময় ইয়াবা নিয়ে আসেন। সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও মোটরসাইকেলে করে বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবা বিক্রি করে আসছেন। এতে কেউ প্রতিবাদ করলে বিভিন্ন মিথ্যা মামলা জড়িয়ে এলাকার লোকজনকে হয়রানি করত।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জাহাঙ্গীর আলম তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য নয় বলে জানান।

লোহাগাড়া থানার ওসি জাকির হোসাইন মাহমুদ জানান, শিশু ধর্ষণের ঘটনায় ভুক্তভোগীর মা লিখিত অভিযোগ করেছেন। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

চকলেটের প্রলোভনে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

 লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 
০৮ নভেম্বর ২০২১, ১১:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে ৪র্থ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে সোমবার রাত ৯টায় ভুক্তভোগীর মা জাহাঙ্গীর আলমকে বিবাদী করে লোহাগাড়ায় থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর আলম উপজেলার চুনতি ইউনিয়নের দক্ষিণ পানত্রিশ এলাকার শফিকুর রহমানের ছেলে ও এক সন্তানের জনক।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার বিকালে প্রতিদিনের ন্যায় ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী জাহাঙ্গীর আলমের বাড়িতে খেলতে যায়। অভিযুক্তের বোনের সঙ্গে খেলার একপর্যায়ে জাহাঙ্গীর আলম ভুক্তভোগীকে চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে তার শয়নকক্ষে ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। বিবাদীর হুমকির ভয়ে ভুক্তভোগী বিষয়টি কাউকে জানায়নি। 

শুক্রবার ওই ছাত্রী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তার মাকে ধর্ষণের বিষয়টি জানায়। তিনি মেয়েকে নিয়ে হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা নিতে চাইলে অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর আলম ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা বাধা দেয়। 

একপর্যায়ে স্থানীয়দের সহায়তায় রোববার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেয়েকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। ওই ছাত্রীর অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক চমেক হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে প্রেরণ করেন। 

স্থানীয়রা জানায়, জাহাঙ্গীর আলম একসময় সৌদি আরব ছিলেন। দেশে আসার পর কখনো সিএনজি চালিত অটোরিকশা, কখনো মোটরসাইকেল ভাড়ায় চালান। টেকনাফ থেকে বিয়ে করেছেন। সেই সুবাদে টেকনাফ থেকে বিভিন্ন সময় ইয়াবা নিয়ে আসেন। সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও মোটরসাইকেলে করে বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবা বিক্রি করে আসছেন। এতে কেউ প্রতিবাদ করলে বিভিন্ন মিথ্যা মামলা জড়িয়ে এলাকার লোকজনকে হয়রানি করত।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জাহাঙ্গীর আলম তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য নয় বলে জানান। 

লোহাগাড়া থানার ওসি জাকির হোসাইন মাহমুদ জানান, শিশু ধর্ষণের ঘটনায় ভুক্তভোগীর মা লিখিত অভিযোগ করেছেন। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন