পুলিশের স্ট্যাটাসে প্রতিবন্ধী শিশুকে খুঁজে পেলেন মা
jugantor
পুলিশের স্ট্যাটাসে প্রতিবন্ধী শিশুকে খুঁজে পেলেন মা

  রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি  

১৬ নভেম্বর ২০২১, ১৯:১৭:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানা পুলিশ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার পর নিখোঁজ প্রতিবন্ধী শিশু মায়াকে (৯) খুঁজে পেলেন তার মা নাজমা বেগম। মঙ্গলবার দুপুরে থানা পুলিশ মায়ের কাছে নিখোঁজ ওই শিশুকে ফিরিয়ে দেয়।

পুলিশের মানবিক এ ধরনের উদ্যোগকে ধন্যবাদ দিয়েছেন স্থানীয়রা। শিশু মায়া ঢাকার খিলক্ষেত থানার খিলক্ষেত মধ্যপাড়া এলাকার মৃত আব্দুর রব রাড়ির মেয়ে।

রূপগঞ্জ থানার এএসআই সাইফুল ইসলাম জানান, সোমবার রাত ১১টার দিকে তিনিসহ পুলিশের একটি দল পূর্বাচল উপশহর এলাকায় টহল দিচ্ছিলেন। উপশহরের ১০নং সেক্টরের জয়বাংলা চত্বর এলাকায় ৯ বছর বয়সের প্রতিবন্ধী শিশু মায়া কাঁদতে ছিল। এ সময় এএসআই সাইফুল ইসলাম শিশুটিকে ডেকে এনে দেখতে পান বাক-প্রতিবন্ধী। কথা বলতে পারছে না।

রূপগঞ্জ থানার ওসি এএফএম সায়েদের নির্দেশে ওই এএসআই তার নিজস্ব ফেসবুকে শিশুটির ছবি দিয়ে নিখোঁজের একটি স্ট্যাটাস দেন। স্ট্যাটাস দেখে মঙ্গলবার সকালে পুলিশের সঙ্গে মা নাজমা বেগম যোগাযোগ করেন। পরে দুপুরে এসে শিশু মায়াকে বুঝে নেন।

শিশুর মা নাজমা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার প্রতিবন্ধী মেয়েটি কীভাবে এখানে এলো কিছুই বুঝতে পারছি না। পুলিশের সৎ উদ্দেশ্যের কারণে আমার মেয়েকে আমি ফিরে পেয়েছি। এজন্য পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

রূপগঞ্জ থানার এএসআই সাইফুল ইসলাম বলেন, এটা আমার দায়িত্ব। তবে ১২ ঘণ্টা মায়া আমাদের কাছে ছিল। ততক্ষণে শিশুটির প্রতি আমাদের মায়া পড়ে গেছে। মায়াকে মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিতে পেরে অনেক আনন্দ পাচ্ছি।

পুলিশের স্ট্যাটাসে প্রতিবন্ধী শিশুকে খুঁজে পেলেন মা

 রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি 
১৬ নভেম্বর ২০২১, ০৭:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানা পুলিশ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার পর নিখোঁজ প্রতিবন্ধী শিশু মায়াকে (৯) খুঁজে পেলেন তার মা নাজমা বেগম। মঙ্গলবার দুপুরে থানা পুলিশ মায়ের কাছে নিখোঁজ ওই শিশুকে ফিরিয়ে দেয়।

পুলিশের মানবিক এ ধরনের উদ্যোগকে ধন্যবাদ দিয়েছেন স্থানীয়রা। শিশু মায়া ঢাকার খিলক্ষেত থানার খিলক্ষেত মধ্যপাড়া এলাকার মৃত আব্দুর রব রাড়ির মেয়ে।

রূপগঞ্জ থানার এএসআই সাইফুল ইসলাম জানান, সোমবার রাত ১১টার দিকে তিনিসহ পুলিশের একটি দল পূর্বাচল উপশহর  এলাকায় টহল দিচ্ছিলেন। উপশহরের ১০নং সেক্টরের জয়বাংলা চত্বর এলাকায় ৯ বছর বয়সের প্রতিবন্ধী শিশু মায়া কাঁদতে ছিল। এ সময় এএসআই সাইফুল ইসলাম শিশুটিকে ডেকে এনে দেখতে পান বাক-প্রতিবন্ধী। কথা বলতে পারছে না।

রূপগঞ্জ থানার ওসি এএফএম সায়েদের নির্দেশে ওই এএসআই তার নিজস্ব ফেসবুকে শিশুটির ছবি দিয়ে নিখোঁজের একটি স্ট্যাটাস দেন। স্ট্যাটাস দেখে মঙ্গলবার সকালে পুলিশের সঙ্গে মা নাজমা বেগম যোগাযোগ করেন। পরে দুপুরে এসে শিশু মায়াকে বুঝে নেন।

শিশুর মা নাজমা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার প্রতিবন্ধী মেয়েটি কীভাবে এখানে এলো কিছুই বুঝতে পারছি না। পুলিশের সৎ উদ্দেশ্যের কারণে আমার মেয়েকে আমি ফিরে পেয়েছি। এজন্য পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

রূপগঞ্জ থানার এএসআই সাইফুল ইসলাম বলেন, এটা আমার দায়িত্ব। তবে ১২ ঘণ্টা মায়া আমাদের কাছে ছিল। ততক্ষণে শিশুটির প্রতি আমাদের মায়া পড়ে গেছে। মায়াকে মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিতে পেরে অনেক আনন্দ পাচ্ছি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন