সাবেক স্ত্রীর প্রেমিকের ছুরিকাঘাতে নবম শ্রেণির ছাত্রের মৃত্যু
jugantor
সাবেক স্ত্রীর প্রেমিকের ছুরিকাঘাতে নবম শ্রেণির ছাত্রের মৃত্যু

  বগুড়া ব্যুরো  

১৬ নভেম্বর ২০২১, ১৯:৪১:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ায় সাবেক স্ত্রীর প্রেমিক হৃদয়ের ছুরিকাঘাতে ওমর ফারুক (১৫) নামে নবম শ্রেণির ছাত্র নিহত হয়েছে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার দুপুরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়েছে।

গত ১১ নভেম্বর শহরের মালতিনগর উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে তার পেটে ছুরিকাঘাত করা হয়েছিল।

বনানী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ জানান, লাশ ওই হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, নিহত ওমর ফারুক বগুড়ার গাবতলী উপজেলার হোসেনপুর গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে। সে বগুড়া শহরের মালতিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র। লেখাপড়ার কারণে তারা স্কুলের কাছে মালতিনগর নামাপাড়ায় ভাড়া বাসায় থাকতো। তার সঙ্গে একই স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্রী মুন্নির প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ফারুক গত জানুয়ারিতে মুন্নিকে বিয়ে করে।

চার মাস সংসার করার পর তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ দেখা দেয়। পরে মুন্নি নিজেই ফারুককে তালাক দেয়। এরপর মুন্নি তার সহপাঠী মালতিনগর দক্ষিণপাড়ার আমজাদ হোসেনের ছেলে হৃদয়ের (১৬) সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে।

গত ১১ নভেম্বর স্কুলে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ছিল। সেখানে হৃদয়ের সঙ্গে সাবেক স্ত্রী মুন্নিকে দেখে ফারুক ক্ষুব্ধ হয়। বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে স্কুল চত্বরে মুন্নিকে নিয়ে ফারুকের সঙ্গে হৃদয়ের বাগবিতণ্ডা হয়।

একপর্যায়ে হৃদয় ছুরি বের করে ফারুকের পেটে ঢুকিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত ফারুককে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে ফারুক মারা যায়।

বনানী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই সাজ্জাদ জানান, স্কুলছাত্র ওমর ফারুকের লাশ উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা করা হয়। ঘটনার পর থেকে হৃদয় পলাতক রয়েছে। হত্যা মামলা হলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাবেক স্ত্রীর প্রেমিকের ছুরিকাঘাতে নবম শ্রেণির ছাত্রের মৃত্যু

 বগুড়া ব্যুরো 
১৬ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ায় সাবেক স্ত্রীর প্রেমিক হৃদয়ের ছুরিকাঘাতে ওমর ফারুক (১৫) নামে নবম শ্রেণির ছাত্র নিহত হয়েছে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার দুপুরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়েছে।

গত ১১ নভেম্বর শহরের মালতিনগর উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে তার পেটে ছুরিকাঘাত করা হয়েছিল।

বনানী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ জানান, লাশ ওই হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, নিহত ওমর ফারুক বগুড়ার গাবতলী উপজেলার হোসেনপুর গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে। সে বগুড়া শহরের মালতিনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র। লেখাপড়ার কারণে তারা স্কুলের কাছে মালতিনগর নামাপাড়ায় ভাড়া বাসায় থাকতো। তার সঙ্গে একই স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্রী মুন্নির প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ফারুক গত জানুয়ারিতে মুন্নিকে বিয়ে করে।

চার মাস সংসার করার পর তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ দেখা দেয়। পরে মুন্নি নিজেই ফারুককে তালাক দেয়। এরপর মুন্নি তার সহপাঠী মালতিনগর দক্ষিণপাড়ার আমজাদ হোসেনের ছেলে হৃদয়ের (১৬) সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে।

গত ১১ নভেম্বর স্কুলে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান ছিল। সেখানে হৃদয়ের সঙ্গে সাবেক স্ত্রী মুন্নিকে দেখে ফারুক ক্ষুব্ধ হয়। বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে স্কুল চত্বরে মুন্নিকে নিয়ে ফারুকের সঙ্গে হৃদয়ের বাগবিতণ্ডা হয়।

একপর্যায়ে হৃদয় ছুরি বের করে ফারুকের পেটে ঢুকিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত ফারুককে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে ফারুক মারা যায়।

বনানী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই সাজ্জাদ জানান, স্কুলছাত্র ওমর ফারুকের লাশ উদ্ধার করে বগুড়া শজিমেক হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা করা হয়। ঘটনার পর থেকে হৃদয় পলাতক রয়েছে। হত্যা মামলা হলে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন