দুটি ট্রলারসহ ১০ বাংলাদেশিকে ‘ধরে নিয়ে গেছে’ মিয়ানমার
jugantor
দুটি ট্রলারসহ ১০ বাংলাদেশিকে ‘ধরে নিয়ে গেছে’ মিয়ানমার

  টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি  

২০ নভেম্বর ২০২১, ১৩:৩৬:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

দুটি ট্রলারসহ ১০ বাংলাদেশিকে ‘ধরে নিয়ে গেছে’ মিয়ানমার

কক্সবাজারের সেন্টমার্টিনে জলসীমা হতে দুটি মাছ ধরা নৌকাসহ ১০ মাঝিমাল্লাকে ধরে নিয়ে গেছে মিয়ানমার নৌবাহিনীর সদস্যরা বলে অভিযোগ করেছেন ট্রলার মালিকরা।

শনিবার সকাল ১০টার দিকে সেন্টমার্টিনের দক্ষিণ-পূর্বের মিয়ানমার জলসীমা হতে নুর আয়েশো বিবি ও মুজাহিরুল হক নামের ট্রলার দুটি আটক করে নিয়ে যায় তারা। এসময় ওই নৌকায় ১০ মাঝিমাল্লা ছিলেন বলে যুগান্তরকে জানিয়েছেন বোটের মালিক মো. আজিম।

তিনি আরও জানান, খবর পেয়ে আমি সেন্টমার্টিন কোস্টগার্ড ও বিজিবি বরাবরে লিখিত দরখাস্ত দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছি।

ট্রলারে কোনো রোহিঙ্গা ছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে আজিম যুগান্তরকে জানান, আমার বোটে ছয়জনের মধ্যে তিন রোহিঙ্গা ও নুরুল আমিনের বোটে চারজনই রোহিঙ্গা ছিল।

প্রতিনিয়ত মিয়ানমার নৌবাহিনী আমাদের ট্রলারগুলো ধরে নিয়ে মোটা অংকের মুক্তিপণ আদায় করে ছেড়ে দেয় বলে জানান মুজাহিরুল হক ট্রলারের মাঝি মোহাম্মদ আজিম।

সেন্টমার্টিন কোস্টগার্ড স্টেশন কামান্ডার যুগান্তরকে জানান, আমরা এখনো নিশ্চিত না, তবে তদন্ত করে দেখছি। বাকিটা কোস্টগার্ডদের মিডিয়া কর্মকর্তার কাছ থেকে জেনে নিলে ভালো হয়।

দুটি ট্রলারসহ ১০ বাংলাদেশিকে ‘ধরে নিয়ে গেছে’ মিয়ানমার

 টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি 
২০ নভেম্বর ২০২১, ০১:৩৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
দুটি ট্রলারসহ ১০ বাংলাদেশিকে ‘ধরে নিয়ে গেছে’ মিয়ানমার
ছবি: যুগান্তর

কক্সবাজারের সেন্টমার্টিনে জলসীমা হতে দুটি মাছ ধরা নৌকাসহ ১০ মাঝিমাল্লাকে ধরে নিয়ে গেছে মিয়ানমার নৌবাহিনীর সদস্যরা বলে অভিযোগ করেছেন ট্রলার মালিকরা।

শনিবার সকাল ১০টার দিকে সেন্টমার্টিনের দক্ষিণ-পূর্বের মিয়ানমার জলসীমা হতে নুর আয়েশো বিবি ও মুজাহিরুল হক নামের ট্রলার দুটি আটক করে নিয়ে যায় তারা। এসময় ওই নৌকায় ১০ মাঝিমাল্লা ছিলেন বলে যুগান্তরকে জানিয়েছেন বোটের মালিক মো. আজিম। 

তিনি আরও জানান, খবর পেয়ে আমি সেন্টমার্টিন কোস্টগার্ড ও বিজিবি বরাবরে লিখিত দরখাস্ত দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছি।

ট্রলারে কোনো রোহিঙ্গা ছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে আজিম যুগান্তরকে জানান, আমার বোটে ছয়জনের মধ্যে তিন রোহিঙ্গা ও নুরুল আমিনের বোটে চারজনই রোহিঙ্গা ছিল। 

প্রতিনিয়ত মিয়ানমার নৌবাহিনী আমাদের ট্রলারগুলো ধরে নিয়ে মোটা অংকের মুক্তিপণ আদায় করে ছেড়ে দেয় বলে জানান  মুজাহিরুল হক ট্রলারের মাঝি মোহাম্মদ আজিম। 

সেন্টমার্টিন কোস্টগার্ড স্টেশন কামান্ডার যুগান্তরকে জানান, আমরা এখনো নিশ্চিত না, তবে তদন্ত করে দেখছি। বাকিটা কোস্টগার্ডদের মিডিয়া কর্মকর্তার কাছ থেকে জেনে নিলে ভালো হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন