প্রবাসী বড় ভাইয়ের প্রক্সি দিতে এসে ছোট ভাই কারাগারে
jugantor
প্রবাসী বড় ভাইয়ের প্রক্সি দিতে এসে ছোট ভাই কারাগারে

  নোয়াখালী প্রতিনিধি  

২৩ নভেম্বর ২০২১, ০১:৩২:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় এসএসসির জীববিজ্ঞান পরীক্ষায় প্রক্সি দিতে গিয়ে ধরা পড়েছেন মো. ছালাউদ্দিন (২০) নামের এক যুবক।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে জমিদার হাট বিএন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাকে ১ বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হয়।

বেগমগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শামসুন নাহার এ দণ্ডাদেশ দেন।

অভিযুক্ত মো. ছালাউদ্দীন নরোত্তমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ও উপজেলার শরিফপুর ইউনিয়নের খানপুর গ্রামের অলি উল্যাহর ছেলে।

জমিদার হাট বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব মহিন উদ্দিন বলেন, সকালে আমাদের কেন্দ্রে এসএসসির জীববিজ্ঞানের পরীক্ষা চলছিল। এ সময় শিক্ষার্থী জহির উদ্দিনের (২২) পরিবর্তে তার ছোট ভাই ছালাউদ্দিন পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। বিষয়টি প্রথমে আমাদের দৃষ্টিতে পড়েনি। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরীক্ষা কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১ বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের আদেশ দেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তার বড় ভাই সৌদি আরবে থাকায় প্রক্সি দিয়ে আসছিল ওই যুবক।

বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামসুন নাহার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ছালাউদ্দিনকে আটক করা হয়। পরে ওই যুবকের প্রবেশপত্র ও রেজিস্টেশন কার্ড যাচাই-বাছাই ও জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সে বড় ভাইয়ের হয়ে প্রক্সি পরীক্ষা দেওয়ার কথা স্বীকার করে। পরে ওই যুবককে পাবলিক পরীক্ষা আইনে সাজা দিয়ে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। আর প্রকৃত ছাত্র জহির উদ্দিনকে চলতি এসএসসি পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

প্রবাসী বড় ভাইয়ের প্রক্সি দিতে এসে ছোট ভাই কারাগারে

 নোয়াখালী প্রতিনিধি 
২৩ নভেম্বর ২০২১, ০১:৩২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় এসএসসির জীববিজ্ঞান পরীক্ষায় প্রক্সি দিতে গিয়ে ধরা পড়েছেন মো. ছালাউদ্দিন (২০) নামের এক যুবক।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে জমিদার হাট বিএন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাকে ১ বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হয়।

বেগমগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শামসুন নাহার এ দণ্ডাদেশ দেন। 

অভিযুক্ত মো. ছালাউদ্দীন নরোত্তমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ও উপজেলার শরিফপুর ইউনিয়নের খানপুর গ্রামের অলি উল্যাহর ছেলে।   

জমিদার হাট বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব মহিন উদ্দিন বলেন, সকালে আমাদের কেন্দ্রে এসএসসির জীববিজ্ঞানের পরীক্ষা চলছিল। এ সময় শিক্ষার্থী জহির উদ্দিনের (২২) পরিবর্তে তার ছোট ভাই ছালাউদ্দিন পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। বিষয়টি প্রথমে আমাদের দৃষ্টিতে পড়েনি। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরীক্ষা কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ১ বছরের কারাদণ্ড ও পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের আদেশ দেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তার বড় ভাই সৌদি আরবে থাকায় প্রক্সি দিয়ে আসছিল ওই যুবক। 

বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামসুন নাহার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ছালাউদ্দিনকে আটক করা হয়। পরে ওই যুবকের প্রবেশপত্র ও রেজিস্টেশন কার্ড যাচাই-বাছাই ও জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সে বড় ভাইয়ের হয়ে প্রক্সি পরীক্ষা দেওয়ার কথা স্বীকার করে। পরে ওই যুবককে পাবলিক পরীক্ষা আইনে সাজা দিয়ে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। আর প্রকৃত ছাত্র জহির উদ্দিনকে চলতি এসএসসি পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন