এসএসসি পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে ছাত্রীকে অপহরণ চেষ্টা (ভিডিও)
jugantor
এসএসসি পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে ছাত্রীকে অপহরণ চেষ্টা (ভিডিও)

  যুগান্তর প্রতিবেদন, তাহিরপুর  

২৩ নভেম্বর ২০২১, ২০:৫০:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

এসএসসি পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথেই ছাত্রীকে প্রকাশ্যে অপহরণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার বেলা পৌনে ১২টায় সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের বাদাঘাট সরকারি কলেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত যুবকের নাম মাহমুদুল হাসান নাঈম। সে উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের বারহাল গ্রামের জাকির হোসেন ওরফে ক্বারী মিয়ার ছেলে।

তাহিরপুর থানর ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদার জানান, নাঈমকে থানার বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়িতে আটক রাখা হয়েছে। তার ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

মঙ্গলবারের অপহরণ চেষ্টা ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক এসএসসি পরীক্ষার্থী ও বাদাঘাট সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা যুগান্তরকে জানান, ওই ছাত্রী বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় হতে চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। মঙ্গলবার পরীক্ষা শেষে কেন্দ্র থেকে বের হয়ে সহপাঠীদের সঙ্গে বাড়ি ফেরার পথে নাঈম জোরপূর্বক ওই ছাত্রীকে অটোরিকশায় তুলে নিয়ে অপহরণ চেষ্টা চালায়। তাদের চিৎকারে অন্য শিক্ষার্থীরা ভিকটিমকে উদ্ধার ও নাঈমকে আটক করে বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যদের হাতে তুলে দেন।

অপহরণ চেষ্টার একটি ভিডিও ফুটেজ পরীক্ষার্থী ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে এ নিয়ে চরম উত্তেজনা দেখা দেয়। অপহরণ চেষ্টাকারীর এবং তার সহযোগীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন সব শ্রেণি-পেশার মানুষ।

বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম দানু যুগান্তরকে বলেন, আমি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে অপহরণ চেষ্টাকারী ও তার সহযোগীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানাই।

অভিযুক্ত নাঈমের পিতা জাকির হোসেন এ ঘটনায় সব শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের কাছে ক্ষমা চেয়ে ছেলের অপকর্মের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. রায়হান কবির জানান, ঘটনাটি আমি জেনেছি। ভিকটিমের পরিবারকে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এসএসসি পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথে ছাত্রীকে অপহরণ চেষ্টা (ভিডিও)

 যুগান্তর প্রতিবেদন, তাহিরপুর 
২৩ নভেম্বর ২০২১, ০৮:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

এসএসসি পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার পথেই ছাত্রীকে প্রকাশ্যে অপহরণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে এক যুবকের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার বেলা পৌনে ১২টায় সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের বাদাঘাট সরকারি কলেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত যুবকের নাম মাহমুদুল হাসান নাঈম। সে উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের বারহাল গ্রামের জাকির হোসেন ওরফে ক্বারী মিয়ার ছেলে।

তাহিরপুর থানর ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদার জানান, নাঈমকে থানার বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়িতে আটক রাখা হয়েছে। তার ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

মঙ্গলবারের অপহরণ চেষ্টা ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক এসএসসি পরীক্ষার্থী ও বাদাঘাট সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা যুগান্তরকে জানান, ওই ছাত্রী বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয় হতে চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। মঙ্গলবার পরীক্ষা শেষে কেন্দ্র থেকে বের হয়ে সহপাঠীদের সঙ্গে বাড়ি ফেরার পথে নাঈম জোরপূর্বক ওই ছাত্রীকে অটোরিকশায় তুলে নিয়ে অপহরণ চেষ্টা চালায়। তাদের চিৎকারে অন্য শিক্ষার্থীরা ভিকটিমকে উদ্ধার ও নাঈমকে আটক করে বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যদের হাতে তুলে দেন।

অপহরণ চেষ্টার একটি ভিডিও ফুটেজ পরীক্ষার্থী ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে এ নিয়ে  চরম উত্তেজনা দেখা দেয়। অপহরণ চেষ্টাকারীর এবং তার সহযোগীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন সব শ্রেণি-পেশার মানুষ।

বাদাঘাট পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম দানু যুগান্তরকে বলেন, আমি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে অপহরণ চেষ্টাকারী ও তার সহযোগীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানাই।

অভিযুক্ত নাঈমের পিতা জাকির হোসেন এ ঘটনায় সব শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের কাছে ক্ষমা চেয়ে ছেলের অপকর্মের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. রায়হান কবির জানান, ঘটনাটি আমি জেনেছি। ভিকটিমের পরিবারকে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন