পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, বিএনপির ৫ শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা
jugantor
পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, বিএনপির ৫ শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

  বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি  

২৩ নভেম্বর ২০২১, ২২:৪১:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

নাটোর শহরের আলাইপুরে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনায় জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রহিম নেওয়াজসহ ১১৬ জনের নাম উল্লেখ করে পাঁচ শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে নাটোর সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। এদিকে এ ঘটনায় পুলিশ বিএনপির ৯ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে।

মামলার বাদী এসআই রফিকুল ইসলাম জানান, সোমবার সকালে শহরের আলাইপুরে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে দলের নেতাকর্মীরা বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এ সময় পুলিশের পক্ষ থেকে তাদের শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করতে বলা হলে নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং পুলিশকে ধাক্কা দেয়।

পরে পুলিশ লাঠিচার্জ শুরু করলে দলের নেতাকর্মীরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। এতে নাটোর সদর থানার ওসি মনসুর রহমান, যুগান্তরের নাটোর প্রতিনিধি শহিদুল হক সরকার, পুলিশ ও সাংবাদিকসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়। ওই ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে ১১৬ বিএনপি নেতাকর্মীর নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৪০০ জনের নামে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রহিম নেওয়াজসহ জেলা-উপজেলা পর্যায়ের বিভিন্ন নেতাকর্মীদের আসামি করা হয়েছে।

সূত্রে জানা গেছে, সংঘর্ষের পর নাটোর জেলা যুবদলের সভাপতি এ হাই তালুকদার ডালিম, বড়াইগ্রাম উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক শামছুল হক রনি, সাবেক উপমন্ত্রী রুহুল ক্দ্দুস তালুকদার দুলুর বাড়ির কেয়ারটেকার আইনুদ্দিন টুকু এবং জেলা বিএনপি কার্যালয়ের অফিস সহকারী আসলাম হোসেনকে আটক করে পুলিশ।

এছাড়াও সাবেক উপমন্ত্রী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিনকে সোমবার দুপুর থেকে নিজ বাড়িতে গৃহবন্দি রাখার পর ওইদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় তাকে মুক্ত করা হয় বলে বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।

এদিকে সংঘর্ষের পর থেকে এ পর্যন্ত জেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয় বন্ধ ছিল। কোনো নেতাকর্মীরা উপস্থিত হননি। গ্রেফতার এড়াতে তারা দলীয় কার্যালয়ে যাননি বলে সূত্র জানিয়েছে।

নাটোর সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবু সাদাদ জানান, এই ঘটনায় এ পর্যন্ত ৯ জন বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং বাকিদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এ বিষয়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক উপমন্ত্রী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু জানান, বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশ বিনা উস্কানিতে হামলা চালিয়েছে।

তিনি বলেন, পুলিশের সঙ্গে তো বিএনপির কোনো বিবাদ নাই। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। ওই কর্মসূচিতে হামলা চালিয়ে সাংবাদিকসহ তার দলের নেতাকর্মীদের আহত করা হয়েছে। তিনি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তবে কাকে কাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে এ বিষয়ে তিনি কিছু জানাতে পারেননি।

প্রসঙ্গত, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার উদ্দেশ্যে বিদেশ পাঠানোর দাবিতে জেলা বিএনপি আয়োজিত বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পুলিশ-বিএনপির সংঘর্ষে সাংবাদিক, পুলিশসহ অন্তত ২০ জন আহত হন। এ সময় লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল এবং ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, বিএনপির ৫ শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

 বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি 
২৩ নভেম্বর ২০২১, ১০:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নাটোর শহরের আলাইপুরে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনায় জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রহিম নেওয়াজসহ ১১৬ জনের নাম উল্লেখ করে পাঁচ শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে নাটোর সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। এদিকে এ ঘটনায় পুলিশ বিএনপির ৯ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে।

মামলার বাদী এসআই রফিকুল ইসলাম জানান, সোমবার সকালে শহরের আলাইপুরে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে দলের নেতাকর্মীরা বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এ সময় পুলিশের পক্ষ থেকে তাদের শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করতে বলা হলে নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং পুলিশকে ধাক্কা দেয়।

পরে পুলিশ লাঠিচার্জ শুরু করলে দলের নেতাকর্মীরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। এতে নাটোর সদর থানার ওসি মনসুর রহমান, যুগান্তরের নাটোর প্রতিনিধি শহিদুল হক সরকার, পুলিশ ও সাংবাদিকসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়। ওই ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে ১১৬ বিএনপি নেতাকর্মীর নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৪০০ জনের নামে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রহিম নেওয়াজসহ জেলা-উপজেলা পর্যায়ের বিভিন্ন নেতাকর্মীদের আসামি করা হয়েছে।

সূত্রে জানা গেছে, সংঘর্ষের পর নাটোর জেলা যুবদলের সভাপতি এ হাই তালুকদার ডালিম, বড়াইগ্রাম উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক শামছুল হক রনি, সাবেক উপমন্ত্রী রুহুল ক্দ্দুস তালুকদার দুলুর বাড়ির কেয়ারটেকার আইনুদ্দিন টুকু এবং জেলা বিএনপি কার্যালয়ের অফিস সহকারী আসলাম হোসেনকে আটক করে পুলিশ।

এছাড়াও সাবেক উপমন্ত্রী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিনকে সোমবার দুপুর থেকে নিজ বাড়িতে গৃহবন্দি রাখার পর ওইদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় তাকে মুক্ত করা হয় বলে বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।

এদিকে সংঘর্ষের পর থেকে এ পর্যন্ত জেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয় বন্ধ ছিল। কোনো নেতাকর্মীরা উপস্থিত হননি। গ্রেফতার এড়াতে তারা দলীয় কার্যালয়ে যাননি বলে সূত্র জানিয়েছে।

নাটোর সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবু সাদাদ জানান, এই ঘটনায় এ পর্যন্ত ৯ জন বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং বাকিদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এ বিষয়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক উপমন্ত্রী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু জানান, বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশ বিনা উস্কানিতে হামলা চালিয়েছে।

তিনি বলেন, পুলিশের সঙ্গে তো বিএনপির কোনো বিবাদ নাই। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে। ওই কর্মসূচিতে হামলা চালিয়ে সাংবাদিকসহ তার দলের নেতাকর্মীদের আহত করা হয়েছে। তিনি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তবে কাকে কাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে এ বিষয়ে তিনি কিছু জানাতে পারেননি।

প্রসঙ্গত, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার উদ্দেশ্যে বিদেশ পাঠানোর দাবিতে জেলা বিএনপি আয়োজিত বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পুলিশ-বিএনপির সংঘর্ষে সাংবাদিক, পুলিশসহ অন্তত ২০ জন আহত হন। এ সময় লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল এবং ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন