স্ত্রীর পর উপজেলা চেয়ারম্যান স্বামীকেও দল থেকে অব্যাহতির সুপারিশ
jugantor
স্ত্রীর পর উপজেলা চেয়ারম্যান স্বামীকেও দল থেকে অব্যাহতির সুপারিশ

  লালমনিরহাট প্রতিনিধি  

২৫ নভেম্বর ২০২১, ০০:৫৮:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমেদের স্ত্রী সাজেদা জামানকে তুষভান্ডার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় দল থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

পাশাপাশি নৌকার বিপক্ষে গিয়ে স্ত্রীর পক্ষে কাজ করায় স্বামী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও কালীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমদকেও দল থেকে অব্যাহতি দিতে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ বরাবর চিঠি পাঠানো হয়েছে।

সাজেদা কালীগঞ্জ উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। মাহবুবুজ্জামান আহমেদ সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ও লালমনিরহাট-২ (কালীগঞ্জ-আদিতমারী) আসনের এমপি নুরুজ্জামান আহমেদের ছোটভাই।

তবে বুধবার সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অব্যাহতি সংক্রান্ত কোনো চিঠি পাননি বলে জানিয়েছেন মাহবুবুজ্জামান আহমেদ।

এদিকে অব্যাহতি সংক্রান্ত চিঠি পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক মেহেদি হাসান যুগন্তরকে বলেন, বুধবার পর্যন্ত বিদ্রোহী প্রার্থীসহ কালীগঞ্জে ৯ জন ও লালমনিরহাট সদরে ৭ জনকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এর মধ্যে কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমেদ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হওয়ায় তাকে অব্যাহতি দিতে কেন্দ্রীয় কমিটিতে চিঠি পাঠানো হয়েছে। বাকিদের জেলা কমিটির মাধ্যমে বহিষ্কার করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

অন্যদিকে মাহবুবুজ্জামান আহমেদকে পাঠানো জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে গঠনতন্ত্রের ৪৭ ধারা উল্লেখ করে বলা হয়েছে— দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে তুষভান্ডার ইউনিয়নে সাজেদা জামান মোটরসাইকেল প্রতীকে নির্বাচন করছেন; যা গঠনতন্ত্র মোতাবেক শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ফলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সম্মানিত সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের মহোদয়ের নির্দেশনা মোতাবেক আপনাকে লালমনিরহাট জেলা শাখার সহ-সভাপতি পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান করত প্রয়োজনীয় সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ বরাবর প্রেরণ করা হলো।

তবে সাজেদা জামানসহ অন্যরা জেলা কমিটির আওতায় থাকায় তাদের দেওয়া চিঠিতে পদ বাতিলসহ সংগঠন থেকে বহিষ্কারের কথা উল্লেখ করা হয়েছে লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত চিঠিগুলোতে।

প্রসঙ্গত, আগামী ২৮ নভেম্বর লালমনিরহাট সদরে ও কালীগঞ্জ উপজেলার ইউনিয়নগুলোতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই বিদ্রোহী প্রার্থীসহ তাদের সহযোগীদের আওয়ামী লীগ থেকে অব্যাহতির সংখ্যা বাড়ছে।

স্ত্রীর পর উপজেলা চেয়ারম্যান স্বামীকেও দল থেকে অব্যাহতির সুপারিশ

 লালমনিরহাট প্রতিনিধি 
২৫ নভেম্বর ২০২১, ১২:৫৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমেদের স্ত্রী সাজেদা জামানকে তুষভান্ডার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় দল থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

পাশাপাশি নৌকার বিপক্ষে গিয়ে স্ত্রীর পক্ষে কাজ করায় স্বামী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও কালীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমদকেও দল থেকে অব্যাহতি দিতে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ বরাবর চিঠি পাঠানো হয়েছে।

সাজেদা কালীগঞ্জ উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। মাহবুবুজ্জামান আহমেদ সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ও লালমনিরহাট-২ (কালীগঞ্জ-আদিতমারী) আসনের এমপি নুরুজ্জামান আহমেদের ছোটভাই।

তবে বুধবার সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অব্যাহতি সংক্রান্ত কোনো চিঠি পাননি বলে জানিয়েছেন মাহবুবুজ্জামান আহমেদ।

এদিকে অব্যাহতি সংক্রান্ত চিঠি পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক মেহেদি হাসান যুগন্তরকে বলেন, বুধবার পর্যন্ত বিদ্রোহী প্রার্থীসহ কালীগঞ্জে ৯ জন ও লালমনিরহাট সদরে ৭ জনকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এর মধ্যে কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মাহবুবুজ্জামান আহমেদ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হওয়ায় তাকে অব্যাহতি দিতে কেন্দ্রীয় কমিটিতে চিঠি পাঠানো হয়েছে। বাকিদের জেলা কমিটির মাধ্যমে বহিষ্কার করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

অন্যদিকে মাহবুবুজ্জামান আহমেদকে পাঠানো জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে গঠনতন্ত্রের ৪৭ ধারা উল্লেখ করে বলা হয়েছে— দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে তুষভান্ডার ইউনিয়নে সাজেদা জামান মোটরসাইকেল প্রতীকে নির্বাচন করছেন; যা গঠনতন্ত্র মোতাবেক শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ফলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সম্মানিত সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের মহোদয়ের নির্দেশনা মোতাবেক আপনাকে লালমনিরহাট জেলা শাখার সহ-সভাপতি পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান করত প্রয়োজনীয় সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ বরাবর প্রেরণ করা হলো।

তবে সাজেদা জামানসহ অন্যরা জেলা কমিটির আওতায় থাকায় তাদের দেওয়া চিঠিতে পদ বাতিলসহ সংগঠন থেকে বহিষ্কারের কথা উল্লেখ করা হয়েছে লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত চিঠিগুলোতে।

প্রসঙ্গত, আগামী ২৮ নভেম্বর লালমনিরহাট সদরে ও কালীগঞ্জ উপজেলার ইউনিয়নগুলোতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই বিদ্রোহী প্রার্থীসহ তাদের সহযোগীদের আওয়ামী লীগ থেকে অব্যাহতির সংখ্যা বাড়ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন