ফেসবুক লাইভে আত্মহত্যা, দুই মাস পর ভিডিও উদ্ধার
jugantor
ফেসবুক লাইভে আত্মহত্যা, দুই মাস পর ভিডিও উদ্ধার

  পূবাইল ও পূর্বাচল গাজীপুর প্রতিনিধি  

২৬ নভেম্বর ২০২১, ০০:১৭:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরীর পূবাইল মেট্রোপলিটন থানার ৪১নং ওয়ার্ডের নয়ানী পাড়ায় চলতি বছরের ২১ সেপ্টেম্বর রাতে স্বপন কুমার দাস ফেসবুক লাইভে ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেন।

দুই মাস পর মৃত্যুর আগে তার ভেরিফায়েড আইডি থেকে ফেসবুক বন্ধুদের উদ্দেশে ভিডিও লাইভে বলে যাওয়া প্রায় ২৯ মিনিটের একটি ভিডিও ক্লিপ স্বপনের পরিবারের কাছে হস্থান্তর করেছে পূবাইল থানা পুলিশ।

অবশেষে স্বপনের স্ত্রী রিনা রানি দাস বাদী হয়ে আনোয়ারের বিরুদ্ধে হত্যায় প্ররোচনায় অভিযোগ এনে মামলা করেছে শনিবার রাতে।

মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শাহ আলম মোল্লা যুগান্তরকে জানান মামলা হয়েছে আসামি গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

২১ সেপ্টেম্বর রাতে ফেসবুক লাইভে ফাঁসিতে ঝুলে স্বপন দাস মারা গেলে সারা দেশে ব্যাপকভাবে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। কিন্তু প্রকৃত ঘটনা ধামাচাপা দিতে একটি মহল ষড়যন্ত্রের জাল বুনে দুই মাস অতিবাহিত করে। শেষ পর্যন্ত ৫ দিন আগে শনিবার পূবাইল থানায় একটি হত্যায় প্ররোচনায় অভিযোগ এনে মামলা হয়।

ওই সময় মৃত স্বপনের মোবাইল পুলিশ উদ্ধার করলেও জব্দ তালিকায় আসেনি। তাই সেই সময় লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত করে অপমৃত্যু মামলা হয় পূবাইল থানায়। আনোয়ারসহ তার সিন্ডিকেটের সবাই কিছুদিন পলাতক থেকে পরে এলাকায় এসে স্বপনের পরিবারের বিরুদ্ধে উলটো সমিতির টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তোলে। ২৩ সেপ্টেম্বর দৈনিক যুগান্তরে একটি তথ্যবহল সংবাদ প্রকাশিত হয়।

ফেসবুক লাইভে আত্মহত্যা, দুই মাস পর ভিডিও উদ্ধার

 পূবাইল ও পূর্বাচল গাজীপুর প্রতিনিধি 
২৬ নভেম্বর ২০২১, ১২:১৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুর মহানগরীর পূবাইল মেট্রোপলিটন থানার ৪১নং ওয়ার্ডের নয়ানী পাড়ায় চলতি বছরের ২১ সেপ্টেম্বর রাতে স্বপন কুমার দাস ফেসবুক লাইভে ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেন।

দুই মাস পর মৃত্যুর আগে তার ভেরিফায়েড আইডি থেকে ফেসবুক বন্ধুদের উদ্দেশে ভিডিও লাইভে বলে যাওয়া প্রায় ২৯ মিনিটের একটি ভিডিও ক্লিপ স্বপনের পরিবারের কাছে হস্থান্তর করেছে পূবাইল থানা পুলিশ।

অবশেষে স্বপনের স্ত্রী রিনা রানি দাস বাদী হয়ে আনোয়ারের বিরুদ্ধে হত্যায় প্ররোচনায় অভিযোগ এনে মামলা করেছে শনিবার রাতে।

মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শাহ আলম মোল্লা যুগান্তরকে জানান মামলা হয়েছে আসামি গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

২১ সেপ্টেম্বর রাতে ফেসবুক লাইভে ফাঁসিতে ঝুলে স্বপন দাস মারা গেলে সারা দেশে ব্যাপকভাবে তোলপাড় সৃষ্টি  হয়। কিন্তু  প্রকৃত ঘটনা ধামাচাপা দিতে একটি মহল ষড়যন্ত্রের জাল বুনে দুই মাস অতিবাহিত করে। শেষ পর্যন্ত ৫ দিন আগে শনিবার পূবাইল থানায় একটি হত্যায় প্ররোচনায় অভিযোগ এনে মামলা হয়।

ওই সময় মৃত স্বপনের মোবাইল পুলিশ উদ্ধার করলেও জব্দ তালিকায় আসেনি। তাই সেই সময় লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত করে অপমৃত্যু মামলা হয় পূবাইল থানায়। আনোয়ারসহ তার সিন্ডিকেটের সবাই কিছুদিন পলাতক থেকে পরে এলাকায় এসে স্বপনের পরিবারের বিরুদ্ধে উলটো সমিতির টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তোলে। ২৩ সেপ্টেম্বর দৈনিক যুগান্তরে একটি তথ্যবহল সংবাদ প্রকাশিত হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন