যুবলীগ নেতা হত্যার ঘটনায় বিক্ষোভ, আটক ১
jugantor
যুবলীগ নেতা হত্যার ঘটনায় বিক্ষোভ, আটক ১

  যুগান্তর প্রতিবেদন, ভোলা  

২৭ নভেম্বর ২০২১, ১৯:৫৯:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলায় নির্বাচনপরবর্তী সহিংসতায় প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত যুবলীগ নেতা খোরশেদ আলম টিটুর হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে এলাকাবাসী পুলিশ সুপারের কার্যালয় ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছেন।

শুক্রবার রাতে নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন নান্নুর নেতৃত্বে এই ঘেরাও ও বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। এ সময় তারা হত্যাকাণ্ডে জড়িত পরাজিত স্বতন্ত্র প্রার্থী জামাল উদ্দিনসহ জড়িত অন্যদের গ্রেফতারের দাবি জানান।

এদিকে ভোলা থানার ওসি এনায়েত হোসেন জানিয়েছেন, রাতেই এ ঘটনায় ১৬ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৩-৪ জনকে আসামি করে ভোলা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এদের মধ্যে আবুল বাশার নামের এক আসামিকে গ্রেফতার ও একটি স্পিডবোট জব্দ করা হয়েছে বলেও জানান ওসি।

গ্রেফতারকৃত আবুল বাশারকে শনিবার আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ভোলার দৌলতখান উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা নিবার্চনপরবর্তী কর্মীদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। মদনপুর থেকে দুপুরের খাবার খেয়ে ফেরার পথে মাঝনদীতে তাদের ওপর এলোপাতাড়ি গুলি চালায় পরাজিত প্রার্থীর লোকজন। এ সময় ট্রলারে থাকা খোরশেদ আলম টিটু গুলিবিদ্ধ হন। তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ট্রলারে ছিলেন- নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান একেএম নাছির উদ্দিন নান্নু, ইউপি সদস্য মো. হেলাল, আবদুল খালেক, মো. ইউসুফসহ নেতাকর্মীরা।

ভোলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, নিহতের ঘটনায় ইতোমধ্যে একজনকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাকি আসামিদেরও গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

যুবলীগ নেতা হত্যার ঘটনায় বিক্ষোভ, আটক ১

 যুগান্তর প্রতিবেদন, ভোলা 
২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলায় নির্বাচনপরবর্তী সহিংসতায় প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত যুবলীগ নেতা খোরশেদ আলম টিটুর হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে এলাকাবাসী পুলিশ সুপারের কার্যালয় ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছেন।

শুক্রবার রাতে নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন নান্নুর নেতৃত্বে এই ঘেরাও ও বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। এ সময় তারা হত্যাকাণ্ডে জড়িত পরাজিত স্বতন্ত্র প্রার্থী জামাল উদ্দিনসহ জড়িত অন্যদের গ্রেফতারের দাবি জানান।

এদিকে ভোলা থানার ওসি এনায়েত হোসেন জানিয়েছেন, রাতেই এ ঘটনায় ১৬ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৩-৪ জনকে আসামি করে ভোলা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এদের মধ্যে আবুল বাশার নামের এক আসামিকে গ্রেফতার ও একটি স্পিডবোট জব্দ করা হয়েছে বলেও জানান ওসি। 

গ্রেফতারকৃত আবুল বাশারকে শনিবার আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ভোলার দৌলতখান উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যরা নিবার্চনপরবর্তী কর্মীদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। মদনপুর থেকে দুপুরের খাবার খেয়ে ফেরার পথে মাঝনদীতে তাদের ওপর এলোপাতাড়ি গুলি চালায় পরাজিত প্রার্থীর লোকজন। এ সময় ট্রলারে থাকা খোরশেদ আলম টিটু গুলিবিদ্ধ হন। তাকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ট্রলারে ছিলেন- নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান একেএম নাছির উদ্দিন নান্নু, ইউপি সদস্য মো. হেলাল, আবদুল খালেক, মো. ইউসুফসহ নেতাকর্মীরা।  

ভোলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, নিহতের ঘটনায় ইতোমধ্যে একজনকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাকি আসামিদেরও গ্রেফতারে অভিযান চলছে। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন