দরিদ্র এতিম ছাত্রকে ল্যাপটপ দিলেন কৃষি কর্মকর্তা
jugantor
দরিদ্র এতিম ছাত্রকে ল্যাপটপ দিলেন কৃষি কর্মকর্তা

  বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি  

২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪:৪৭:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

দরিদ্র এতিম ছাত্রকে ল্যাপটপ দিলেন কৃষি কর্মকর্তা

রাজশাহীর বাঘা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিউল্লাহ সুলতান তার নিজস্ব অর্থায়নে এক দরিদ্র ছাত্রকে ল্যাপটপ উপহার দিয়েছেন।

রোববার দুপুরে এই ল্যাপটপ উপহার হিসেবে প্রদান করা হয়। দুলাল হোসেন বাঘা শাহদৌলা সরকারি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অনার্সের ছাত্র।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৩ বছর আগে দুলাল হোসেন তার পিতামাতাকে হারিয়েছে। তিনি কৃষিকাজ ও বাজারের বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে কর্মচারী হিসেবে কাজ করে পড়ালেখা চালিয়ে যাচ্ছেন। আধুনিক প্রযুক্তির অভাব ও দারিদ্র্যতার মধ্যে তার স্বপ্ন ছিল একটি কম্পিউটারের। কিন্তু অর্থের অভাবে কিনতে পারছিলেন না তিনি।

হটাৎ একদিন চা খেতে এসে মেধাবী দুলাল হোসেনের কষ্টের কথা চা-কফি হাউসের মালিক বাদশা আলমের কাছে জানতে পারেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা। পরে তার সঙ্গে কথা বলে রোববার দুপুরে বাদশা কফি হাউস চত্বরে দুলাল হোসেনের হাতে তুলে দেওয়া হয় ব্যাগসহ ল্যাপটপ। এ সময় ল্যাপটপ পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন দুলাল হোসেন।

এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রকৌশলী রতন কুমার ফৌজদার, সমাজ সেবা অফিসার আরিফুল ইসলাম, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় অফিসার ইমরান আলী, আনসার-ভিডিপি অফিসার মিলন কুমার দাস, কৃষিবিদ কামরুল ইসলাম প্রমুখ।

দরিদ্র এতিম ছাত্রকে ল্যাপটপ দিলেন কৃষি কর্মকর্তা

 বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি 
২৯ নভেম্বর ২০২১, ০২:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
দরিদ্র এতিম ছাত্রকে ল্যাপটপ দিলেন কৃষি কর্মকর্তা
ছবি: যুগান্তর

রাজশাহীর বাঘা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিউল্লাহ সুলতান তার নিজস্ব অর্থায়নে এক দরিদ্র ছাত্রকে ল্যাপটপ উপহার দিয়েছেন।

রোববার দুপুরে এই ল্যাপটপ উপহার হিসেবে প্রদান করা হয়। দুলাল হোসেন বাঘা শাহদৌলা সরকারি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অনার্সের ছাত্র।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৩ বছর আগে দুলাল হোসেন তার পিতামাতাকে হারিয়েছে। তিনি কৃষিকাজ ও বাজারের বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে কর্মচারী হিসেবে কাজ করে পড়ালেখা চালিয়ে যাচ্ছেন। আধুনিক প্রযুক্তির অভাব ও দারিদ্র্যতার মধ্যে তার স্বপ্ন ছিল একটি কম্পিউটারের। কিন্তু অর্থের অভাবে কিনতে পারছিলেন না তিনি।

হটাৎ একদিন চা খেতে এসে মেধাবী দুলাল হোসেনের কষ্টের কথা চা-কফি হাউসের মালিক বাদশা আলমের কাছে জানতে পারেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা। পরে তার সঙ্গে কথা বলে রোববার দুপুরে বাদশা কফি হাউস চত্বরে দুলাল হোসেনের হাতে তুলে দেওয়া হয় ব্যাগসহ ল্যাপটপ। এ সময় ল্যাপটপ পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন দুলাল হোসেন।

এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রকৌশলী রতন কুমার ফৌজদার, সমাজ সেবা অফিসার আরিফুল ইসলাম, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় অফিসার ইমরান আলী, আনসার-ভিডিপি অফিসার মিলন কুমার দাস, কৃষিবিদ কামরুল ইসলাম প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন