আ.লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী পেলেন ১২০ ভোট
jugantor
আ.লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী পেলেন ১২০ ভোট

  কাউখালী (পিরোজপুর) প্রতিনিধি  

২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৫:০৫:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

আ.লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী পেলেন ১২০ ভোট

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার সয়না রঘুনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী এইচএমআরকে খোকন পেয়েছেন মাত্র ১২০ ভোট।

ওই ইউনিয়নে সাত হাজার ৬০ ভোটের মধ্যে মাত্র ১২০ ভোট পেয়ে স্মরণকালের জামানাত হারালেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী খোকন।

ওই ইউনিয়নে দুই হাজার ৬৪৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু সাঈদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির (জেপি) বর্তমান চেয়ারম্যান এলিজা সাঈদ পেয়েছেন দুই হাজার ২৯৯ ভোট।

আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী এইচএমআরকে খোকন বলেন, আমি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএমএ আউয়ালের অনুসারী। আউয়ালবিরোধীরা আমার বিরুদ্ধে কাজ করেছেন। বর্তমান চেয়ারম্যান জেপি প্রার্থী এলিজা সাঈদকে হারাতে গিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে যান। এ কারণে আমি কম ভোট পেয়েছি।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান তালুকদার বলেন, সয়না রঘুনাথপুর ইউপি বিএনপির অধ্যুষিত এলাকা হওয়ায় এবং আওয়ামী লীগের প্রার্থী দুর্বল হওয়ায় ভোট কম পেয়েছেন। আমরা কেন্দ্রে পাঠানো তালিকায় কাজী রফিকুল ইসলামের নাম প্রথম পাঠিয়েছিলাম। খোকনের নাম ছিল দ্বিতীয়। কিন্তু দল কাজী রফিকুল ইসলামকে মনোনয়ন না দিয়ে খোকনকে মনোনয়ন দেন। এ কারণে তিনি হেরে যান।

২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত সয়না রঘুনাথপুর ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন জাতীয় পার্টির (জেপি) প্রার্থী আবু সাঈদ।

২০১৯ সালে আবু সাঈদ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান হন তার স্ত্রী এলিজা সাঈদ। এ বছর আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এইচএমআরকে খোকন।

আ.লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী পেলেন ১২০ ভোট

 কাউখালী (পিরোজপুর) প্রতিনিধি 
২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৩:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আ.লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী পেলেন ১২০ ভোট
ছবি: সংগৃহীত

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার সয়না রঘুনাথপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী এইচএমআরকে খোকন পেয়েছেন মাত্র ১২০ ভোট।

ওই ইউনিয়নে সাত হাজার ৬০ ভোটের মধ্যে মাত্র ১২০ ভোট পেয়ে স্মরণকালের জামানাত হারালেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী খোকন।

ওই ইউনিয়নে দুই হাজার ৬৪৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু সাঈদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির (জেপি) বর্তমান চেয়ারম্যান এলিজা সাঈদ পেয়েছেন দুই হাজার ২৯৯ ভোট।

আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী এইচএমআরকে খোকন বলেন, আমি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএমএ আউয়ালের অনুসারী। আউয়ালবিরোধীরা আমার বিরুদ্ধে কাজ করেছেন। বর্তমান চেয়ারম্যান জেপি প্রার্থী এলিজা সাঈদকে হারাতে গিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে যান। এ কারণে আমি কম ভোট পেয়েছি।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান তালুকদার বলেন, সয়না রঘুনাথপুর ইউপি বিএনপির অধ্যুষিত এলাকা হওয়ায় এবং আওয়ামী লীগের প্রার্থী দুর্বল হওয়ায় ভোট কম পেয়েছেন। আমরা কেন্দ্রে পাঠানো তালিকায় কাজী রফিকুল ইসলামের নাম প্রথম পাঠিয়েছিলাম। খোকনের নাম ছিল দ্বিতীয়। কিন্তু দল কাজী রফিকুল ইসলামকে মনোনয়ন না দিয়ে খোকনকে মনোনয়ন দেন। এ কারণে তিনি হেরে যান।

২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত সয়না রঘুনাথপুর ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন জাতীয় পার্টির (জেপি) প্রার্থী আবু সাঈদ।

২০১৯ সালে আবু সাঈদ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান হন তার স্ত্রী এলিজা সাঈদ। এ বছর আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এইচএমআরকে খোকন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন