সাংবাদিকদের ওপর হামলায় চেয়ারম্যানসহ ৬০ জনের নামে মামলা
jugantor
সাংবাদিকদের ওপর হামলায় চেয়ারম্যানসহ ৬০ জনের নামে মামলা

  রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি  

২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৯:৫০:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে সংবাদ সংগ্রহের সময় সাংবাদিক ও ক্যামেরা পারসনসহ ৪ জনের ওপর হামলা হয়েছে। এ সময় তাদের গাড়ি ভাংচুর করাসহ ক্যামেরার যন্ত্রপাতি নিয়ে যাওয়াসহ ক্ষতি সাধন করেছে। এ ঘটনায় চেয়ারম্যানসহ ৬০ জনের নামে মামলা নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রোববার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ চরআবাবিল ইউপির ৯নং ওয়ার্ডের উদমারা গ্রামে। ওই সময় হামলার নির্দেশদাতা নৌকাপ্রার্থী হাওলাদার নূরে আলম জিকুসহ দুইজনকে আটক করলেও পরে ছেড়ে দেয় দায়িত্বরত পুলিশ। এ সংক্রান্ত ফাঁস হওয়া একটি ফোনালাপে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

আহতরা হলেন- এসএ টিভির স্টাফ রিপোর্টার মাহফুজুর রহমান শুভ, ক্যামেরা পারসন ইসমাইল হোসেন বিপ্লব, চালক দেলোয়ার হোসেন, জাতীয় পার্টির কর্মী মো. জসিম ও মো. সাইফুল। আহতরা সবাই রায়পুর সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

সোমবার দুপুরে মাহফুজুর রহমান শুভ বাদী হয়ে দক্ষিণ চরআবাবিল ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান হাওলাদার নুরে আলম জিকু (৪৫), তার কর্মী ফরিদগঞ্জ উপজেলার চরদুখিয়া পূর্ব ইউনিয়নের লড়াইরচর গ্রামের আলফাজ উদ্দিনের ছেলে মো. রিপন (২৫), মো. মিশর (৩০) ও মো. জুয়েলসহ (৩৫)রায়পুরের পার্শ্ববর্তী ফরিদগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের অজ্ঞাত ৬০ জন ব্যক্তির নামে রায়পুর থানায় মামলা করেছেন।

মামলার এজাহারে জানা যায়, রোববার দুপুরে দক্ষিণ চরআবাবিল ইউপির ৯নং ওয়ার্ডে একটি কেন্দ্রে জাল ভোট দেয়া হচ্ছে। এমন সংবাদ পেয়ে এসএটিভির রিপোর্টার শুভ মাহফুজ ও ক্যামেরা পারসন ইসমাইল হোসেন বিপ্লব ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী হাওলাদার নুরে আলম জিকুর নির্দেশে ১০-১২ জন দুর্বৃত্ত হামলা চালায়। এতে আহত হয় সাংবাদিক শুভসহ ৪ জন। এ সময় ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয়াসহ গাড়ি ভাংচুর করে জিকুর সমর্থকরা।

দক্ষিণ চরআবাবিল ইউপির নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা হাওলাদার নুরে আলম জিকু যুগান্তরকে বলেন, তাদের সঙ্গে সাংবাদিকের কোনো পরিচয়পত্র ছিল না। তাদের গাড়িতে স্টিকার ছিল বরিশালের। ভুল বুঝাবুঝির কারণে এ সমস্যার সৃষ্টি হয়। তাছাড়া আমি কেন্দ্রে ছিলাম না।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল যুগান্তরকে বলেন, নির্বাচনের দিন সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় চেয়ারম্যানসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৫০-৬০ জনের নামে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

সাংবাদিকদের ওপর হামলায় চেয়ারম্যানসহ ৬০ জনের নামে মামলা

 রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি 
২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে সংবাদ সংগ্রহের সময় সাংবাদিক ও ক্যামেরা পারসনসহ ৪ জনের ওপর হামলা হয়েছে। এ সময় তাদের গাড়ি ভাংচুর করাসহ ক্যামেরার যন্ত্রপাতি নিয়ে যাওয়াসহ ক্ষতি সাধন করেছে। এ ঘটনায় চেয়ারম্যানসহ ৬০ জনের নামে মামলা নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রোববার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ চরআবাবিল ইউপির ৯নং ওয়ার্ডের উদমারা গ্রামে। ওই সময় হামলার নির্দেশদাতা নৌকাপ্রার্থী হাওলাদার নূরে আলম জিকুসহ দুইজনকে আটক করলেও পরে ছেড়ে দেয় দায়িত্বরত পুলিশ। এ সংক্রান্ত ফাঁস হওয়া একটি ফোনালাপে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

আহতরা হলেন- এসএ টিভির স্টাফ রিপোর্টার মাহফুজুর রহমান শুভ, ক্যামেরা পারসন ইসমাইল হোসেন বিপ্লব, চালক দেলোয়ার হোসেন, জাতীয় পার্টির কর্মী মো. জসিম ও মো. সাইফুল। আহতরা সবাই রায়পুর সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

সোমবার দুপুরে মাহফুজুর রহমান শুভ বাদী হয়ে দক্ষিণ চরআবাবিল ইউপির নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান হাওলাদার নুরে আলম জিকু (৪৫), তার কর্মী ফরিদগঞ্জ উপজেলার চরদুখিয়া পূর্ব ইউনিয়নের লড়াইরচর গ্রামের আলফাজ উদ্দিনের ছেলে মো. রিপন (২৫), মো. মিশর (৩০) ও মো. জুয়েলসহ (৩৫)রায়পুরের পার্শ্ববর্তী ফরিদগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের অজ্ঞাত ৬০ জন ব্যক্তির নামে রায়পুর থানায় মামলা করেছেন।

মামলার এজাহারে জানা যায়, রোববার দুপুরে দক্ষিণ চরআবাবিল ইউপির ৯নং ওয়ার্ডে একটি কেন্দ্রে জাল ভোট দেয়া হচ্ছে। এমন সংবাদ পেয়ে এসএটিভির রিপোর্টার শুভ মাহফুজ ও ক্যামেরা পারসন ইসমাইল হোসেন বিপ্লব ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী হাওলাদার নুরে আলম জিকুর নির্দেশে ১০-১২ জন দুর্বৃত্ত হামলা চালায়। এতে আহত হয় সাংবাদিক শুভসহ ৪ জন। এ সময় ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয়াসহ গাড়ি ভাংচুর করে জিকুর সমর্থকরা।

দক্ষিণ চরআবাবিল ইউপির নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা হাওলাদার নুরে আলম জিকু যুগান্তরকে বলেন, তাদের সঙ্গে সাংবাদিকের কোনো পরিচয়পত্র ছিল না। তাদের গাড়িতে স্টিকার ছিল বরিশালের। ভুল বুঝাবুঝির কারণে এ সমস্যার সৃষ্টি হয়। তাছাড়া আমি কেন্দ্রে ছিলাম না।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল যুগান্তরকে বলেন, নির্বাচনের দিন সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় চেয়ারম্যানসহ ৪ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ৫০-৬০ জনের নামে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন