ওসি ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতার ফোনালাপ ভাইরাল
jugantor
ওসি ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতার ফোনালাপ ভাইরাল

  নাজিরপুর (পিরোজপুর) প্রতিনিধি  

৩০ নভেম্বর ২০২১, ২০:১৭:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

পিরোজপুরের নাজিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতির ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ইউপি নির্বাচনে নৌকার পক্ষে প্রচারণা নিয়ে থানার ওসি মো. আশ্রাফুজ্জামান ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তানভীর হাসান ডালিমের মধ্যে ওই ফোনালাপ হয়। ৩ মিনিট ২৮ সেকেন্ডের ওই অডিওতে থানার ওসি ছাত্রলীগ নেতাকে ইউপি নির্বাচনে ঝামেলা না করতে নিষেধ করেন। এ সময় তিনি ওই ছাত্রলীগ নেতাকে নির্বাচনী এলাকার বাইরে না যেতে ও কোথাও ঝামেলা করলে দেখিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন। একপর্যায় ওসি ও ছাত্রলীগ নেতার মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয়।

এ সময় ওসি বলেন, ‘তুমি বিভিন্ন স্থানে গিয়ে গ্যাঞ্জাম করো, তুমি ওই ইউনিয়নের (দীর্ঘা) লোক না’। একপর্যায়ে তাকে তুই করে সম্বোধন করে বলা হয় ‘তুই প্রত্যেকবার ঝামেলা করো’। এতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে বলে ওসি দাবি করেন।

এ সময় তাকে (ডালিম) জিজ্ঞাসা করা হয়- তিনি দলের কোনো পদে আছেন কিনা? ডালিম জানান- তিনি উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। তবে নৌকার পক্ষে প্রচারণায় তিনি সেখানে (দীর্ঘা) গিয়েছেন।

জানা গেছে, গত শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) ওই অডিওটি যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মো. মাজহারুল ইসলামের ফেসবুক আইডিতে শেয়ার হয়। পরে তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়।

এ ব্যাপারে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তানভীর হাসান ডালিম বলেন, তিনি তখন নির্বাচনী প্রচারণায় গেলে ওসি তাকে ওই হুমকি প্রদান করেন।

তবে ওসি বলেন, তার বিরুদ্ধে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মেম্বার প্রার্থীরা নির্বাচনকে প্রভাবিত করার চেষ্টার অভিযোগ করেন। এছাড়া প্রথম ধাপের নির্বাচনে তিনি উপজেলার সদর ইউনিয়নের চিথলিয়া কেন্দ্রে ঝামেলা সৃষ্টি করেছেন। তাই সুষ্ঠু নির্বাচন করতে তাকে তার নিজ ইউনিয়ন ছাড়া অন্য কোথাও যেতে নিষেধ করা হয়েছে। কোনো হুমকি দেওয়া হয়নি।

এ ব্যাপার জানতে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা মো. আজাদ মোবাইল ফোনে বলেন, এ বিষয়টি নিয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছি না।

উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনে উপজেলার শাঁখারীকাঠী ইউনিয়নের ভাইজেলা কেন্দ্রে ওই ছাত্রলীগ নেতার নেতৃত্বে প্রকাশ্যে ভোট কাটার চিত্র তখন যুগান্তরসহ বিভিন্ন পত্রিকায় ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় শিরোনাম হয়। এছাড়া তার নেতৃত্বে গত ২০১১ সালে থানা ভাংচুর ও পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

ওসি ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতার ফোনালাপ ভাইরাল

 নাজিরপুর (পিরোজপুর) প্রতিনিধি 
৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৮:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পিরোজপুরের নাজিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতির ফোনালাপ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ইউপি নির্বাচনে নৌকার পক্ষে প্রচারণা নিয়ে থানার ওসি মো. আশ্রাফুজ্জামান ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তানভীর হাসান ডালিমের মধ্যে ওই ফোনালাপ হয়। ৩ মিনিট ২৮ সেকেন্ডের ওই অডিওতে থানার ওসি ছাত্রলীগ নেতাকে ইউপি নির্বাচনে ঝামেলা না করতে নিষেধ করেন। এ সময় তিনি ওই ছাত্রলীগ নেতাকে নির্বাচনী এলাকার বাইরে না যেতে ও কোথাও ঝামেলা করলে দেখিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন। একপর্যায় ওসি ও ছাত্রলীগ নেতার মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয়।

এ সময় ওসি বলেন, ‘তুমি বিভিন্ন  স্থানে গিয়ে গ্যাঞ্জাম করো, তুমি ওই ইউনিয়নের (দীর্ঘা) লোক না’। একপর্যায়ে তাকে তুই করে সম্বোধন করে বলা হয় ‘তুই প্রত্যেকবার ঝামেলা করো’। এতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে বলে ওসি দাবি করেন।

এ সময় তাকে (ডালিম) জিজ্ঞাসা করা হয়- তিনি দলের কোনো পদে আছেন কিনা? ডালিম জানান- তিনি উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। তবে নৌকার পক্ষে প্রচারণায় তিনি সেখানে (দীর্ঘা) গিয়েছেন।

জানা গেছে, গত শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) ওই অডিওটি যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মো. মাজহারুল ইসলামের ফেসবুক আইডিতে শেয়ার হয়। পরে তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়।

এ ব্যাপারে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা তানভীর হাসান ডালিম বলেন, তিনি তখন নির্বাচনী প্রচারণায় গেলে ওসি তাকে ওই হুমকি প্রদান করেন।

তবে ওসি বলেন, তার বিরুদ্ধে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও মেম্বার প্রার্থীরা নির্বাচনকে প্রভাবিত করার চেষ্টার অভিযোগ করেন। এছাড়া প্রথম ধাপের নির্বাচনে তিনি উপজেলার সদর ইউনিয়নের চিথলিয়া কেন্দ্রে ঝামেলা সৃষ্টি করেছেন। তাই সুষ্ঠু নির্বাচন করতে তাকে তার নিজ ইউনিয়ন ছাড়া অন্য কোথাও যেতে নিষেধ করা হয়েছে। কোনো হুমকি দেওয়া হয়নি।

এ ব্যাপার জানতে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা মো. আজাদ মোবাইল ফোনে বলেন, এ বিষয়টি নিয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছি না।

উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সালের ইউপি নির্বাচনে উপজেলার শাঁখারীকাঠী ইউনিয়নের ভাইজেলা কেন্দ্রে ওই ছাত্রলীগ নেতার নেতৃত্বে প্রকাশ্যে ভোট কাটার চিত্র তখন যুগান্তরসহ বিভিন্ন পত্রিকায় ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় শিরোনাম হয়। এছাড়া তার নেতৃত্বে গত ২০১১ সালে থানা ভাংচুর ও পুলিশের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন