আসামি ধরতে গিয়ে সড়কে প্রাণ গেল পুলিশ সদস্যের
jugantor
আসামি ধরতে গিয়ে সড়কে প্রাণ গেল পুলিশ সদস্যের

  মহেশখালী প্রতিনিধি  

০১ ডিসেম্বর ২০২১, ২১:৪৯:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

মহেশখালী থানা থেকে চট্টগ্রামে হত্যা মামলার আসামি ধরতে যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হওয়া পুলিশ কনস্টেবল সুমন মিয়ার মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ঢাকার কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

পুলিশ জানায়, গত ১৯ অক্টোবর মহেশখালী থানায় দায়ের হওয়া একটি হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার করতে ২১ নভেম্বর চট্টগ্রামের পটিয়ায় যাচ্ছিল মহেশখালী থানার একদল পুলিশ। এসআই আবু বক্কর ও এএসআই জসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে ওই পুলিশ দলে ছিলেন ২৭ বছর বয়সী পুলিশ কনস্টেবল সুমন মিয়া।

তাদের বহনকারী মাইক্রোবাসটি সড়কের সাতকানিয়া-কেরানীহাট রাস্তার মাথা এলাকায় পৌঁছলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের আইল্যান্ডে ধাক্কা লেগে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে মাইক্রোবাসটি ছিটকে পড়ে ড্রাইভারসহ সব পুলিশ সদস্যই আহত হন। আহতরা স্থানীয় আশ্ শোফা নামের একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিলেও কনস্টেবল সুমন মিয়ার আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাকে দ্রুত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

পরদিন তাকে নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকার রাজারবাগে পুলিশ হাসপাতালে। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। একপর্যায়ে তাকে হাসপাতালটির আইসিইউতে স্থানান্তর করার পর মঙ্গলবার দুপুরে ফের কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের আইসিওতে আনা হয়। এখানেই রাত সাড়ে ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই জানান, একটি আলোচিত হত্যা মামলার আসামি ধরতে গিয়ে পুলিশের গাড়ি দুর্ঘটনার শিকার হয়। এতে আরও ৬ জন পুলিশ সদস্য আহত হন। পুলিশ সদস্য সুমন মিয়া চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। কনস্টেবল সুমন মিয়ার বাড়ি নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানাধীন গাউছিয়ায়।

আসামি ধরতে গিয়ে সড়কে প্রাণ গেল পুলিশ সদস্যের

 মহেশখালী প্রতিনিধি 
০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মহেশখালী থানা থেকে চট্টগ্রামে হত্যা মামলার আসামি ধরতে যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হওয়া পুলিশ কনস্টেবল সুমন মিয়ার মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ঢাকার কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। 

পুলিশ জানায়, গত ১৯ অক্টোবর মহেশখালী থানায় দায়ের হওয়া একটি হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতার করতে ২১ নভেম্বর চট্টগ্রামের পটিয়ায় যাচ্ছিল মহেশখালী থানার একদল পুলিশ। এসআই আবু বক্কর ও এএসআই জসিম উদ্দিনের নেতৃত্বে ওই পুলিশ দলে ছিলেন ২৭ বছর বয়সী পুলিশ কনস্টেবল সুমন মিয়া। 

তাদের বহনকারী মাইক্রোবাসটি সড়কের সাতকানিয়া-কেরানীহাট রাস্তার মাথা এলাকায় পৌঁছলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের আইল্যান্ডে ধাক্কা লেগে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। এতে মাইক্রোবাসটি ছিটকে পড়ে ড্রাইভারসহ সব পুলিশ সদস্যই আহত হন। আহতরা স্থানীয় আশ্ শোফা নামের একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিলেও কনস্টেবল সুমন মিয়ার আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাকে দ্রুত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়। 

পরদিন তাকে নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকার রাজারবাগে পুলিশ হাসপাতালে। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। একপর্যায়ে তাকে হাসপাতালটির আইসিইউতে স্থানান্তর করার পর মঙ্গলবার দুপুরে ফের কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের আইসিওতে আনা হয়। এখানেই রাত সাড়ে ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়। 

মহেশখালী থানার ওসি আব্দুল হাই জানান, একটি আলোচিত হত্যা মামলার আসামি ধরতে গিয়ে পুলিশের গাড়ি দুর্ঘটনার শিকার হয়। এতে আরও ৬ জন পুলিশ সদস্য আহত হন। পুলিশ সদস্য সুমন মিয়া চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। কনস্টেবল সুমন মিয়ার বাড়ি নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানাধীন গাউছিয়ায়। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন