পিজাইডিং অফিসারকে হেনস্তার অভিযোগ
jugantor
পিজাইডিং অফিসারকে হেনস্তার অভিযোগ

  মুক্তাগাছা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০০:৪৮:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় সদ্যপ সমাপ্ত তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের ফলাফলকে কেন্দ্র করে নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী, পুলিং এজেন্ট ও সমর্থকদের উপর এক প্রিজাইডিং অফিসারকে হেনস্থা করার অভিযোগ উঠেছে।

নৌকার পুলিং এজেন্টকে গ্রেফতার করায় ক্ষিপ্ত হয়ে মঙ্গলবার দুপুরে চায়ের দোকানের ডেকে নিয়ে প্রিজাইডিং অফিসার সজলকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও হেনস্তা করেন, নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিকুজ্জামান সিদ্দিক, পুলিং এজেন্ট সাইফুল ইসলামসহ সমর্থকরা।

নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিকুজ্জামান সিদ্দিকের এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।

অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও হেনস্তা করায় ভূক্তভোগী পিজাইডিং অফিসার বুধবার রাতে মুক্তাগাছা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করেন মুক্তাগাছা থানার ওসি মাহমুদুল হাসান।

ভূক্তভোগী ও অভিযোগ সূত্রে জানা য়ায়, উপজেলার বড়গ্রাম ইউনিয়নের ২০ নং বিনোদবাড়ী মানকোন কেন্দ্রের পিজাইডিং অফিসার হিসাবে দ্বায়ীত্ব পালন করেন মুক্তাগাছা মহাবিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যািপক সজল। রোববার সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরু হলে নৌকার পুলিং এজেন্ট সাইফুল ইসলাম প্রতিনিয়ত ভোট কেন্দ্রের বাহিরে যাওয়া আসা করে আচরণবিধি লঙ্ঘন করতে থাকে যে কারণে তাকে পাঁচ মিনিটের জন্য আটক করে পুলিশ। পরবর্তীতে পিজাইডিং অফিসার এসে শর্তসাপেক্ষে তাকে ছেড়ে দিলে পুনরায় পোলিং এজেন্টের দায়িত্ব পালন করেন এবং ভোট গ্রহণ শেষে ভোট গণনায় অংশ গ্রহন করেন সাইফুল।

ঐ কেন্দ্রে নৌকা প্রথমস্থান অর্জন করলেও নৌকার প্রার্থী পরাজিত হলে ঐ পিজাইডিং অফিসারের উপর ক্ষোভ জমিয়ে রাখে নৌকার প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট। ব্যরক্তিগত কাজ শেষ করে বাড়ি ফেরার পথে সজলকে একলা পেয়ে চায়ের দোকানে ডেকে নিয়ে অপমান অপদস্থ করে চেয়ারম্যান প্রার্থী পোলিং এজেন্টও কর্মী-সমর্থকরা।

ভূক্তভোগী পিজাইডিং অফিসার সজল যুগান্তরকে জানান, আমার উপরে অর্পিত দায়িত্ব শতভাগ পালন করার চেষ্টা করেছি। বাড়ি ফেরার পথে চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিক পোলিং এজেন্ট সাইফুলসহ বেশ কয়েকজন কথ্য ভাষায় গালাগালি ও নানাভাবে হেনস্থা করে আমাকে। বিষয়টি ইউএনও, নির্বাচন অফিসকে অবগত করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছে। আশাকরি আমি ন্যায়বিচার পাব।

চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিকুজ্জামান সিদ্দিক জানান, আমি তাকে চা খাওয়ার জন্য ডাকছিলাম। তেমন কিছু ঘটেনি, উভয় পক্ষের মধ্যে একটু কথা কাটাকাটি হয়েছে মাত্র।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মনসুর যুগান্তরকে জানান, বিষয়টি শুনেছি, যেহেতু ভুক্তভোগী থানায় লিখত অভিযোগ দিয়েছেন। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মুক্তাগাছা থানার ওসি-মাহমুদুল হাসান যুগান্তরকে জানান, ভূক্তভোগী আমাদের কাছে লিখিত একটি অভিযোগ দিয়েছে। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পিজাইডিং অফিসারকে হেনস্তার অভিযোগ

 মুক্তাগাছা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৪৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় সদ্যপ সমাপ্ত তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের ফলাফলকে কেন্দ্র করে নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী, পুলিং এজেন্ট ও সমর্থকদের উপর এক প্রিজাইডিং অফিসারকে হেনস্থা করার অভিযোগ উঠেছে। 

নৌকার পুলিং এজেন্টকে গ্রেফতার করায় ক্ষিপ্ত হয়ে মঙ্গলবার দুপুরে চায়ের দোকানের ডেকে নিয়ে প্রিজাইডিং অফিসার সজলকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও হেনস্তা করেন, নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিকুজ্জামান সিদ্দিক, পুলিং এজেন্ট  সাইফুল ইসলামসহ সমর্থকরা।

নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিকুজ্জামান সিদ্দিকের এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।

অকথ্য ভাষায় গালাগালি ও হেনস্তা করায় ভূক্তভোগী পিজাইডিং অফিসার বুধবার রাতে মুক্তাগাছা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। 
অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করেন মুক্তাগাছা থানার ওসি মাহমুদুল হাসান।

ভূক্তভোগী ও অভিযোগ সূত্রে জানা য়ায়, উপজেলার বড়গ্রাম ইউনিয়নের ২০ নং বিনোদবাড়ী মানকোন কেন্দ্রের পিজাইডিং অফিসার হিসাবে দ্বায়ীত্ব পালন করেন মুক্তাগাছা মহাবিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যািপক সজল। রোববার সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরু হলে নৌকার পুলিং এজেন্ট সাইফুল ইসলাম প্রতিনিয়ত ভোট কেন্দ্রের বাহিরে যাওয়া আসা করে আচরণবিধি লঙ্ঘন করতে থাকে যে কারণে তাকে পাঁচ মিনিটের জন্য  আটক করে পুলিশ। পরবর্তীতে পিজাইডিং অফিসার এসে শর্তসাপেক্ষে তাকে ছেড়ে দিলে পুনরায় পোলিং এজেন্টের দায়িত্ব পালন করেন এবং ভোট গ্রহণ শেষে ভোট গণনায় অংশ গ্রহন করেন সাইফুল।

ঐ কেন্দ্রে নৌকা প্রথমস্থান অর্জন করলেও নৌকার প্রার্থী পরাজিত হলে ঐ পিজাইডিং অফিসারের উপর ক্ষোভ জমিয়ে রাখে নৌকার প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট। ব্যরক্তিগত কাজ শেষ করে বাড়ি ফেরার পথে সজলকে একলা পেয়ে চায়ের দোকানে ডেকে নিয়ে অপমান অপদস্থ করে চেয়ারম্যান প্রার্থী পোলিং এজেন্টও কর্মী-সমর্থকরা।

ভূক্তভোগী পিজাইডিং অফিসার সজল যুগান্তরকে জানান, আমার উপরে অর্পিত দায়িত্ব শতভাগ পালন করার চেষ্টা করেছি। বাড়ি ফেরার পথে চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিক পোলিং এজেন্ট সাইফুলসহ বেশ কয়েকজন কথ্য ভাষায় গালাগালি ও নানাভাবে হেনস্থা করে আমাকে। বিষয়টি ইউএনও, নির্বাচন অফিসকে অবগত করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছে। আশাকরি আমি ন্যায়বিচার পাব।

চেয়ারম্যান প্রার্থী সিদ্দিকুজ্জামান সিদ্দিক জানান, আমি তাকে চা খাওয়ার জন্য ডাকছিলাম। তেমন কিছু ঘটেনি, উভয় পক্ষের মধ্যে একটু কথা কাটাকাটি হয়েছে মাত্র।  
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মনসুর যুগান্তরকে জানান, বিষয়টি শুনেছি, যেহেতু ভুক্তভোগী থানায় লিখত অভিযোগ দিয়েছেন। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মুক্তাগাছা থানার ওসি-মাহমুদুল হাসান যুগান্তরকে জানান, ভূক্তভোগী আমাদের কাছে লিখিত একটি অভিযোগ দিয়েছে। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন