খেলনার প্রলোভনে শিশুকে যৌন নির্যাতন, অভিযুক্ত গ্রেফতার
jugantor
খেলনার প্রলোভনে শিশুকে যৌন নির্যাতন, অভিযুক্ত গ্রেফতার

  নাসিরনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি  

০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:১২:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে ভলাকূট ইউনিয়নে ৭ বছরের শিশুকে যৌন নির্যাতনের ঘটনা ঘঠেছে। এ ঘটনায় ভিকটিমের মা সালেহা বেগম বাদী হয়ে নাসিরনগর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন। একমাত্র অভিযুক্ত হাকিম মিয়া (৩০)কে আটক করেছে পুলিশ।

লিখিত এজাহার ও ভুক্তভোগীর পরিবারের সঙ্গেকথা বলে জানা যায়, ২৯ নভেম্বর বেলা আনুমানিক সাড়ে চারটার সময় ভলাকূট নদীর তীরে মেলাতে ঘুরতে যান যৌন নির্যাতনের শিকার ওই শিশু। এসময় একমাত্র অভিযুক্ত হাকিম মিয়া ভোক্তভোগী শিশুকে খেলনা কিনে দেয়ার কথা বলে নৌকাতে করে নদীর অপর পাড়ে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে ওই শিশুকে যৌন নির্যাতনের পর মেলাতে রেখে পালিয়ে যায় হাকিম। শিশুর কান্নাকাটিতে আশেপাশের লোকজন শিশুটিকে বাড়িতে নিয়ে আসে। পরে ওই শিশুর বায়ু পথে রক্তক্ষরণ হলে চিকিৎসার জন্য প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পর জেলা সদর হাসপতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে ওই শিশু জেলা সদর হাসপতালে চিকিৎসারত আছে।

মামলার বাদী ও ভিকটিমের মা সালেহা বেগম জানান, আমার ছেলে বর্তমানে হাসপতালে ভর্তি আছে। আমাদেরকে বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। আমরা এঘটনার সুষ্ঠ বিচার চাই।

নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুল্লা সরকার বলেন, এঘটনায় আমরা একজনকে গ্রেফতার করেছি। তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা হবে।

খেলনার প্রলোভনে শিশুকে যৌন নির্যাতন, অভিযুক্ত গ্রেফতার

 নাসিরনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি 
০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:১২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে ভলাকূট ইউনিয়নে ৭ বছরের শিশুকে যৌন নির্যাতনের ঘটনা ঘঠেছে। এ ঘটনায় ভিকটিমের মা সালেহা বেগম বাদী হয়ে নাসিরনগর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন। একমাত্র অভিযুক্ত হাকিম মিয়া (৩০)কে আটক করেছে পুলিশ। 

লিখিত এজাহার ও ভুক্তভোগীর পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২৯ নভেম্বর বেলা আনুমানিক সাড়ে চারটার সময় ভলাকূট নদীর তীরে মেলাতে ঘুরতে যান যৌন নির্যাতনের শিকার ওই শিশু। এসময় একমাত্র অভিযুক্ত হাকিম মিয়া ভোক্তভোগী শিশুকে খেলনা কিনে দেয়ার কথা বলে নৌকাতে করে নদীর অপর পাড়ে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে ওই শিশুকে যৌন নির্যাতনের পর মেলাতে রেখে পালিয়ে যায় হাকিম। শিশুর কান্নাকাটিতে আশেপাশের লোকজন শিশুটিকে বাড়িতে নিয়ে আসে। পরে ওই শিশুর বায়ু পথে রক্তক্ষরণ হলে চিকিৎসার জন্য প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পর জেলা সদর হাসপতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে ওই শিশু জেলা সদর হাসপতালে চিকিৎসারত আছে।

মামলার বাদী ও ভিকটিমের মা সালেহা বেগম জানান, আমার ছেলে বর্তমানে হাসপতালে ভর্তি আছে। আমাদেরকে বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। আমরা এঘটনার সুষ্ঠ বিচার চাই।

নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুল্লা সরকার বলেন, এঘটনায় আমরা একজনকে গ্রেফতার করেছি। তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন