১ কেজি ওজনের বিরল প্রজাতির কাঁকড়া
jugantor
১ কেজি ওজনের বিরল প্রজাতির কাঁকড়া

  যুগান্তর প্রতিবেদন ও কুয়াকাটা প্রতিনিধি  

০২ ডিসেম্বর ২০২১, ২২:৪৬:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

কুয়াকাটায় স্থানীয় জেলেদের জালে এক কেজি ওজনের বিরল প্রজাতির একটি বাদামি বা ধূসর রঙের কাঁকড়া ধরা পড়েছে। এরপর কুয়াকাটা সৈকতের বারবিকিউ বিক্রেতার হাত ঘুরে শৌখিন এক ক্রেতার হাতে ৯শ' টাকা মূল্যে বিক্রির খবর পাওয়া গেছে।

প্রায় এক কেজি ওজনের বাদামি রঙের ওই কাঁকড়াটি মঙ্গলবার ধরা পড়লেও স্থানীয় জেলে ও মৎস্য ব্যবসায়ীদের কৌতূহলের রেশ এখনো কাটেনি।

জানা গেছে, স্থানীয় জেলে নিজাম মাঝির ট্রলারে কাঁকড়াটি ধরা পড়ে। এরপর কুয়াকাটা সৈকতের বারবিকিউ ব্যবসায়ী বেল্লাল হোসেনের কাছে ৮শ' টাকায় বিক্রি করে দেয়। পরে অনেকের দৃষ্টি কাড়ে কাঁকড়াটি। এরই মধ্যে নাম না জানা এক শৌখিন ক্রেতা কাঁকড়াটি একশ টাকা মুনাফা দিয়ে বেল্লাল হোসেনের কাছ থেকে কিনে নেন বলে জানা গেছে।

বিরল প্রজাতির বাদামি রঙের কাঁকড়াটি সম্পর্কে কথা হয় বরিশালের মৎস্য অধিদপ্তরের সাসটেইনেবল কোস্টাল অ্যান্ড মেরিন ফিশারিজ প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক মো. কামরুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি যুগান্তরকে বলেন, কুয়াকাটায় জেলেদের জালে ধরা পড়া কাঁকড়াটি কিছুটা বাদামি বা ধূসর রংয়ের। এ কাঁকড়াটির বৈজ্ঞানিক নাম ব্ল্যাক মাড কাঁকড়া। এটি সাধারণত পানির গভীর স্তরে থাকে। তবে যেসব অঞ্চলে ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট রয়েছে সেসব অঞ্চলের সমুদ্রে এর দেখা মেলে। আমাদের দেশের জলসীমানায় এর খুব একটা দেখা মেলে না। ভারত মহাসাগরে এটি সচরাচর দেখা যায়। এটি সর্বোচ্চ তিন কেজি পর্যন্ত ওজনের হতে পারে। ছোট মাছ এবং জলের বিভিন্ন উদ্ভিদ খেয়ে এরা জীবন বাঁচায়।

১ কেজি ওজনের বিরল প্রজাতির কাঁকড়া

 যুগান্তর প্রতিবেদন ও কুয়াকাটা প্রতিনিধি 
০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুয়াকাটায় স্থানীয় জেলেদের জালে এক কেজি ওজনের বিরল প্রজাতির একটি বাদামি বা ধূসর রঙের কাঁকড়া ধরা পড়েছে। এরপর কুয়াকাটা সৈকতের বারবিকিউ বিক্রেতার হাত ঘুরে শৌখিন এক ক্রেতার হাতে ৯শ' টাকা মূল্যে বিক্রির খবর পাওয়া গেছে। 

প্রায় এক কেজি ওজনের বাদামি রঙের ওই কাঁকড়াটি মঙ্গলবার ধরা পড়লেও স্থানীয় জেলে ও মৎস্য ব্যবসায়ীদের কৌতূহলের রেশ এখনো কাটেনি।

জানা গেছে, স্থানীয় জেলে নিজাম মাঝির ট্রলারে কাঁকড়াটি ধরা পড়ে। এরপর কুয়াকাটা সৈকতের বারবিকিউ ব্যবসায়ী বেল্লাল হোসেনের কাছে ৮শ' টাকায় বিক্রি করে দেয়। পরে অনেকের দৃষ্টি কাড়ে কাঁকড়াটি। এরই মধ্যে নাম না জানা এক শৌখিন ক্রেতা কাঁকড়াটি একশ টাকা মুনাফা দিয়ে বেল্লাল হোসেনের কাছ থেকে কিনে নেন বলে জানা গেছে। 

বিরল প্রজাতির বাদামি রঙের কাঁকড়াটি সম্পর্কে কথা হয় বরিশালের মৎস্য অধিদপ্তরের সাসটেইনেবল কোস্টাল অ্যান্ড মেরিন ফিশারিজ প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক মো. কামরুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি যুগান্তরকে বলেন, কুয়াকাটায় জেলেদের জালে ধরা পড়া কাঁকড়াটি কিছুটা বাদামি বা ধূসর রংয়ের। এ কাঁকড়াটির বৈজ্ঞানিক নাম ব্ল্যাক মাড কাঁকড়া। এটি সাধারণত পানির গভীর স্তরে থাকে। তবে যেসব অঞ্চলে ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট রয়েছে সেসব অঞ্চলের সমুদ্রে এর দেখা মেলে। আমাদের দেশের জলসীমানায় এর খুব একটা দেখা মেলে না। ভারত মহাসাগরে এটি সচরাচর দেখা যায়। এটি সর্বোচ্চ তিন কেজি পর্যন্ত ওজনের হতে পারে। ছোট মাছ এবং জলের বিভিন্ন উদ্ভিদ খেয়ে এরা জীবন বাঁচায়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন