রাজশাহীর ইউনিয়নে ইউনিয়নে সহিংসতার আশঙ্কা
jugantor
আ.লীগের মনোনয়ন নিয়ে তীব্র অসন্তোষ
রাজশাহীর ইউনিয়নে ইউনিয়নে সহিংসতার আশঙ্কা

  রাজশাহী ব্যুরো  

০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৫:৪৫:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহীর ইউনিয়নে ইউনিয়নে সহিংসতার আশঙ্কা

রাজশাহীর বিভিন্ন ইউনিয়নে মনোনয়ন বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ, বাড়িতে অগ্নিসংযোগ দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। মনোনয়নকে কেন্দ্র করে দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দল চরম আকার ধারণ করেছে।


পুঠিয়ার বেলপুকুর ইউনিয়নে মনোনয়ন বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়েছে।

রাজশাহীর দুই উপজেলার ১৮ ইউনিয়নে নির্বাচন ৫ জানুয়ারি। ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগ এসব ইউনিয়নে মনোনীত দলীয় প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছে। তবে বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের প্রার্থী নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে কয়েকটি স্থানে। দাবি উঠেছে প্রার্থী বদলের।

এদিকে রাজশাহীর বাগমারায় এমপি ঘনিষ্ঠরা মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়ায় ইউনিয়নে ইউনিয়নে সহিংসতার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

শুক্রবার বিকালে মনোনয়ন প্রত্যাশী জিল্লুর রহমানের বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

বেলপুকুরে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি রাজিবুল হক।

এদিকে বেলপুকুর ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বদিউজ্জামানের সমর্থকরা শুক্রবার সন্ধ্যার পর রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন।

মনোনয়ন বঞ্চিত বদিউজ্জামানের অভিযোগ, মনোনয়ন পাওয়া রাজিবুল আগে ছাত্রদল করতেন। কয়েক বছর আগে দলে ঢুকেছে। এবার তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। বদিউজ্জামানের সমর্থক দলীয় নেতাকর্মীরা বেলপুকুরে প্রার্থী বদলের দাবি করেন।

পুঠিয়ার বানেশ্বরে মোট ১১ জন মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত আবুল কালাম আজাদ ওরফে ডিশ কালাম মনোনয়ন পেয়েছেন। বানেশ্বরের প্রার্থী নিয়েও নেতাকর্মীদের মাঝে তীব্র অসন্তোষ বিরাজ করছে।

এদিকে পুঠিয়ার দুই ইউনিয়নে যারা মনোনয়ন পেয়েছেন তারা সাবেক এমপি আব্দুল ওয়াদুদ দারার ঘনিষ্ঠ বলে জানা গেছে।

রাজশাহী-৫ আসনের এমপি ডা. মনসুর রহমানের ঘনিষ্ঠরা মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েছেন। এ নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে নেতাকর্মীদের মাঝে বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে।

রাজশাহীর বাগমারার শ্রীপুর ইউনিয়নে মনোনয়ন চেয়েছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান। তবে ইউনিয়ন সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান মোকবুল হোসেন মৃধা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন। মনোনয়ন বঞ্চিত জিল্লুর রহমানের দাবি শুক্রবার বিকেলে মনোনীত প্রার্থী মোকবুল মৃধার সমর্থকরা তার বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করেন। এতে তার একটি ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিনি মোকবুল মৃধার বিরুদ্ধে মামলা করবেন বলেও জানান তিনি।

মনোনয়ন বঞ্চিত জিল্লুর রহমানের এই দাবি উড়িয়ে দিয়ে মোকবুল মৃধা বলেন, জিল্লুর নিজের রান্না ঘরে পটকা ফুটিয়ে আগুন লাগায়। এখন দোষ চাপানো হচ্ছে তার কর্মী সমর্থকদের ওপর।

ঘটনা সম্পর্কে রাজশাহীর পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন যুগান্তরকে বলেন, মনোনয়ন বঞ্চিত জিল্লুর রহমানের ঘরে আগুন লাগার বিষয়টি রহস্যজনক। কোনো সুবিধা পেতেই হয়তো তিনি এ কাজ করে থাকতে পারেন। তবে পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করছে।

এদিকে স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানান, বাগমারার ১৬ ইউনিয়নের মধ্যে ৪টিতে এসেছে নতুন মুখ। আর বাকি ১২টিতেই ২০১৬ সালের প্রার্থীদেরই মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

২০১৬ সালে মনোনয়ন পেলেও গোবিন্দপাড়া ইউনিয়নে জিততে পারেননি এবারের মনোনয়ন পাওয়া আল মামুন। মামুন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি।

বড় বিহানলী ইউনিয়নে গতবারের পরাজিত প্রার্থী রেজাউল করিম রেজাকেই এবারও মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

বাসুপাড়া ইউনিয়নে মনোনয়ন পাওয়া লুৎফর রহমান গত নির্বাচনে মনোনয়ন পেয়েও পরাজিত হয়েছিলেন। গণিপুর ইউপিতে এবারও মনোনয়ন পেয়েছেন গতবারের পরাজিত প্রার্থী এসএম এনামুল হক।

এদিকে হামিরকুৎসা ইউনিয়নে গতবারের বিদ্রোহী প্রার্থী আনোয়ার হোসেনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। আনোয়ার গত নির্বাচনে বিদ্রোহী হয়ে নৌকার প্রার্থীকে হারিয়ে চেয়ারম্যান হয়েছিলেন।

নরদাশ ইউনিয়নে মনোনয়ন পেয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার আবুল। আবুল রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের নিকটাত্মীয় বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে দলীয় সূত্র থেকে জানা গেছে, গত ইউপি নির্বাচনে এমপি ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের ঘনিষ্ঠরাই মনোনয়ন পেলেও এবার বাগমারার ১৬ ইউনিয়নের মধ্যে ১২টিতেই তার ঘনিষ্ঠরা মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েছেন। মনোনয়ন বঞ্চিতরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ভোট করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে।

এর ফলে বাগমারায় দলের নেতাকর্মীদের মাঝে বিভাজন তৈরি হয়েছে।

বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মালেক মন্ডল বলেন, দল মনোনীত প্রার্থীদের জন্য সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের মাঠে নামতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কেউ দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে গেলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আ.লীগের মনোনয়ন নিয়ে তীব্র অসন্তোষ

রাজশাহীর ইউনিয়নে ইউনিয়নে সহিংসতার আশঙ্কা

 রাজশাহী ব্যুরো 
০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রাজশাহীর ইউনিয়নে ইউনিয়নে সহিংসতার আশঙ্কা
ছবি: শুক্রবার সন্ধ্যার পর পুঠিয়ার বেলপুকুরে রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন মনোনয়ন বঞ্চিত বদিউজ্জামানের সমর্থকরা। যুগান্তর

রাজশাহীর বিভিন্ন ইউনিয়নে মনোনয়ন বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ, বাড়িতে অগ্নিসংযোগ দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। মনোনয়নকে কেন্দ্র করে দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দল চরম আকার ধারণ করেছে। 


পুঠিয়ার বেলপুকুর ইউনিয়নে মনোনয়ন বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়েছে।  

রাজশাহীর দুই উপজেলার ১৮ ইউনিয়নে নির্বাচন ৫ জানুয়ারি। ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগ এসব ইউনিয়নে মনোনীত দলীয় প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছে। তবে বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের প্রার্থী নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। 

বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে কয়েকটি স্থানে। দাবি উঠেছে প্রার্থী বদলের। 

এদিকে রাজশাহীর বাগমারায় এমপি ঘনিষ্ঠরা মনোনয়ন বঞ্চিত হওয়ায় ইউনিয়নে ইউনিয়নে সহিংসতার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। 

শুক্রবার বিকালে মনোনয়ন প্রত্যাশী জিল্লুর রহমানের বাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

বেলপুকুরে দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি রাজিবুল হক। 

এদিকে বেলপুকুর ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বদিউজ্জামানের সমর্থকরা শুক্রবার সন্ধ্যার পর রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন। 

মনোনয়ন বঞ্চিত বদিউজ্জামানের অভিযোগ, মনোনয়ন পাওয়া রাজিবুল আগে ছাত্রদল করতেন। কয়েক বছর আগে দলে ঢুকেছে। এবার তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। বদিউজ্জামানের সমর্থক দলীয় নেতাকর্মীরা বেলপুকুরে প্রার্থী বদলের দাবি করেন। 

পুঠিয়ার বানেশ্বরে মোট ১১ জন মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত আবুল কালাম আজাদ ওরফে ডিশ কালাম মনোনয়ন পেয়েছেন। বানেশ্বরের প্রার্থী নিয়েও নেতাকর্মীদের মাঝে তীব্র অসন্তোষ বিরাজ করছে।

এদিকে পুঠিয়ার দুই ইউনিয়নে যারা মনোনয়ন পেয়েছেন তারা সাবেক এমপি আব্দুল ওয়াদুদ দারার ঘনিষ্ঠ বলে জানা গেছে। 

রাজশাহী-৫ আসনের এমপি ডা. মনসুর রহমানের ঘনিষ্ঠরা মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েছেন। এ নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে নেতাকর্মীদের মাঝে বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে।

রাজশাহীর বাগমারার শ্রীপুর ইউনিয়নে মনোনয়ন চেয়েছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান। তবে ইউনিয়ন সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান মোকবুল হোসেন মৃধা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন। মনোনয়ন বঞ্চিত জিল্লুর রহমানের দাবি শুক্রবার বিকেলে মনোনীত প্রার্থী মোকবুল মৃধার সমর্থকরা তার বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করেন। এতে তার একটি ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিনি মোকবুল মৃধার বিরুদ্ধে মামলা করবেন বলেও জানান তিনি।

মনোনয়ন বঞ্চিত জিল্লুর রহমানের এই দাবি উড়িয়ে দিয়ে মোকবুল মৃধা বলেন, জিল্লুর নিজের রান্না ঘরে পটকা ফুটিয়ে আগুন লাগায়। এখন দোষ চাপানো হচ্ছে তার কর্মী সমর্থকদের ওপর।

ঘটনা সম্পর্কে রাজশাহীর পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন যুগান্তরকে বলেন, মনোনয়ন বঞ্চিত জিল্লুর রহমানের ঘরে আগুন লাগার বিষয়টি রহস্যজনক। কোনো সুবিধা পেতেই হয়তো তিনি এ কাজ করে থাকতে পারেন। তবে পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করছে।

এদিকে স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানান, বাগমারার ১৬ ইউনিয়নের মধ্যে ৪টিতে এসেছে নতুন মুখ। আর বাকি ১২টিতেই ২০১৬  সালের প্রার্থীদেরই মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। 

২০১৬ সালে মনোনয়ন পেলেও গোবিন্দপাড়া ইউনিয়নে জিততে পারেননি এবারের মনোনয়ন পাওয়া আল মামুন। মামুন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি। 

বড় বিহানলী ইউনিয়নে গতবারের পরাজিত প্রার্থী রেজাউল করিম রেজাকেই এবারও মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। 

বাসুপাড়া ইউনিয়নে মনোনয়ন পাওয়া লুৎফর রহমান গত নির্বাচনে মনোনয়ন পেয়েও পরাজিত হয়েছিলেন। গণিপুর ইউপিতে এবারও মনোনয়ন পেয়েছেন গতবারের পরাজিত প্রার্থী এসএম এনামুল হক।

এদিকে হামিরকুৎসা ইউনিয়নে গতবারের বিদ্রোহী প্রার্থী আনোয়ার হোসেনকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। আনোয়ার গত নির্বাচনে বিদ্রোহী হয়ে নৌকার প্রার্থীকে হারিয়ে চেয়ারম্যান হয়েছিলেন। 

নরদাশ ইউনিয়নে মনোনয়ন পেয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারওয়ার আবুল। আবুল রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের নিকটাত্মীয় বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে দলীয় সূত্র থেকে জানা গেছে, গত ইউপি নির্বাচনে এমপি ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের ঘনিষ্ঠরাই মনোনয়ন পেলেও এবার বাগমারার ১৬ ইউনিয়নের মধ্যে ১২টিতেই তার ঘনিষ্ঠরা মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েছেন। মনোনয়ন  বঞ্চিতরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে ভোট করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে।

এর ফলে বাগমারায় দলের নেতাকর্মীদের মাঝে বিভাজন তৈরি হয়েছে। 

বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মালেক মন্ডল বলেন, দল মনোনীত প্রার্থীদের জন্য সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের মাঠে নামতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কেউ দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনে গেলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন