দুই বাসের চাপে প্রাণ গেল পরিবহণ শ্রমিকের
jugantor
দুই বাসের চাপে প্রাণ গেল পরিবহণ শ্রমিকের

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ২১:৪৪:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনায় দুই বাসের রেষারেষিতে চাপা পড়ে এক পরিবহণ শ্রমিক মারা গেছেন। রোববার দুপুরে শহরের পারলা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ওই শ্রমিকের নাম খুরশেদ আলম (৪০)। তিনি ময়মনসিংহে মুক্তাগাছা উপজেলার মুগলতলা গ্রামের ঈমাম আলীর ছেলে। তিনি শাহজালাল পরিবহণের সুপারভাইজার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার দুপুর ১টার দিকে সিয়াম-শারমিন পরিহণের একটি বাস বাসস্ট্যান্ডে প্রবেশের সময় শাহজালাল পরিবহণের একটি বাস নেত্রকোনা পারলা বাসস্ট্যান্ড থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার জন্য বের হতে চাইলে দুটি বাসের চাপায় পড়ে পরিবহন শ্রমিক খুরশেদ আলম গুরুতর আহত হন। পরে তার সহকর্মীরা দ্রুত তাকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নেত্রকোনা মডেল থানার ওসি খন্দকার শাকের আহমেদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, নিহত ব্যক্তির স্বজনদের খবর দেওয়া হয়েছে। তার লাশ নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে রাখা হয়েছে। তারা এলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দুই বাসের চাপে প্রাণ গেল পরিবহণ শ্রমিকের

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনায় দুই বাসের রেষারেষিতে চাপা পড়ে এক পরিবহণ শ্রমিক মারা গেছেন। রোববার দুপুরে শহরের পারলা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত ওই শ্রমিকের নাম খুরশেদ আলম (৪০)। তিনি ময়মনসিংহে মুক্তাগাছা উপজেলার মুগলতলা গ্রামের ঈমাম আলীর ছেলে। তিনি শাহজালাল পরিবহণের সুপারভাইজার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার দুপুর ১টার দিকে সিয়াম-শারমিন পরিহণের একটি বাস বাসস্ট্যান্ডে প্রবেশের সময় শাহজালাল পরিবহণের একটি বাস নেত্রকোনা পারলা বাসস্ট্যান্ড থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার জন্য বের হতে চাইলে দুটি বাসের চাপায় পড়ে পরিবহন শ্রমিক খুরশেদ আলম গুরুতর আহত হন। পরে তার সহকর্মীরা দ্রুত তাকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নেত্রকোনা মডেল থানার ওসি খন্দকার শাকের আহমেদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, নিহত ব্যক্তির স্বজনদের খবর দেওয়া হয়েছে। তার লাশ নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে রাখা হয়েছে। তারা এলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন