দুইপক্ষের ঝগড়া থামাতে যাওয়াই কাল হলো তালিমের
jugantor
দুইপক্ষের ঝগড়া থামাতে যাওয়াই কাল হলো তালিমের

  সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি  

০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:২৫:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় দুইপক্ষের ঝগড়া থামাতে গিয়ে একপক্ষের লোকজনের কিল-ঘুষিতে এক সালিশকারী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বিকালে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সদর মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

নিহতের নাম মো. তালিম উদ্দিন (৫৫)। তিনি সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের সদরগড় গ্রামের মৃত সুরুজ আলীর ছেলে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সদরগড় গ্রামের মৃত কালো মিয়ার ছেলে মো. পারুল মিয়া ও বদরুল মিয়ার ছেলে শাহ জামালের সঙ্গে একই গ্রামের মো. হাবিবুর রহমানের ছেলে জিহাদ মিয়া ও শাহিন মিয়ার ছেলে আরিফ মিয়ার কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তুমুল বাগবিতণ্ডা দেখা দেয়।

এ সময় স্থানীয় সালিশকারী তালিম উদ্দিন উভয়পক্ষকে নিভৃত করতে গেলে উভয়পক্ষের কিল-ঘুষিতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিলে সুনামগঞ্জ সদর থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. সহিদুর রহমান একজন নিহতের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে। হত্যার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দুইপক্ষের ঝগড়া থামাতে যাওয়াই কাল হলো তালিমের

 সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি 
০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:২৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় দুইপক্ষের ঝগড়া থামাতে গিয়ে একপক্ষের লোকজনের কিল-ঘুষিতে এক সালিশকারী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বিকালে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সদর মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 

নিহতের নাম মো. তালিম উদ্দিন (৫৫)। তিনি সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের সদরগড় গ্রামের মৃত সুরুজ আলীর ছেলে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সদরগড় গ্রামের মৃত কালো মিয়ার ছেলে মো. পারুল মিয়া ও বদরুল মিয়ার ছেলে শাহ জামালের সঙ্গে একই গ্রামের মো. হাবিবুর রহমানের ছেলে জিহাদ মিয়া ও শাহিন মিয়ার ছেলে আরিফ মিয়ার কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে তুমুল বাগবিতণ্ডা দেখা দেয়।

এ সময় স্থানীয় সালিশকারী তালিম উদ্দিন উভয়পক্ষকে নিভৃত করতে গেলে উভয়পক্ষের কিল-ঘুষিতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা দেখা দিলে সুনামগঞ্জ সদর থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. সহিদুর রহমান একজন নিহতের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে। হত্যার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন