ছাত্রলীগ নেতা হত্যায় রাজশাহীতে ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড
jugantor
ছাত্রলীগ নেতা হত্যায় রাজশাহীতে ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড

  রাজশাহী ব্যুরো  

০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৪৪:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

হত্যা মামালা

রাজশাহীর চাঞ্চল্যকর ছাত্রলীগ নেতা শাহীন আলম ওরফে শাহেন শাহ হত্যার অভিযোগে ৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড ও ২২ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

১৩ বার পেছানোর পর ১৪তম দিনে বৃহস্পতিবার রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক ওএইচএম ইলিয়াস হোসেন জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন মামলার বাদী ও শাহেন শাহের ভাই মহানগর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাহিদ আকতার নাহান।

রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্ত ৩১ জনই আদালতে হাজির ছিল। রায় ঘোষণা শেষ হলে তাদের রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন— রাসিকের ১নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মুনসুর রহমান, হাসানুজ্জামান হিমেল, তৌফিকুল ইসলাম চাঁদ, মোহাম্মদ মসহিন, সাইরুল ইসলাম, রজব আলী, বিপ্লব হোসেন, আব্দুল মোমিন ও আরিফুল ইসলাম। দণ্ডপ্রাপ্তদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। দণ্ডপ্রাপ্তদের বাড়ি রাজশাহী মহানগরীর হড়গ্রাম কোর্ট এলাকায়।

অন্যদিকে যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন— মাহাবুল আলম, সাজ্জাদ হোসেন, আব্দুস সাত্তার, রঙ লাল হোসেন, হাসান আলী, মাসুদ হোসেন, মোহাম্মদ রাজা, গোলাম মোর্তুজা, সুমন আলী, আসাদুল ইসলাম, আকতারুল ইসলাম, জাইদুল হক, ফরমান আলী, টি আলম, মোহাম্মদ রাজু, আকবর হোসেন, মোহাম্মদ সম্রাট, লাল মোহাম্মদ লালু, আজাদ আলী ও মাসুম হোসেন। যাবজ্জীবনপ্রাপ্তদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানার আদেশও দেওয়া হয়েছে।

এ মামলার বাদী মহানগর যুবলীগ নেতা নাহিদ আকতার নাহান বলেন, এই রায় বহু প্রতীক্ষিত। আমরা সন্তোষ প্রকাশ করছি। আমরা ন্যায়বিচার পেয়েছি। এমনভাবে কাউকে যেন স্বজন হারাতে না হয় সেই দোয়া করি।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৮ আগস্ট দুপুরে রাজশাহী কোর্ট কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষানবিস আইনজীবী শাহীন আলম ওরফে শাহেন শাহকে (৩৪) নগরীর গুড়িপাড়ার ক্লাব মোড় এলাকায় নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা।

পরে শাহেন শাহর নিথর দেহকে পুকুরে নিক্ষেপ করা হয়। ঘটনার পর দিন নিহতের ভাই যুবলীগ নেতা নাহিদ আকতার নাহান বাদী হয়ে ২৫ জনকে আসামি করে রাজপাড়া থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

তদন্ত শেষে রাজপাড়া থানার এসআই মনিরুজ্জামান ২০১৩ সালের ২৭ ডিসেম্বর রাসিকের সাবেক কাউন্সিলর মনুসর রহমানসহ ৩১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেন।

এদিকে মামলাটি রাজশাহীর বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল থেকে গত বছর রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ আদালতে স্থানান্তর হয়। গত এক বছর ধরে মামলাটি রায়ের অপেক্ষায় ছিল।

বাদীপক্ষের আইনজীবী একরামুল হক-২ যুগান্তরকে বলেন, অভিযোগ নিশ্চিতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞআদালত আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক সাজা ঘোষণা করেছেন। এ রায়ে আমরা সন্তোষ প্রকাশ করছি।

আদালতে সরকারি পক্ষের আইনজীবী মোসাব্বিরুল ইসলাম বলেন, এই রায় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। কেউ অপরাধ করে যে পার পায় না— এই রায়ে সেটিই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী মিজানুল ইসলাম বলেন, আমরা এ আদালতে ন্যায়বিচার পাইনি। রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে।

ছাত্রলীগ নেতা হত্যায় রাজশাহীতে ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড

 রাজশাহী ব্যুরো 
০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হত্যা মামালা
ফাইল ছবি

রাজশাহীর চাঞ্চল্যকর ছাত্রলীগ নেতা শাহীন আলম ওরফে শাহেন শাহ হত্যার অভিযোগে ৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড ও ২২ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

১৩ বার পেছানোর পর ১৪তম দিনে বৃহস্পতিবার রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক ওএইচএম ইলিয়াস হোসেন জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন মামলার বাদী ও শাহেন শাহের ভাই মহানগর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাহিদ আকতার নাহান।

রায় ঘোষণার সময় দণ্ডপ্রাপ্ত ৩১ জনই আদালতে হাজির ছিল। রায় ঘোষণা শেষ হলে তাদের রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।  

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন— রাসিকের ১নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মুনসুর রহমান, হাসানুজ্জামান হিমেল, তৌফিকুল ইসলাম চাঁদ, মোহাম্মদ মসহিন, সাইরুল ইসলাম, রজব আলী, বিপ্লব হোসেন, আব্দুল মোমিন ও আরিফুল ইসলাম। দণ্ডপ্রাপ্তদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। দণ্ডপ্রাপ্তদের বাড়ি রাজশাহী মহানগরীর হড়গ্রাম কোর্ট এলাকায়।

অন্যদিকে যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন— মাহাবুল আলম, সাজ্জাদ হোসেন, আব্দুস সাত্তার, রঙ লাল হোসেন, হাসান আলী, মাসুদ হোসেন, মোহাম্মদ রাজা, গোলাম মোর্তুজা, সুমন আলী, আসাদুল ইসলাম, আকতারুল ইসলাম, জাইদুল হক, ফরমান আলী, টি আলম, মোহাম্মদ রাজু, আকবর হোসেন, মোহাম্মদ সম্রাট, লাল মোহাম্মদ লালু, আজাদ আলী ও মাসুম হোসেন। যাবজ্জীবনপ্রাপ্তদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানার আদেশও দেওয়া হয়েছে।

এ মামলার বাদী মহানগর যুবলীগ নেতা নাহিদ আকতার নাহান বলেন, এই রায় বহু প্রতীক্ষিত। আমরা সন্তোষ প্রকাশ করছি। আমরা ন্যায়বিচার পেয়েছি। এমনভাবে কাউকে যেন স্বজন হারাতে না হয় সেই দোয়া করি।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৮ আগস্ট দুপুরে রাজশাহী কোর্ট কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষানবিস আইনজীবী শাহীন আলম ওরফে শাহেন শাহকে (৩৪) নগরীর গুড়িপাড়ার ক্লাব মোড় এলাকায় নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা।

পরে শাহেন শাহর নিথর দেহকে পুকুরে নিক্ষেপ করা হয়। ঘটনার পর দিন নিহতের ভাই যুবলীগ নেতা নাহিদ আকতার নাহান বাদী হয়ে ২৫ জনকে আসামি করে রাজপাড়া থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

তদন্ত শেষে রাজপাড়া থানার এসআই মনিরুজ্জামান ২০১৩ সালের ২৭ ডিসেম্বর রাসিকের সাবেক কাউন্সিলর মনুসর রহমানসহ ৩১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেন।

এদিকে মামলাটি রাজশাহীর বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল থেকে গত বছর রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ আদালতে স্থানান্তর হয়। গত এক বছর ধরে মামলাটি রায়ের অপেক্ষায় ছিল।

বাদীপক্ষের আইনজীবী একরামুল হক-২ যুগান্তরকে বলেন, অভিযোগ নিশ্চিতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞআদালত আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক সাজা ঘোষণা করেছেন। এ রায়ে আমরা সন্তোষ প্রকাশ করছি।

আদালতে সরকারি পক্ষের আইনজীবী মোসাব্বিরুল ইসলাম বলেন, এই রায় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। কেউ অপরাধ করে যে পার পায় না— এই রায়ে সেটিই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী মিজানুল ইসলাম বলেন, আমরা এ আদালতে ন্যায়বিচার পাইনি। রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন