হাফেজি পড়ুয়া শিশুকে কুপিয়ে গুরুতর জখম
jugantor
হাফেজি পড়ুয়া শিশুকে কুপিয়ে গুরুতর জখম

  চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি  

০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১৪:১৯:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

হাফেজি পড়ুয়া শিশুকে কুপিয়ে গুরুতর জখম

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের রাজারবিল ডেইলপাড়ায় এবার পাষণ্ড এক সন্ত্রাসী যুবক ধারালো দা’ দিয়ে হাফেজি পড়ুয়া শিশুকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে।

আহত শিশু মো. সাকিব হোসেন (১১) মৃত সাইফুল ইসলামের ছেলে। এ ঘটনায় হামলাকারী যুবকের নাম ইসমাইল। সে একই এলাকার মৃত আব্দুর রশিদের ছেলে এবং পেশায় একজন অটোচালক।

শিশুটিকে আঘাতের পরও ক্ষান্ত না হয়ে ওই সন্ত্রাসী শিশুটির মাকেও বেদম মারধর করেছে বলে জানিয়েছেন তার বড় ছেলে। এ সময় শিশু শিক্ষার্থীর মাথায় এবং পায়ে ধারালো দা'র কোপে আহত হয়ে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে। চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে শিশু ও তার মা চিকিৎসাধীন।

সূত্রমতে, বুধবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ এ ঘটনা ঘটে। ওই সময় আহত সাকিব তাদের বাড়ির উঠান থেকে চলাচল রাস্তার পাশ দিয়ে ইসমাইলের বাড়ির সীমানাঘেঁষে পাইপ দিয়ে বৃষ্টির পানি সরিয়ে নিয়ে যেতে চায়। এতেই ক্ষেপে অটোচালক ইসমাইল তেড়ে ওই শিশুর বাড়ির ভেতরেই মা ও ছেলে দুজনকে একসঙ্গে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে দা দিয়ে শিশু সাকিবের মাথায় এবং পায়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সে।

পরে আহত মা ও ছেলে দুজনকে এলাকার লোকজন চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে নিয়ে এসে ভর্তি করান।

এ ঘটনায় শিশু সাকিবের বড় ভাই টমটমচালক তৌহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে ইসমাইলকে বিবাদী করে চকরিয়া থানায় লিখিত এজাহার করেছেন।

চকরিয়া থানার ওসি মো. ওসমান গনি বলেন, ফাঁসিয়াখালীতে এক মাদ্রাসাছাত্রকে মারধর ও কুপিয়ে জখমের ঘটনায় এজাহার পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

সাকিব ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ছগিরশাহ কাটা এতিমখানায় থেকে হাফেজি পড়ে।

হাফেজি পড়ুয়া শিশুকে কুপিয়ে গুরুতর জখম

 চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি 
০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হাফেজি পড়ুয়া শিশুকে কুপিয়ে গুরুতর জখম
ফাইল ছবি

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের রাজারবিল ডেইলপাড়ায় এবার পাষণ্ড এক সন্ত্রাসী যুবক ধারালো দা’ দিয়ে হাফেজি পড়ুয়া শিশুকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে।

আহত শিশু মো. সাকিব হোসেন (১১) মৃত সাইফুল ইসলামের ছেলে। এ ঘটনায় হামলাকারী যুবকের নাম ইসমাইল। সে একই এলাকার মৃত আব্দুর রশিদের ছেলে এবং পেশায় একজন অটোচালক।

শিশুটিকে আঘাতের পরও ক্ষান্ত না হয়ে ওই সন্ত্রাসী শিশুটির মাকেও বেদম মারধর করেছে বলে জানিয়েছেন তার বড় ছেলে। এ সময় শিশু শিক্ষার্থীর মাথায় এবং পায়ে ধারালো দা'র কোপে আহত হয়ে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে। চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে শিশু ও তার মা চিকিৎসাধীন।

সূত্রমতে, বুধবার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ এ ঘটনা ঘটে। ওই সময় আহত সাকিব তাদের বাড়ির উঠান থেকে চলাচল রাস্তার পাশ দিয়ে ইসমাইলের বাড়ির সীমানাঘেঁষে পাইপ দিয়ে বৃষ্টির পানি সরিয়ে নিয়ে যেতে চায়। এতেই ক্ষেপে অটোচালক ইসমাইল তেড়ে ওই শিশুর বাড়ির ভেতরেই মা ও ছেলে দুজনকে একসঙ্গে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে দা দিয়ে শিশু সাকিবের মাথায় এবং পায়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সে।

পরে আহত মা ও ছেলে দুজনকে এলাকার লোকজন চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে নিয়ে এসে ভর্তি করান।

এ ঘটনায় শিশু সাকিবের বড় ভাই টমটমচালক তৌহিদুল ইসলাম বাদী হয়ে ইসমাইলকে বিবাদী করে চকরিয়া থানায় লিখিত এজাহার করেছেন।

চকরিয়া থানার ওসি মো. ওসমান গনি বলেন, ফাঁসিয়াখালীতে এক মাদ্রাসাছাত্রকে মারধর ও কুপিয়ে জখমের ঘটনায় এজাহার পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

সাকিব ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ছগিরশাহ কাটা এতিমখানায় থেকে হাফেজি পড়ে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন