আইনজীবী বর-কনের বয়সের ব্যবধান অর্ধশত বছর!
jugantor
আইনজীবী বর-কনের বয়সের ব্যবধান অর্ধশত বছর!

  কুমিল্লা ব্যুরো  

১৭ জানুয়ারি ২০২২, ২২:০৪:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লায় ৯০ বছর বয়সে বিয়ে করে ভাইরাল হয়েছেন জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ইসমাইল হোসেন। কনে কুমিল্লা নগরীর দেশওয়ালীপট্টির মিনারা বেগম। তার বয়স ৪০ বছর। সোমবার দুপুরে দেশওয়ালীপট্টিতে তাদের বিয়ে হয়।

বর ইসমাইল হোসেন কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির পাঁচবার সভাপতি ছিলেন। এর আগেও তিনি বিয়ে করেছেন। তবে স্ত্রী মারা গেছেন। ওই সংসারে পাঁচ ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, অর্ধশতাধিক বরযাত্রী নিয়ে নগরীর দেশওয়ালীপট্টিতে বিয়ে করতে যান ইসমাইল হোসেন। দুপুরে বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ের অনুষ্ঠান শেষ করে বউ নিয়ে নিজ বাসায় ফেরার পথে উৎসুক লোকজন এই দম্পতির ছবি তুলেন। তাদের বেশ কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এর পরপরই আলোচনায় আসেন ৯০ বছর বয়সী ইসমাইল হোসেন।

নতুন বরের ছেলে ইসহাক সিদ্দিকী বলেন, ২০১৬ সালের ২৭ নভেম্বর অসুস্থতাজনিত কারণে আমার মা মারা যান। এরপর থেকে বাবাও অসুস্থ হয়ে পড়েন। দীর্ঘ সময় পর আমরা পারিবারিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে বাবাকে বিয়ে করিয়েছি।

বিষয়টি নিয়ে কেউ যেন নেতিবাচক মন্তব্য না করেন, সেজন্য সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন ইসহাক সিদ্দিকী।

আইনজীবী বর-কনের বয়সের ব্যবধান অর্ধশত বছর!

 কুমিল্লা ব্যুরো 
১৭ জানুয়ারি ২০২২, ১০:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লায় ৯০ বছর বয়সে বিয়ে করে ভাইরাল হয়েছেন জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ইসমাইল হোসেন। কনে কুমিল্লা নগরীর দেশওয়ালীপট্টির মিনারা বেগম। তার বয়স ৪০ বছর। সোমবার দুপুরে দেশওয়ালীপট্টিতে তাদের বিয়ে হয়।

বর ইসমাইল হোসেন কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির পাঁচবার সভাপতি ছিলেন। এর আগেও তিনি বিয়ে করেছেন। তবে স্ত্রী মারা গেছেন। ওই সংসারে পাঁচ ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, অর্ধশতাধিক বরযাত্রী নিয়ে নগরীর দেশওয়ালীপট্টিতে বিয়ে করতে যান ইসমাইল হোসেন। দুপুরে বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ের অনুষ্ঠান শেষ করে বউ নিয়ে নিজ বাসায় ফেরার পথে উৎসুক লোকজন এই দম্পতির ছবি তুলেন। তাদের বেশ কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এর পরপরই আলোচনায় আসেন ৯০ বছর বয়সী ইসমাইল হোসেন।

নতুন বরের ছেলে ইসহাক সিদ্দিকী বলেন, ২০১৬ সালের ২৭ নভেম্বর অসুস্থতাজনিত কারণে আমার মা মারা যান। এরপর থেকে বাবাও অসুস্থ হয়ে পড়েন। দীর্ঘ সময় পর আমরা পারিবারিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে বাবাকে বিয়ে করিয়েছি।

বিষয়টি নিয়ে কেউ যেন নেতিবাচক মন্তব্য না করেন, সেজন্য সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন ইসহাক সিদ্দিকী।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন